মৌলভীবাজার

মৌলভীবাজারে মাতৃগর্ভে সন্তানের মৃ’ত্যু: চিকিৎসায় অবহেলার অ’ভিযোগ

নিইউজ ডেস্ক- মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতা’লের কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্সদের অবহেলায় মাতৃগর্ভে

সন্তানের মৃ’ত্যুর অ’ভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরে আলট্রাসনোগ্রাফি রিপোর্টে মাতৃগর্ভে সন্তানের মৃ’ত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন ডাক্তার। পরে বিকেল ৪টায় অ’পারেশন করে মৃ’ত সন্তান প্রসব করানো হয়।

জানা গেছে, মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজে’লার হামিদপুর গ্রামের গ্রামপু’লিশ সরাফত আলীর স্ত্রী’ তানিয়া আক্তার প্রসবকালীন ব্যাথা নিয়ে রোববার মৌলভীবাজারের ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতা’লের গাইনি বিভাগে ভর্তি হন। ভর্তির দিন কর্তব্যরত চিকিৎসকের পরাম’র্শে আলট্রাসনোগ্রাফি করা হয়। তখন বাচ্চা ও মা সুস্থ আছেন বলে জানান চিকিৎসক।

আজ মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) চিকিৎসকের পরাম’র্শে আবারও আল্ট্রাসনোগ্রাফি করালে রিপোর্টে বাচ্চার মৃ’ত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হন চিকিৎসক।

স্বজনদের অ’ভিযোগ, চিকিৎসক ও নার্সদের অবহেলায় বাচ্চাটির মৃ’ত্যু হয়েছে।

সরাফত আলী বলেন, আমা’র স্ত্রী’ ১০ মাসের গর্ভবতী। গত ১৯ তারিখ ডাক্তার দেখিয়েছি। তিনি হাসপাতা’লে ভর্তির জন্য বলেন। আমাদের চেয়ারম্যান নকুল চন্দ দাসের পরম’র্শে সদর হাসপাতা’লে ভর্তি করি। আজ একজন ডাক্তার করে জানান বাচ্চা মাতৃগর্ভেই মৃ’ত্যুবরণ করেছে।

সঠিক সময়ে সঠিক পদক্ষেপ না নেয়ার কারণেই তার সন্তানের মৃ’ত্যু হয়েছে বলে অ’ভিযোগ করেন তিনি।

মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতা’লের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আহমেদ ফয়সল জামান বলেন, তাদের অ’ভিযোগ শুনেছি। আলট্রাসনোগ্রাফিতে এসেছে বাচ্চা মায়ের পেটে মা’রা গেছে। এখানে অবহেলা কোথায় বুঝলাম না? গতকাল পর্যন্ত আলট্রাসনোগ্রাফি রিপোর্টে বাচ্চা সুস্থই ছিল।

তিনি বলেন, গতকাল পর্যন্ত বাচ্চার নড়াচড়া ছিল। আজ নড়াচড়া বন্ধের বিষয়টি মা বুঝতে পারেন নি। তাই ব্যবস্থা গ্রহণ করতে দেরি হয়েছে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!