প্রবাস

ছেলে দেশে ফেরার প্রতীক্ষায় মা, নববধূ সঙ্গে দেখাই হয়নি তুষারের

কাতারে সড়ক দুর্ঘটনায় রেজুয়ানুল হক তুষার (২৫) নামে এক প্রবাসী বাংলাদেশী নিহত হয়েছেন।

সোমবার (২ জানুয়ারি) বাংলাদেশ সময় সকাল ৯টার দিকে কাতারের রাজধানী দোহায় সড়ক দুর্ঘটনায় সে নিহত হয়। নিহত তুষার জেলা শহরের পশ্চিম পাইকপাড়া বোডিং মাঠ এলাকার মৃত হামিদুল হকের ছেলে।

তুষারের একমাত্র ভগ্নিপতি শাহনেওয়াজ ভূঁইয়া রাকিব জানান, তুষার বাবা-মায়ের একমাত্র ছেলে সন্তান ছিল। তার একমাত্র বোন জুঁইকে আমি বিয়ে করেছি। আমি স্ত্রী সন্তান নিয়ে জাপান প্রবাসে আছি। আমার শ্বশুর প্রায় ৮ বছর আগে মারা গেছেন। বাবা মারা যাওয়ার একবছর পর মা’কে একা বাড়িতে ফেলে পরিবারের হাল ধরতে জীবিকার তাগিদে তুষার কাতার প্রবাসে পাড়ি দেয়। সে কাতারে একটি প্রতিষ্ঠানে ফুড ডেলিভারির কাজ করতো। সোমবার (২ জানুয়ারি) সকালে মোটরসাইকেলে খাবার ডেলিভারি দিতে যাওয়ার সময় কোন একটি যানবাহনের সাথে দুর্ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই তুষার নিহত হন। সেখানে হাসপাতাল মর্গে লাশ রাখা আছে। মরদেহ দেশে আনার চেষ্টা চলছে।

রাকিব আরও জানান, প্রবাসে যাওয়ার পর গত ৭ বছরে একবারও দেশে আসেনি। গত ৬ মাস আগে মোবাইলে পারিবারিক ভাবে জেলার আখাউড়া উপজেলার মোগড়ায় বিয়ে করেন তুষার। কিছুদিনের মধ্যে দেশে ফিরে আনুষ্ঠানিক ভাবে নববধূকে ঘরে তুলার কথা ছিল তার। কিছুদিন দেশে থেকে তুষার কাতারে না গিয়ে পোল্যান্ড পাড়ি দেওয়ার সব প্রস্তুতি ছিল। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস দেশে ফেরা হয়নি তুষারের, নববধূও ঘরে তোলা হয়নি।

তিনি আরও জানান, একমাত্র মেয়ে জুঁই আমার সাথে জাপানে, একমাত্র ছেলে কাতারে থাকায় একাকিত্ম জীবন পাড় করছিলেন তুষারের মা। প্রতিক্ষায় ছিলেন ছেলে দেশে ফিরে আসবে। ধুমধামে ছেলের বিয়ের আয়োজন করে পুত্রবধূকে ঘরে তুলে আনবেন। কিন্তু সেই স্বপ্ন আর পূরণ হয়নি তুষারের মায়ের।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!