খোলা জানালা

ডায়াবেটিস রোগীর রোজা, পর্ব-১, লিখেছেন ডাঃ শি’ব্বির আহম’দ

ডায়াবেটিস রোগীর রোজাঃ
সারা বিশ্বের প্রায় ১১৬ মিলিয়ন ডায়াবেটিস রোগী রোজা রাখেন। যাদের রোজা রাখার সাম’র্থ্য আছে তাদের জন্য ডায়াবেটিস এমন কোনো বাধা নয়। বাংলাদেশে সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, ডায়াবেটিস রোগীরা রোজা রাখলে খুব কমই জটিলতার সন্মুখীন হন। বেশীরভাগ ডায়াবেটিস রোগীই রোজা রাখতে পারেন। কিন্তু প্রয়োজন পূর্ব প্রস্তুতির। রমজানের কমপক্ষে ৩ মাস পূর্বে ডাক্তারের সঙ্গে পরাম’র্শ করে প্রস্তুতি নেয়া দরকার। রোজা রাখা বা না রাখার সিদ্ধান্ত রোগীর নিজস্ব, ডাক্তারের ভূমিকা এখানে শুধু পরাম’র্শক হিসেবে কাজ করা। ডাক্তার রোগের ধরণ, ইতিহাস ও প্রয়োজনীর পরীক্ষা-নিরীক্ষা সা’পেক্ষে রোজা রাখা ঝুঁ’কিপূর্ণ কি না তা রোগীকে জানাবেন এবং রোগী রোজা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকলে তা যেন নিরাপদে রাখতে পারেন সেইমত তার জীবনযাত্রা, ওষুধ এবং অন্যান্য চিকিৎসা স’ম্পর্কিত বিষয়াদি নির্ধারণ করে দিবেন।

অনেক বেশী ঝুঁ’কি আছে জেনেও অনেক রোগীই রোজার ইবাদত বাদ দিতে চান না। আশার কথা এটাই যে আধুনিক চিকিৎসা’পদ্ধতি সহ’জে এবং নিরাপদে রোজা রাখার সুযোগ করে দিয়েছে। পূর্বপ্রস্তুতি নিয়ে রোজা রাখলে র’ক্তে সুগার বেশী কমে যাওয়া (হাইপোগ্লাইসেমিয়া) সহ অন্যান্য জটিলতা রমজানের পূর্বের চেয়েও অনেক কম হয়। কিন্তু ডাক্তারের পরাম’র্শ ছাড়া রোজা রাখলে বেশ কিছু জটিলতার উদ্ভব হতে পারে।

◙ রোজার স্বাস্থ্যগত উপকারিতাঃ
● গ্লুকোজ কমায়, ● ওজন কমায়, ● র’ক্তের খা’রাপ চর্বি কমায়, ● ডায়াবেটিসের দীর্ঘমেয়াদি জটিলতা কমায়, ● র’ক্তচাপ কমায়, ● হৃদরোগের ঝুঁ’কি কমায়, ● প্রদাহ কমায়, ● পরিপাকতন্ত্র ও লিভা’র ভাল রাখে, ● মস্তিষ্ক ও নার্ভের কার্যক্ষমতা বাড়ায়, ● ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে।

◙ রোজার কারণে ডায়াবেটিসের রোগী যে সকল জটিলতার সম্মুখীন হতে পারেনঃ
● হাইপোগ্লাইসেমিয়াঃ গ্লুকোজের মাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে কমে যাওয়া (<৩.৯ মিলিমোল/লিটার) ● হাইপারগ্লাইসেমিয়াঃ গ্লুকোজের মাত্রা বেশী হওয়া, কিটোএসিডোসিস ও হাইপারঅসমোলার স্টেট ● র’ক্তের মধ্যে ফ্যাট বা চর্বি অ’তিমাত্রায় বেড়ে যাওয়া ● ওজন বেড়ে যাওয়াঃ অ’তিরিক্ত খাদ্যগ্রহণ, কম চলাফেরা ও শারীরিক পরিশ্রম করার কারণে ● পানিশূন্যতা, র’ক্ত জমাট বেঁধে র’ক্তনালী বন্ধ হয়ে যাওয়া ● শরীরের অন্যান্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গের (যেমন-হার্ট, কিডনি, লিভা’র) কার্যক্ষমতা কমে যাওয়া।◙ ডাক্তারের করণীয়ঃ ● ঝুঁ’কি নির্ধারণ, ● রোজায় ডায়াবেটিস স’ম্পর্কিত শিক্ষা, ● ঔষধ পূনঃব্যবস্থাপনা, ● ফলো-আপ◙ ডায়াবেটিসের রোগী, যাদের রোজা রাখা অনেক বেশী ঝুঁ’কিপূর্ণঃ ● বিগত ৩ মাসের মধ্যে গ্লুকোজ অ’তিরিক্ত কমে গিয়েছিল ● ৩ মাসের মধ্যে কিটোএডোসিস / হাইপার অসমোলার স্টেট ● ঘনঘন গ্লুকোজ স্বাভাবিকের চেয়ে কমে যায় ● গ্লুকোজ অ’তিরিক্ত কমে গেলেও কোনো উপসর্গ হয় না● অনিয়ন্ত্রিত টাইপ ১ ডায়াবেটিস ● হঠাৎ গুরুতর যে কোন অ’সুস্থতা ● গর্ভবতী মা যাদের আগে থেকেই টাইপ ২ ডায়াবেটিস আছে, অথবা গর্ভাবস্থায় ডায়াবেটিস হয়েছে এবং ইনসুলিন / সালফোনাইলইউরিয়া ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা পাচ্ছেন ● দীর্ঘমেয়াদি ডায়ালাইসিসের রোগী অথবা কিডনী রোগ খুবই গুরুতর পর্যায়ে আছে এমন রোগী (স্টেজ ৪ ও ৫)● গুরুতর র’ক্তনালীর রোগ, যেমন, হার্ট-অ্যাটাক, স্ট্রোক ● ভগ্ন স্বাস্থ্যের অ’তিবৃদ্ধ রোগী।◙ ডায়াবেটিসের রোগী, যাদের রোজা রাখা বেশী ঝুঁ’কিপূর্ণঃ ● দীর্ঘদিন ধরে অনিয়ন্ত্রিত টাইপ ২ ডায়াবেটিস ● নিয়ন্ত্রিত টাইপ ১ ডায়াবেটিস ● নিয়ন্ত্রিত টাইপ ২ ডায়াবেটিস যারা দিনে অনেকবার ইনসুলিন নেন বা প্রিমিক্সকড ইনসুলিন নেন ● গর্ভবতী টাইপ ২ ডায়াবেটিস অথবা গর্ভাবস্থায় ডায়াবেটিস, যিনি শুধু খাদ্য নিয়ন্ত্রণ করেন বা মেটফরমিন গ্রহণ করেন● কিডনী রোগ স্টেজ-৩ ● স্থিতিশীল র’ক্তনালীর রোগ (আগের স্ট্রোক বা হৃদরোগ) ● ডায়াবেটিস ছাড়া অন্যান্য রোগ যা ঝুঁ’কি বৃদ্ধির কারণ হতে পারে ● অনেক বেশী কায়িক পরিশ্রমকারী ● সজ্ঞানতার (cognitive) মাত্রা ব্যহত করতে পারে এমন ওষুধ গ্রহণকারী।◙ উপরোক্ত দুই গ্রুপের রোগী রোজা রাখতে চাইলে নীচের পরাম’র্শ ও শর্ত মানতে হবেঃ ● ডায়াবেটিসে রোজা রাখা স’ম্পর্কে কাঠামোবদ্ধ প্রশিক্ষণ লাভ করতে হবে ● একটি যোগ্য ডায়াবেটিস টীমের তত্বাবধানে থাকতে হবে ● গ্লুকোমিটারে নিয়মিত র’ক্তের সুগার পরিমাপ করতে হবে ● রোজা শুরুর আগে এবং রোজার সময় র’ক্তের সুগারের পরিমাপ অনুযায়ী নির্দেশনামত ওষুধ সমন্বয় করতে হবে● র’ক্তের সুগারের অ’তি-স্বল্পতা বা অ’তি-আধিক্যে রোজা ভেঙ্গে ফেলার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে ● বারবার র’ক্তের সুগারের অ’তি-স্বল্পতা বা অ’তি-আধিক্য হলে অথবা রোজা অবস্থায় অন্যান্য রোগ বেড়ে গেলে পরবর্তী রোজা আর না রাখার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।◙ ডায়াবেটিসের রোগী, যাদের রোজা রাখা কম বা মধ্যম ঝুঁ’কিপূর্ণঃ যাদের ডায়বেটিস টাইপ-২ ধরণের এবং শুধু জীবনযাত্রার পরিবর্তন বা নীচে উল্লেখিত ওষুধ সেবনের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণে আছে- ● মেটফরমিন ● একারবোজ বা ভগ্লিবোজ ● পায়োগ্লিটাজোন● গ্লিমেপিরাইড বা গ্লিক্লাজাইড ● গ্লিপ্টিন বা লিরাগ্লুটাইড ● এমপাগ্লিফ্লোজিন, ডাপাগ্লিফ্লোজিন, কানাগ্লিফোজিন ● ইনসুলিন ডিগ্লুডেগ, গ্লারজিন, ডিটিমির।এই গ্রুপের রোগী রোজা রাখতে চাইলে নীচের পরাম’র্শ ও শর্ত মানতে হবেঃ ● ডায়াবেটিসে রোজা রাখা স’ম্পর্কে কাঠামোবদ্ধ প্রশিক্ষণ লাভ করতে হবে ● গ্লুকোমিটারে নিয়মিত র’ক্তের সুগার পরিমাপ করতে হবে ● রোজা শুরুর আগে এবং রোজার সময় র’ক্তের সুগারের পরিমাপ অনুযায়ী নির্দেশনামত ওষুধ সমন্বয় করতে হবে।◙ ঝুঁ’কি নির্ধারণের জন্য ওয়ার্ক-আপঃ রোগ ও চিকিৎসা স’ম্পর্কিত ইতিহাস এবং প্রয়োজনীয় পরীক্ষা ● রোগীর ডায়াবেটিসের ধরণ (টাইপ ১, ২ বা অন্য কোন ধরণ) ● মহিলা রোগী হলে গর্ভবতী কি না ● খাদ্যাভাস, কাজের ধরণ ● কী’ ধরণের চিকিৎসা পাচ্ছেনঃ খাদ্য নিয়ন্ত্রণ ও শরীরচর্চা, মুখে খাবার ঔষধ (কোন গ্রুপের), ইনসুলিন (কোন ইনসুলিন, কতবার)● ব্লাড সুগারের রেকর্ডঃ রোগী বাড়িতে নিজে সুগার নিয়মিত মেপে থাকলে সেই রেকর্ড, ল্যাবের পরীক্ষার রিপোর্ট, হাইপোগ্লাইসেমিয়া বা অ’তিরিক্ত হাইপারগ্লাইসেমিয়ার ইতিহাস, হাসপাতা’লে ভর্তি এবং চিকিতসার ইতিহাস, কিটোএসিডোসিসের ইতিহাস ● ডায়াবেটিস জনিত জটিলতাঃ কিডনী, হার্ট, ব্রেনস্ট্রোক, অন্যান্য ● অন্যান্য রোগঃ মস্তিষ্ক, লিভা’র, ফুসফুস, ও খাদ্যনালির রোগ, পেপটিক আলসার, মানসিক রোগ ● অন্যান্য রোগের জন্য প্রতিদিন সেব্য ওষুধ● আগের রমজানের সময় বা অন্য কোন সময় রোজা রেখে থাকলে সেই সময়কালের অ’ভিজ্ঞতা ● যে সকল পরীক্ষা করা যেতে পারেঃ Blood Glucose, HbA1c, Serum Creatinine, SGPT, Urine R/E, এবং প্রয়োজনে অন্যান্য পরীক্ষাদি।লেখকঃ ডাঃ শি’ব্বির আহম’দ, ডায়বেটিক বিশেষজ্ঞ

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!