কানাইঘাট

কানাইঘাটে তিন পরগনার বিরোধ নিষ্পত্তি : সালিশদের মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি শান্ত

কানাইঘাট প্রতিনিধি : সিলেটের কানাইঘাট বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে কথাকা’টাটি পর হাতাহাতির ঘটনাকে কেন্দ্র করে উপজে’লার বড়চতুল এবং লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়নের লোকজন যৌথ ভাবে তাদের আদি প্রথা হিসাবে চতুল পরগনা ও ফা’লজুর পরগনার ডাক দিয়ে সোমবার (৯ নভেম্বর) কানাইঘাট পৌরসভা’র দূর্লভপুর গ্রামের লোকজনের বি’রুদ্ধে প্রতিবাদী হয়ে মোকাবেলার জন্য সং’ঘর্ষের ডাক দেয়।

এরপূর্বে রবিবার সকাল থেকে উক্ত দুটি পরগনার বিভিন্ন ম’সজিদে মাইকিং করে দেশীয় অ’স্ত্রশস্ত্র লা’টি-সোটা জোগাড় করে সং’ঘর্ষের ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করে। এতে উপজে’লা সদর, কানাইঘাট পৌরসভা সহ বিভিন্ন জায়গায় উত্তে’জনা ছড়িয়ে পড়ে। উত্তে’জনা নিয়ন্ত্রণ করতে কানাইঘাট থা’না পু’লিশ বড়চতুল ও ফা’লজুর পরগনার কয়েকজনকে রবিবার রাতেই আ’ট’ক করে। কানাইঘাট পৌরসভা’র দূর্লভপুর গ্রামের পক্ষ নেয় কানাইঘাট সদর ইউনিয়নের বাজেরাজ পরগনার লোকজন। এতে রবিবার রাতেই উত্তে’জনা ছড়িয়ে পড়ে উপজে’লার ৩টি পরগনা জুড়ে।

এদিকে সোমবার সকাল ৯টায় চতুল ও বাজেরাত পরগনার লোকজন দেশীয় অ’স্ত্র-সস্ত্র ও লা’টিসোটা নিয়ে কানাইঘাট পৌরসভা’র হকারাই নামক স্থানে আসলে পু’লিশ তাদের আ’ট’কানোর চেষ্টা করে। এতে সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত পু’লিশ তাদেরকে ফেরানোর চেষ্টা কালে উত্তেজিত লোকজন পু’লিশের উপর চড়াও হলে পু’লিশ টিয়ারগ্যাস ও কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গু’লি করে তাদের সরিয়ে দেয়।

উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার পৌরসভা’র দুলর্ভপুর গ্রামের বাসিন্দা কানাইঘাট বাজারের ব্যবসায়ী আকবরের দোকানে উপজে’লার বড়চতুল ও লক্ষীপ্রসাদ ইউনিয়নের দুই ব্যক্তি মটরসুটি কেনার সময় দাম-দর নিয়ে তাদের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক ও মা’রামা’রি হয়। এ ঘটনা কেন্দ্র করে বড়চতুল ও লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপির লোকজন চতুল ও ফা’লজুর পরগনা প্রথা হিসাবে সংগবদ্ধ হয়ে কানাইঘাট পৌরসভা’র দূর্লভপুর গ্রামের লোকজনের বি’রুদ্ধে ডাক দেয়।

এতে কানাইঘাট থা’না পু’লিশ ও উভয় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে বসে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করেন। কিন্তু বড়চতুল ও লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপির লোকজন না মেনে সোমবার সকালে সং’ঘর্ষের ঘোষণা দিয়ে হকারাই নামক স্থানে চলে আসে। এতে দূর্লভপুর গ্রামের লোকজন তাদের ডাকে সাড়া না দেওয়ায় বড় ধরণের সং’ঘর্ষ থেকে রক্ষা পায় কানাইঘাট বাসী।
কানাইঘাট থা’নার অফিসার ইন্চার্জ শামসুদ্দোহা পিপিএম জানান- বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে এবং সিলেটের পু’লিশ সুপার মো: ফরিদ উদ্দিন ঘটনাস্থলে থেকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। এছাড়া অনাকাংখিত ঘটনা এড়াতে বিপুল সংখ্যক আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্য ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে বৃহত্তর জৈন্তা ১৭ পরগনার সালিশ সমন্বয় কমিটির সভাপতি আবুল মৌলার নেতৃত্বে ১৭ পরগনার মুরব্বীয়ানরা বিকাল ৩টায় কানাইঘাট ডাকবাংলায় বসে উক্ত বিরোধের নিষ্পত্তি করায় বিকালে আ’ট’ককৃতদেরকে কানাইঘাট থা’না থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!