একজন মানবতাবাদী চিকিৎসক দিলীপ ভৌমিক ও কিছু কথা…..

এম হাসানুল হক উজ্জলঃ

এক, ডাক্তার দিলীপ কুমা'র ভৌমিক একজন আপাদমস্তক মানব সেবক। মানবতাবাদী চিকিৎসক বললেও চলে। বিয়ানীবাজার সরকারি হাসপাতা'লের গাইনি বিশেষজ্ঞ হিসেবে চাকুরীতে যোগদান করার পর থেকে উনার সাথে সখ্যতা গড়ে ওঠে। এখানে চাকরি ছাড়াও সিলেটে চাকরি কালীন সময় কাছে থেকে দেখেছি তিনি মানুষের বিপদকালীন বন্ধু হিসাবে কি রকম দায়িত্ব পালন করেছেন। রাত আর দিন সবই সমান ছিল উনার জন্য। নতুন প্রজন্মকে দুনিয়ার আলো দেখাতে তিনি অবিরাম ছুটে চলে ছিলেন এক ক্লিনিক থেকে আরেক ক্লিনিকে আর হাসপাতা'লে।

দাদা স'ম্পর্কে একটি স্মৃ'তিচারণ না করলেই না হয়। আমা'র স্ত্রী' সন্তানসম্ভবা। দাদার অধীনে ফলোআপ চলছিল। প্রসব বেদনা শুরু হলে রাতে দাদাকে ফোন দেই। বললেন বিয়ানীবাজারের একটি ক্লিনিকে ভর্তি করাতে। হরতাল চলছিল তারপরও বললেন বিকেলে তিনি এসে যা করার করবেন।

কিন্তু এখানকার ডাক্তারগন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে সাথে সাথে অ'পারেশনের সিদ্ধান্ত নিলেন এবং অন্য এক গাইনি চিকিৎসক দিয়ে অ'পারেশন করালেন। কন্যা সন্তানের পিতা হলাম। বিকেলে দাদা হাসপাতা'লে ছুটে এসে আমা'র স্ত্রী'র অ'পারেশন হয়েছে খবর পেয়ে হাসপাতা'লের কর্ম'রতদের সাথে রাগারাগি করে আমা'র সাথে কথা না বলেই চলে গেলেন। উনি এতই ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন যে উনাকে বারবার ফোন দেওয়ার পরও আমা'র ফোন রিসিভ করেননি। অনেকদিন পর দাদাকে ম্যানেজ করে বিষয়টি বুঝিয়ে বললাম। তিনি এই ক্লিনিকের উপর রাগান্বিত হয়ে নানা কথা বললেন।

দুই
দ্বিতীয় সন্তানের বাবা হওয়ার আগ পর্যন্ত দাদার পর্যবেক্ষণে ছিলেন স্ত্রী'। সময়ের 10 দিন আগেই সিদ্ধান্ত নিলাম অ'পারেশন করানোর। দাদাকে খুলে বললাম আমা'র সিদ্ধান্তের কথা। তিনি হেসে বললেন ঠিক আছে আমি কারণ বুঝতে পেরেছি কাল ভর্তি করো আমি অ'পারেশন করবো। বিয়ানীবাজার সরকারি হাসপাতা'লের টিএইচও তখন ডাক্তার এম এ সালাম। সালাম ভাই ও আমাকে ছোট ভাইয়ের মত দেখতেন অনেক আদর স্নেহ করতেন। একজন সাংবাদিক হিসেবে উনাদের সাথে কোন স'ম্পর্ক ছিল না। তাই সালাম ভাই খবর পেয়ে হাসপাতা'লেৱ অনেক সিনিয়র চিকিৎসককে সঠিক সময়ে ক্লিনিকে পাঠিয়ে দিলেন। আমা'র পুত্র জেহিনের জন্ম হলো। দেখলাম আমা'র চেয়েও দাদা অনেক বেশি খুশি। স্ত্রী' সন্তানকে নিয়মিত দেখে যেতেন। ক্লিনিক এর অর্থ বিভাগে আগে থেকেই বলে রেখেছিলেন কোন ধরনের বিল যেন আমা'র নামে না হয়। স্ত্রী' সন্তানকে বাড়ি নিয়ে আসবো দাদাও আসলেন বিদায় দিতে। আমি বিল দিতে অর্থ বিভাগে ছুটাছুটি শুরু করলাম। দাদা হেসে বললেন যতই দৌড়াদৌড়ি করো না কেন তারা বিল নিবে না। আমাকে অ'বাক হয়ে তাকানো ছাড়া আর কিছুই করার ছিলনা তখন।

আজ এই মানবতাবাদী’ চিকিৎসক করোণা ভাইৱাসে আ'ক্রান্ত হয়ে শহীদ সামসুদ্দিন হাসপাতা'লে চিকিৎসাধীন। এর খবর শুনে ক'ষ্ট লাগছে। নিশ্চয়ই কারো সেবা দিতে গিয়ে তিনি রোগটিকে সাথে নিয়ে এসেছেন।
মানব সেবক এই চিকিৎসকের জন্য দোয়া করছি খোদা যেন উনাকে সুস্থ করে পুনরায় মানুষের কল্যাণে কাজ করার সুযোগ করে দেন।