প্রবাস

মালয়েশিয়ার রাস্তায় পড়ে থাকা সেই মানিক দেশে ফিরলেন

মালয়েশিয়ায় রাস্তার পাশে পড়ে থাকা নারায়ণগঞ্জ প্রবাসী মানিক (৪৮) দেশে ফিরেছেন। সোমবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে অসুস্থ মানিককে নিয়ে দেশে যান জাতীয় শ্রমিকলীগ মালয়েশিয়ার সভাপতি নাজমুল ইসলাম বাবুল। বিমানবন্দরে স্ত্রী মৌ এর কাছে হস্তান্তর করা হয় মানিককে।

গেলো বছরের ২ ডিসেম্বর অচেতন অবস্থায় নারায়ণগঞ্জ প্রবাসী মানিক’কে কুয়ালালামপুর বাংলাদেশ হাইকমিশনের সামনে ফেলে রেখে চলে যায় তারই সহকর্মীরা। পরে জ্ঞান ফিরলেও নিজের নাম পরিচয় বলতে পারছিলেন না মানিক। ছিলো না কোন পাসপোর্ট কিংবা অন্য কোনো কাগজ। হাইকমিশনের সহযোগিতায় তাকে পার্শ্ববর্তী কুয়ালালামপুর হাসপাতালে ভর্তি করেন কমিউনিটি নেতা ও জাতীয় শ্রমিক লীগের মালয়েশিয়ার সভাপতি নাজমুল ইসলাম বাবুল।

আরটিভি অনলাইনকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে নাজমুল ইসলাম বলেন, রাস্তার পাশে একজন বাংলাদেশী ভাই পড়ে আছে খবর পেয়ে ছুটে যাই। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করি। অনেক প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে তাকে তার পরিবারের কাছে ফেরত পাঠাতে পেরে ভালো লাগছে।

নাজমুল ইসলাম বলেন, হাসপাতালে নেওয়ার পর অসুস্থ মানিকের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে চিকিৎসার ব্যয় মেটাতে অক্ষমতা প্রকাশ করে পরিবার। পার্শ্ববর্তী কুয়ালালামপুর হাসপাতালে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে চলে তার চিকিৎসা। তার বাম পাশ প্যারালাইজড হয়ে গেছে এবং স্মৃতিশক্তিও লোপ পেয়েছে। পুরো সুস্থ হতে সময় আর অর্থ দুটি’রই প্রয়োজন। প্রয়োজন দেখভাল করার মানুষেরও। এ অবস্থায় তাকে দেশে পাঠানোর পরামর্শ দেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। তবে এরই মধ্যে ছয় লক্ষাধিক টাকার হাসপাতালের বিল আসে পরিবারের অক্ষমতায় যা পরিশোধের উদ্যোগ নেয় নাজমুল ইসলাম বাবুল।

এ কাজে আর্থিক সহযোগিতার হাত বাড়ায় মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগে’র সভাপতি মকবুল হোসেন মুকুল, সিনিয়র সহ-সভাপতি দাতু শ্রী কামরুজ্জামান কামাল, দাতু আক্তার, সাধারণ সম্পাদক অহিদুর রহমান অহিদ, লিটন দেওয়ান আজিজ, হাজী ইব্রাহিম।

হাসপাতালের বকেয়া পরিশোধের পর বাসায় রেখে দেখভাল করেন মালয়েশিয়া শ্রমিক লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক গোলাম মোর্শেদ। আর অসুস্থ মানিককে দেশে পাঠানোর বিমান টিকিটের ব্যবস্থা করেছে মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন। তাকে বিদায় জানাতে বিমানবন্দরে হাইকমিশনের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন কল্যাণ সহকারী মোকছেদ আলি।

মানিকের পুরো নাম রাজা আহমেদ মানিক। বাবার নাম মতিউর রহমান, বাড়ি নারায়ণগঞ্জ। গত ছয় বছর ধরে মালয়েশিয়ায় কর্মরত তিনি। তবে কোথায় কি কাজ করতেন তা স্পষ্ট করে বলতে পারেননি স্মৃতিশক্তি কিছুটা লোপ পাওয়া মানিক।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!