প্রবাস

কাতার বিশ্বকাপের পর কপাল খুললো বাংলাদেশের

বিশ্বকাপের সফল সমাপ্তির পর সুসংবাদ পেয়েছে বাংলাদেশ। বাড়ছে ফিফার অনুদান আর সেটা ২৫ শতাংশ। আগে বছর প্রতি ষোলো কোটি ৫০ লাখ টাকার সঙ্গে যোগ হবে আরও চার কোটি টাকার বেশি। বাংলাদেশের মানুষের আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল প্রীতি দু’দেশের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে সহযোগিতা করবে বলবে বলে মনে করেন ফুটবল ফেডারেশন সাধারণ সম্পাদক।

কাতার অধ্যায়ের রঙ্গিন সমাপ্তি। সমর্থকদের দিয়েছে বিনোদনের ষোল আনা, আর ফিফা দু’হাত ভরে তুলে নিয়েছে মুনাফা। কাতার বিশ্বকাপের উদ্বোধনী দিন ফিফা বসেছিল সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে। নারী ফুটবল, রেফারিং আর ট্যালেন্ট ডেভলপমেন্ট নিয়ে আলোচনা হয়েছে। টিডিএসের অধীনে চলতি বছরই ৫০ হাজার ডলার আদায় করেছিল বাফুফে।

প্রতি বিশ্বকাপের পরই সদস্য দেশগুলোর আর্থিক অনুদান নতুন করে মূল্যায়ন করে ফিফা। এবারও ব্যতিক্রম নয়। কাতার বিশ্বকাপে আর্থিকভাবে বড় অংকের লাভ হওয়ায় তা ভাগ করে দেয়া হবে সদস্য দেশগুলোকে। যে তালিকায় থেকে লাভবান হচ্ছে বাফুফেও। ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনোর প্রতিশ্রুতি প্রায় ২৫ শতাংশ বার্ষিক অনুদান বাড়ানোর।

আগে বছর প্রতি বাংলাদেশ পেত সাড়ে ষোলো কোটি টাকা করে। এবার তা বেড়ে দাঁড়াবে সাড়ে বিশ কোটিরও বেশি। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ বলেন, আমরা যতটুকু বুঝতে পারছি হয়তোবা প্রায় ২৫ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। চার বছরে টোটাল যে টাকার অংক থাকে যেটা আমরা বর্তমানে ৪ বছর সময়ে পাচ্ছি ৬ মিলিয়ন ইউএস ডলার।

বিশ্বকাপ আয়োজনে ২২০ বিলিয়ন ডলার খরচ করেছে কাতার। লাভের আশা ছাপিয়ে সবার নজর লসের সংখ্যায়। পূর্ণাঙ্গ হিসাব না পাওয়া গেলও টিকিট বিক্রি করে খরচের দশ ভাগের এক ভাগ তুলে নিয়েছে কাতার। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, টোটাল খরচের ১০ শতাংশ হয়তোবা তারা পেয়েছে।

ব্র্যান্ড ভ্যালুটাকে তারা আসলে বিশ্বকাপ আয়োজনের মাধ্যমে বেশ ভালোভাবে সবার কাছে নিয়ে যেতে পেরেছে। এটাকে অবশ্যই টাকার অংকে কনভার্ট করা ঠিক হবে না। টাকার অংকে এটাকে কনভার্ট করা ইম্পসিবল।

কাতার বিশ্বকাপে না থেকেও ছিল লাল সবুজের বাংলাদেশ। ল্যাটিন দুই পরাশক্তি আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল নতুন করে চিনেছে পাগলাটে সমর্থকদের কল্যাণে। বাড়তি কদর পেয়েছে বাফুফেও। ভবিষ্যতে যা সহযোগিতা করবে ফুটবল উন্নয়নে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!