সিলেট

সিলেটে দুই কিলোমিটার সড়ক বিভাজক বেহাল

নিউজ ডেস্ক- সিলেটের দক্ষিণ সুরমা’র কদমতলী থেকে হু’মায়ুন রশীদ চত্বর এবং কিনব্রিজ থেকে মুক্তিযোদ্ধা চত্বর পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার সড়ক বিভাজক বেহাল।

২০১৬ সালে সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্পে বৃক্ষ লেন (সড়ক বিভাজক) তৈরি করেছিল সিলেট সিটি করপোরেশন।পর্যায়ক্রমে সিলেট নগরের তিনটি স্থানে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার সড়কে সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্প নেওয়া হয়।এতে খরচ হয় প্রায় কোটি টাকা।

সিটি করপোরেশনের সড়ক বিভাজকের এমন উদ্যোগ প্রথম দিকে প্রশংসা কুড়ালেও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে বর্তমানে তা যেন ম’রণফাঁদে পরিণত হয়েছে।বিশেষ করে সিলেট নগরের দক্ষিণ সুরমা কদমতলী এলাকার বৃক্ষ লেনটি যানবাহনের ধাক্কায় ভেঙে ভেতর থেকে লোহা বের হয়ে গেছে। এতে দুর্ঘ’টনার ঝুঁ’কি দেখা দিয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, দক্ষিণ সুরমা’র কদমতলী থেকে হু’মায়ুন রশীদ চত্বর এবং কিনব্রিজ থেকে মুক্তিযোদ্ধা চত্বর পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার সড়কে বৃক্ষ লেন তৈরি করা হয়েছে। এর বেশির ভাগ অংশ ভাঙা। বৃক্ষ লেনগুলো সৌন্দর্যবর্ধনের জন্য লোহার অ্যাঙ্গেলের ওপর সিমেন্ট–বালি দিয়ে গাছের আদলে বিভাজক তৈরি করা। সড়ক বিভাজকের অভ্যন্তরে রোপণ করা হয়েছে গাছ। সড়ক বিভাজকের বৃক্ষ লেনের বিভিন্ন স্থানে লোহার ওপর সিমেন্ট ও বালির প্রলেপ খসে পড়ে লোহা বের হয়ে গেছে। আবার কোনো স্থানে একটি অংশ ভেঙে শুধু লোহার খুঁটি অবশিষ্ট আছে। কোনো অংশ বিভাজকের অভ্যন্তরে গাছের সঙ্গে হেলান দিয়ে রাখা হয়েছে। লোহার খুঁটি কিংবা বিভাজকের অংশ যাতে পড়ে না যায়, সে জন্য গাছের সঙ্গেও বেঁধে রাখতে দেখা গেছে। দুই পাশের লেনই ভাঙাচো’রা অবস্থা। সড়কটির দুই পাশেই বাস থেকে শুরু করে মোটরসাইকেল, রিকশা, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, প্রাইভেট কার চলাচল করছে।

নগরীর সুবিদবাজার এলাকার বাসিন্দা ইম’রান আহম’দ বলেন, সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কে প্রতিনিয়ত ট্রাক চলাচল করে। ট্রাকগুলো অনেক সময় সড়ক বিভাজকে ধাক্কা দিয়ে সৌন্দর্যবর্ধনের অংশগুলো ভেঙে ফেলে। এতে লোহার কাঠামোগুলো দৃশ্যমান হয়। বিভাজকে ধাক্কা লেগে হতাহতের আশ’ঙ্কা দেখা দিয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধা চত্বর এলাকায় দাঁড়িয়ে ছিলেন রিকশার আরোহী রাজেশ রায়। তিনি বলেন, কোনোভাবে সড়ক বিভাজকের পাশে দুর্ঘ’টনা ঘটলে মা’রাত্মক হতাহতের ঘটনা ঘটতে পারে। সড়ক বিভাজকে যেভাবে লোহার কাঠামো বেরিয়ে রয়েছে, সেটি আসলেই ঝুঁ’কিপূর্ণ। বাসের চালক শিপন মিয়া বলেন, অনেক সময় বিভাজকের সঙ্গে ধাক্কা লেগে যায়। এতে বাসের এবং সড়কের ক্ষতি হয়।

সিলেট সিটি করপোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আলী আকবর বলেন, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের নির্মাণকাজ প্রায় শেষ। টার্মিনাল উদ্বোধন হয়ে গেলে সড়কে থাকা যানবাহনগুলো নির্দিষ্ট স্থান পাবে। অনেক সময় সড়কে যানবাহন থাকায় সৌন্দর্যবর্ধনের লেনে ধাক্কা দিয়ে ক্ষয়ক্ষতি করছে। বিষয়টি সিটি করপোরেশন নজর রেখেছে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!