সুনামগঞ্জ

ম’সজিদ-মন্দির নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট’কে ঘিরে ফের উত্তে’জনা সুনামগঞ্জে, গ্রে’প্তার ১

নিউজ ডেস্ক- সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্ট ঘিরে সুনামগঞ্জের শাল্লায় ‘সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা’র ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে পু’লিশের মা’মলায় কারাবরণকারী সেই ঝুমন দাসকে ফের গ্রে’প্তার করা হয়েছে।

ঝুমন দাসের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে ‘ম’সজিদ-মন্দির নিয়ে একটি পোস্ট’কে ঘিরে ফের উত্তে’জনা বইছে সুনামগঞ্জে।

ওই পোস্টের পর মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) বেলা ১১টার দিকে জে’লার শাল্লা উপজে’লার নোয়াগাঁও গ্রামের বাড়ি থেকে ঝুমনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থা’নায় নিয়ে যায় পু’লিশ।

মঙ্গলবার রাতে সুনামগঞ্জ জে’লা পু’লিশের অ’তিরিক্ত পু’লিশ সুপার মো. সুমন মিয়া যুগান্তরকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জে’লা পু’লিশের অ’তিরিক্ত পু’লিশ সুপার জানান , গেল ২৮ আগস্ট বেলা ৩টার দিকে শাল্লার হবিবপুর ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামের গোপেন্দ্র দাসের ছে’লে ঝুমন দাস প্রকাশ আপন (২৬) তার ‘ঝুমন দাস আপন’ ফেইসবুক আইডি থেকে একটি ‘উস্কানিমূলক’ পোস্ট করেন। ওই পোস্টের পর এলাকায় মানুষজনের মধ্যে ক্ষোভ ও উত্তে’জনার সৃষ্টি হয়।

অ’তিরিক্ত পু’লিশ সুপার বলেন, এর প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার দুপুরে ঝুমন দাসকে থা’নায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি পোস্টটি তার করা বলে স্বীকার করেন। এরপরই তার বি’রুদ্ধে শাল্লা থা’নায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মা’মলা দায়ের করে ঝুমনকে গ্রে’প্তার দেখানো হয়। এবং ।

একই তথ্য নিশ্চিত করে ঝুমনকে থা’না নিয়ে আসার কারণ জানান শাল্লা থা’নার ওসি মো. আমিনুল ইস’লাম। ওসি বলেন, ডিজিটাল নিরাপক্তা আইনে দায়েরী মা’মলায় তাকে গ্রে’প্তার করা হয়েছে।

সুনামগঞ্জ পু’লিশ সুপার মো. এহসান শাহ বলেন, কয়েক দিন আগে ঝুমন ফেসবুকে মন্দির ও ম’সজিদ নিয়ে আরেকটি পোস্ট দেন। ঝুমনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থা’নায় নিয়ে আসার সে ওই পোস্ট দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করলে তাকে ডিজিটাল নিরাপক্তা আইনে দায়েরকৃত মা’মলায় গ্রে’প্তার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে শাল্লার নোয়াগাঁওয়ে অ’তিরিক্ত পু’লিশ মোতায়েন করা হয়েছে। দিরাই ও শাল্লা থা’না পু’লিশ গ্রামে টহল দিচ্ছে। তবে, ঝুমনের ফেসবুকের সেই বিতর্কিত পোস্টের বিষয়ে কিছু জানেন না তার স্ত্রী’ সুইটি রানী দাস।

সুইটি বলেন, ‘পু’লিশ বলেছে মন্দির ও ম’সজিদ নিয়ে ফেসবুকে কী’ একটা পোস্ট দেওয়া হয়েছে। পোস্ট আমা’র নজরে পড়েনি।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালের ১৫ মা’র্চ সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে হেফাজতের ‘শানে রিসালাত’ সমাবেশে তৎকালীন আমীর জুনায়েদ বাবুনগরী ও যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক বক্তব্য দেন। পরদিন ১৬ মা’র্চ মামুনুল হকের সমালোচনা করে ফেসবুকে ‘উস্কানিমূলক’ স্ট্যাটাস দেন শাল্লার নোয়াগাঁওয়ের যুবক ঝুমন দাস।

এ ঘটনা ইস্যু তৈরী করে স্থানীয় এক ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে উত্তেজিত হয়ে হেফাজত ইস’লামের স্থানীয় সম’র্থকরা ১৭ মা’র্চ হিন্দু অধ্যুষিত নোয়াগাঁওয়ে শতাধিক হিন্দু বাড়ি-ঘরে হা’মলা ও ভাংচুর চালায়। উস্কানিমূলক স্ট্যাটাসের দায়ে ঝুমনের বি’রুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মা’মলার পাশাপাশি নোয়াগাঁওয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি-ঘরে হা’মলার ঘটনায় পৃথক তিনটি মা’মলা হয়।

ঝুমন দাসসহ বেশ কয়েকজনকে গ্রে’প্তার করা হয়। তাছাড়া পু’লিশ ও এলাকাবাসী বাদী হয়ে হেফাজত অনুসারী দেড় হাজার লোকের বি’রুদ্ধে মা’মলা করে।প্রায় ছয় মাস পর গত বছরের ২৭ সেপ্টেম্বর হাই’কোর্ট থেকে জামিনে মুক্তি পান ঝুমন।

সে সময় পু’লিশ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মা’মলা দিয়ে ঝুমনকে কারাগারে পাঠায়। পরে জামিনে মুক্ত হন ঝুমন।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!