সিলেট

বিদায়ের সময় সিলেটের যে স্মৃ’তি রেখে গেলেন এসপি ফরিদ

টাইমস ডেস্কঃ একাত্তরে সিলেটে পাক বাহিনীর বি’রুদ্ধে সবার আগে প্রতিরোধ গড়েছিলেন ইপিআর ও পু’লিশ সদস্যরা। সিলেট’কে দখলে রাখতে আপ্রা’ণ চেষ্টা করেন বাঙালি এসব অফিসাররা। তবে প্রথম দিকে পেরে উঠতে পারেননি। অকাতরে জীবন দিয়েছেন অনেকেই। এরমধ্যে যু’দ্ধের প্রথম দিকে সিলেট জে’লা পু’লিশ লাইনে পাক বাহিনীর হাতে নি’হত হন অনেক পু’লিশ সদস্য। এদের মধ্যে ৮ জনকে চিহ্নিত করা গেলেও অনেকেরই নাম অজানা। সিলেট জে’লা পু’লিশ লাইনের ভেতরে এতদিন একটি গণকবর ছিল। সেটি জানতেন সবাই। কিন্তু সেই গণকবরকে সংরক্ষণ করে স্মৃ’তি একাত্তর নির্মাণ করলেন সিলেটের বিদায়ী পু’লিশ সুপার মোহাম্ম’দ ফরিদ উদ্দিন।

গতকাল সেই স্মৃ’তি একাত্তর আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়।

এতে উপস্থিত ছিলেন সিলেটের সুধীজনরা। এতে উপস্থিত হয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন মুক্তিযোদ্ধারাও।

সিলেট মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার ভবতোষ রায় বর্মণ সেদিনের ঘটনার খবর পেয়ে ছুটে গিয়েছিলেন পু’লিশ লাইনে। আর গতকাল স্মৃ’তি একাত্তর উদ্বোধনেও তিনি উপস্থিত হন। এ সময় তিনি বলেনÑ ‘পু’লিশ লাইনের ভেতরে পু’লিশি পোশাক পরা অনেক লা’শ ছিল। এই লা’শগুলোর শরীর ছিল ক্ষতবিক্ষত। গু’লি করে ঝাঁঝরা করে দেয়া হয়েছিল তাদের দেহ। এ ছাড়া, অনেক সিভিল মানুষও ছিল। পরবর্তীতে তাদের পু’লিশ লাইনের ভেতরে গণকবর দেয়া হয়।’ তিনি বলেনÑ ‘স্মৃ’তি একাত্তর নির্মাণ একটি যুগান্তকারী উদ্যোগ। এতে করে সিলেটের মানুষের কাছে আজীবন এটি গণকবর হিসেবে চিহ্নিত থাকবে।’

সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মফিজউদ্দিন আহম’দও অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। তিনি বলেনÑ ‘আমাদের একাত্তরের স্মৃ’তিচিহ্নগুলো এভাবে জাগ্রত রাখতে হবে। তবেই আম’রা অনুপ্রেরণা পাবো। স্মৃ’তি-৭১ আজীবন এখানে ইতিহাস হয়ে থাকবে। পরবর্তী প্রজন্ম এটিকে স্ম’রণ রাখবে। পু’লিশ সদস্য হয়ে যারা এখানে আসবেন তারাও এটিকে স্ম’রণ রাখবেন বলে জানান তিনি।’

এই গণকবরের নির্মাণের উদ্যোক্তা সিলেটের বিদায়ী পু’লিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন জানিয়েছেন, ‘এই গণকবরে একাত্তরে নি’হত পু’লিশ সদস্যদের দাফন করা হয়। তার বাইরে পার্শ্ববর্তী মুন্সিপাড়া এলাকার অনেক লোককে পাক বাহিনী হ’ত্যা করে। তাদেরকেও এখানে দাফন করা হয়। সুতরাং পু’লিশ লাইনের ভেতরের এই স্থানটি সংরক্ষণ করা জরুরি। আম’রা এখানে অনেক ইতিহাস জানি না। আবার ইতিহাস কারও কাছে সংরক্ষিত নেই। যেটুকু আছে সেটুকুকেই বাঁচিয়ে রাখতে এমন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। মুক্তিযু’দ্ধের ইতিহাসকে উজ্জীবিত করে রাখতে এখানে স্মৃ’তি-৭১ নির্মাণ করা হয়েছে। বিদায়বেলা তিনি কেবল স্মৃ’তি-৭১ই নয়, আরও দুটি কাজ করে গেছেন। এগুলো হচ্ছেÑ প্রকৃতি কন্যা জাফলংয়ে পু’লিশের তত্ত্বাবধানে ‘পিয়াইন কটেজ’ ও পর্যটন স্পট সাদাপাথরের পাশে ‘হোয়াইট স্টোন রেস্টহাউস’ নামে দুটি বাংলো নির্মাণ করে গেছেন। গত জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহে তিনি নিজেই এ দুটি প্রকল্প উদ্বোধন করেন।

সিলেট জে’লা পু’লিশের অ’তিরিক্ত পু’লিশ সুপার (মিডিয়া) লুৎফুর রহমান জানিয়েছেন, ‘পু’লিশ কিংবা পু’লিশ পরিবারের কেউ সিলেটে বেড়াতে এলে পর্যটন এলাকাগুলোতে থাকার জায়গা পান না। এ জন্য পু’লিশ সুপারের নির্দেশে দুই স্থানে কটেজ নির্মাণ করা হয়েছে। এখানে শুধু পু’লিশ কিংবা তাদের পরিবারের সদস্যরা নয়, যে কেউ নির্ধারিত ভাড়া পরিশোধ করে বসবাস করতে পারবেন।’ পু’লিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন সম্প্রতি অ’তিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতি পেয়েছেন। তাকে সিএমপিতে অ’তিরিক্ত কমিশনার হিসেবে বদলি করা হয়েছে। তিনি খুব শিগগিরই সিলেট থেকে চলে যাচ্ছেন।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!