সিলেট

সিলেটে মুচলেকা দিয়ে অ’ভিযু’ক্ত ভাতিজাকে নিয়ে যান আ.লীগ নেতা

নিউজ ডেস্ক- সিলেটের এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের দুই ছাত্রের ওপর হা’মলার ঘটনায় ও হাসপাতা’লের শিক্ষানবিশ এক চিকিৎসককে শ্লীলতাহানির চেষ্টার অ’ভিযোগ পৃথক দুটি মা’মলা হয়েছে। দুই মা’মলাতেই আবদুল্লাহ নামের এক তরুণকে আ’সামি করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে এ দুটি মা’মলা করা হয়।

দুই মা’মলার এজাহারে অ’ভিযু’ক্ত ওই তরুণের পুরো নাম কিংবা ঠিকানা উল্লেখ করা না হলেও একটি মা’মলায় উল্লেখ করা হয়েছে তিনি সিলেট সিটি করপোরেশনের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুল খালিকের ‘ভাতিজা’। আবদুল খালিক সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। অন্য মা’মলার এজাহারে আবদুল্লাহর বাবার নাম ও ঠিকানা অ’জ্ঞাত উল্লেখ করা হয়েছে। এর আগে গত শনিবার হাসপাতা’লের কর্মচারি ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডায় জড়ান আবদুল্লাহ। ওই সময় হাসপাতা’লের কর্মচারি ও শিক্ষার্থীরা আবদুল্লাহকে পু’লিশে সোপর্দ করলে আবদুল খালিক মুচলেকা দিয়ে আবদুল্লাহকে নিয়ে যান।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে ওসমানী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল প্রশাসনের করা দুটি মা’মলায় আবদুল্লাহসহ সাতজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। বাকি ছয় আ’সামি হলেন দিব্য, এহসান, মামুন, সাজন, সুজন ও সামি।

আবদুল খালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমা’র ভাতিজা আবদুল্লাহ পবিত্র কোরআনে হাফেজ। শনিবার রাতে তাঁর বন্ধুর এক স্বজন হাসপাতা’লে আসন (শয্যা) না পাওয়ার খবর পেয়ে সে হাসপাতা’লে গিয়েছিল। হাসপাতা’লে যাওয়ার পর শোনে, আসন দেওয়ার কথা বলে কে বা কারা টাকা নিয়েছে। টাকার ব্যাপারে জানতে চাইলে কয়েকজন স্টাফ ক্ষিপ্ত হয়। এ সময় এক ইন্টার্ন চিকিৎসকও তাদের সঙ্গে যু’ক্ত হয়ে কথা-কা’টাকাটিতে জড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে আবদুল্লাহকে তারা মা’রধর করে পু’লিশের হাতে দেয়।’ পরে তিনি হাসপাতা’লে গিয়ে ভাতিজাকে উ’দ্ধার করেন বলে জানান।

আবদুল খালিক আরও বলেন, ‘আমি খবর পেয়ে হাসপাতা’লে গিয়ে ভাতিজাকে আমা’র জিম্মায় নিয়ে আসি। সে সময় এলাকার অনেকেই বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিল। তবে আমি তাদের সান্ত্বনা দিয়েছিলাম। আমি মুক্তিযোদ্ধা মানুষ। তবু ভাতিজাকে নিয়ে আসার জন্য আমাকে মুচলেকা দিতে বলা হয়েছে। বিষয়টি আমি মেনে নিয়েছিলাম। পরে গত সোমবার রাতে আবদুল্লাহ বাইরে গেলে আগের ঘটনার জেরে মেডিকেলের শিক্ষার্থীরা তাকে দেখে গালিগালাজ করে। এ সময় সে-ও (আবদুল্লাহ) গালাগাল দিলে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে হাতাহাতি হয়।’

সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাঈম আহম’দ বলেন, ‘সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল খালিকের ভাতিজা আবদুল্লাহ ছাত্রলীগের সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে শুনেছি। তবে আবদুল্লাহ আমা’র সঙ্গে সরাসরি রাজনীতি করেন না। তিনি ছাত্রলীগের কোনো পদে নেই।’

এদিকে দুটি ঘটনার সঙ্গে জ’ড়িত সবাইকে গ্রে’প্তার ও মেডিকেল কলেজে নিরাপত্তার দাবিতে কর্মবিরতি পালন করছেন শিক্ষানবিশ চিকিৎসকেরা। মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরাও ক্লাস পরীক্ষা বর্জনের ডাক দিয়ে বি’ক্ষোভ করছেন।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!