সিলেট

মানবতার উৎকৃষ্ট উদাহ’রণ হয়ে থাকবে ভোলাগঞ্জ গ্রাম

আব্দুল জলিল, কোম্পানীগঞ্জ : টানা বৃষ্টি আর পাহাড়ি ঢলে স্ম’রণকালের ভ’য়াবহ ব’ন্যা দেখা দেয় সিলেট জে’লায়। ব’ন্যা কবলিত হয়ে পড়ে পুরো কোম্পানীগঞ্জ উপজলাও। ইতিহাসসৃষ্ট এই ব’ন্যায় মানুষ হারিয়েছে তাদের ঘরবাড়ি ও গবাদিপশু। সেই সাথে এই ব’ন্যায় প্রা’ণ কেড়ে নিয়েছে কত মানুষের সেই সঠিক হিসাব হয়তো পাওয়া যাবে না। এমন পরিস্থিতিতে চারিদিকে থৈ থৈ করা পানির মাঝখানে দাঁড়িয়ে থাকা একটুকরো দ্বীপ হিসেবে পানির উপরে ছিল ভোলাগঞ্জ গ্রাম। চারিদিকে যখন মানুষের বাঁ’চার জন্য আকুতি ঠিক তখনই ভোলাগঞ্জ গ্রামবাসী তাদের মানবতার হাত বাড়িয়ে দেয়। আশ্রয় দেন প্রায় ৩০ হাজার মানুষের। তাদের খাবার, কাপড়, চিকিৎসা, জেনারেটরের মধ্যেমে বিদ্যুৎ সরবরাহসহ সব ধরনের সেবা দিয়েছেন। এ ছাড়াও মৃ’ত ব্যক্তিদের কবরস্থানে দাফনেরও ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়।

১৬ জুন রাতে এক ভিডিও বার্তায় ভোলাগঞ্জ আরাবিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার সভাপতি শাহাব উদ্দিন গ্রামবাসীর পক্ষে ঘোষণা দেন ব’ন্যা কবলিত মানুষদের আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে ভোলাগঞ্জ গ্রামবাসী তাদের পাশে আছে। যে কেউ চাইলে আশ্রয় নিতে পারেন। এর পর থেকে মানুষ আশ্রয় নিতে থাকে ভোলাগঞ্জ গ্রামে। এরই মধ্যে বিভিন্ন জায়গা থেকে ফোন আসতে থাকে মানুষজন আ’ট’কে আছে, নৌকার জন্য আসতে পারতেছে না। ঠিক এই সময়ে ভোলাগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি আবুল বাশারের নির্দেশে ভোলাগঞ্জ ইস’লামী সমাজকল্যাণ সংস্থার সদস্য এখলাছুর রহমান, নাসির উদ্দিন, জসিম উদ্দিন, বুরহান উদ্দিন, ওবায়েদ, জাকির, শাহিন আহম’দ, নুর উদ্দিন, মজফর, নাজিম, আশিক, মাসুমসহ প্রায় ২০ জন সদস্য ৫ টি ইঞ্জিন চালিত নৌকা দিয়ে উপজে’লার বিভিন্ন জায়গা আ’ট’কে পড়া মানুষদের উ’দ্ধার করে ভোলাগঞ্জ গ্রামে নিয়ে আসেন। ১৬ তারিখের পর থেকে প্রায় ৩০ হাজার ব’ন্যা কবলিত মানুষকে আশ্রয় দেন ভোলাগঞ্জ গ্রামবাসী। ব’ন্যার্তদের জন্য ভোলাগঞ্জ গ্রামে ৪টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়। তার মধ্যে ভোলাগঞ্জ আরাবিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসায় ১ হাজার, ভোলাগঞ্জ কিন্ডারগার্ডেনে ৭’শ, ভোলাগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫’শ ও ভোলাগঞ্জ উচ্চ বিদ্যায়ে ৫’শ মানুষের থাকার ব্যবস্থা করা হয়।

এদের খাবার থেকে শুরু করে কাপড়, চিকিৎসা’সহ সব কিছু করা হয় গ্রামবাসীর পক্ষ থেকে। টানা ৬ দিন ভোলাগঞ্জ আরাবিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসায় বাবুর্চি দিয়ে রান্না করে আশ্রয় কেন্দ্রগুলোর জন্য সকালের নাস্তা ও ২ বেলা ভাতের ব্যবস্থা করা হয়। প্রতিবেলা প্রায় ৩ হাজার মানুষের খাবার রান্না করা হতো। ব’ন্যার্ত মানুষের খাবারের জন্য মাদ্রাসার সভাপতি ছাড়াও অর্থ জোগান দেন ভোলাগঞ্জ চুনাপাথর আম’দানি কারক গ্রæপের কোষাধ্যক্ষ আব্দুস সালাম বাবুল, ভোলাগঞ্জ জামে ম’সজিদের সাধারণ সম্পাদক বশির আহম’দ, ভোলাগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ফরহাদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ফয়জুল হক, ব্যবসায়ী আক্তারুজ্জামান নোমান, কাওসার আহম’দ, সাজ্জাদ হোসেন দুদু, ইসমাইল হানিয়া।

এ ছাড়াও আশ্রয় কেন্দ্রে আসা মানুষদের সার্বক্ষণিক চিকিৎসা প্রদানের ব্যবস্থা করেন ব্যবসায়ী শাহ আলম ভ‚ইয়া। তিনি ভোলাগঞ্জ বাজারে চিকিৎসক সেতু ফার্মেসির স্বত্বাধিকারী মোঃ রাজু ও ভোলাগঞ্জ ফার্মেসির স্বত্বাধিকারী মোঃ রনি (ডিএমএস, আরএমপি) এর মাধ্যমে ২৪ ঘন্টা চিকিৎসা সেবা চালিয়ে যান। আশ্রয় কেন্দ্রে আসা মানুষদের পানি ও বিদ্যুতের চাহিদা অনুযায়ী প্রতিদিন সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত জেনারেটরের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হতো। এসব মানুষের খাবার থেকে শুরু করে চিকিৎসা সহ সকল বিষয়ে সার্বক্ষণিক তদারকিতে ছিলেন ভোলাগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি আবুল বাশার ও ভোলাগঞ্জ ইস’লামি সমাজ কল্যাণ সংস্থাার সাধারণ সম্পাদক এখলাছুর রহমানের নেতৃত্বে ভোলাগঞ্জ ইস’লামি সমাজ কল্যাণ সংস্থাার একটি টিম এবং হাফিজ মা’ওলানা কা’ম’রুল হাসান জুলহাসের নেতৃত্বে মাদ্রাসার শিক্ষক ও ছাত্রদের সমন্বয়ে আরো একটি টিম।

ভোলাগঞ্জ আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে মানুষের আশ্রয় ছাড়াও গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়াসহ গৃহপালিত পশুদেরও আশ্রয় দেওয়া হয়। আশ্রয় কেন্দ্র ছাড়া গ্রামের প্রতিটি বাড়ি ও ঘরে ব’ন্যা কবলিত মানুষদের আশ্রয় দেন ভোলাগঞ্জের বাসিন্দারা। পুরো উপজে’লার মধ্যে ভোলাগঞ্জ যেন এক আশ্রয়ের গ্রাম হিসেবে পরিণত হয়েছিল। প্রায় ৩০ হাজার আশ্রিত মানুষ ভোলাগঞ্জ গ্রামে থাকলেও ৬ দিনে কোন সরকারি ত্রাণ তাদের কাছে আসেনি। ভোলাগঞ্জে আশ্রয় কেন্দ্র ছাড়াও ব’ন্যার সময় মা’রা যাওয়া অন্য এলাকার ২ জন ব্যাক্তিকে তাদের কবরস্থানে দাফন করা হয়।

ভোলাগঞ্জ যুব সমাজ ও ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত ব’ন্যা কবলিত কোম্পানীগঞ্জের নি¤œাঞ্চলের মানুষের দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে চাল, ডাল, তেল ও রান্না করা খাবারসহ প্রয়োজনীয় বিভিন্ন ত্রাণ সহায়তা অব্যাহত রয়েছে।

ভোলাগঞ্জ আরাবিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার সভাপতি ও ভোলাগঞ্জ চুনাপাথর আম’দানিকারক গ্রæপের সভাপতি শাহাব উদ্দিন জানান, ১৬ জুন মানুষের আর্তনাদ দেখে আম’রা ভোলাগঞ্জ গ্রামবাসী চুপ থাকতে পারিনি। তাই গ্রামের সবাই স্বতঃস্ফ‚র্তভাবে ব’ন্যা কবলিত মানুষদের আশ্রয় ও তাদের খাবারের ব্যবস্থাসহ সব ধরনের ব্যবস্থা করে দেই। ভোলাগঞ্জে এমন কোন ঘর নাই যে ঘরে মানুষ আশ্রয় নেয় নি। আমা’র গ্রামের যারাই এই কাজে এগিয়ে এসেছেন সকলের প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!