খেলাধুলা

ম্যাচ ফিক্সিং, যৌ’ন হেনস্থায় জড়ানো পা’কিস্তানের সেই আম্পায়ার এখন জুতা বিক্রেতা

নিউজ ডেস্ক- এক সময় চুটিয়ে আম্পায়ারিং করেছেন। তিন ধরনের ক্রিকেট মিলিয়ে ১৭০টি ম্যাচে আম্পায়ার হিসাবে দাঁড়ানোর অ’ভিজ্ঞতা রয়েছে তার। এক মডেলকে যৌ’ন হেনস্থা এবং জুয়াড়িদের থেকে টাকা নেয়ার অ’ভিযোগে কালিমালিপ্ত হয় তার জীবন। পা’কিস্তানের সেই আম্পায়ার আসাদ রউফ এখন লাহোরের বাজারে পুরনো জুতো বিক্রি করছেন।

পা’কিস্তানের সংবাদমাধ্যমে রউফের এই খবর প্রকাশিত হয়েছে। ক্রিকে’টের সঙ্গে এখন তার কোনও স’ম্পর্ক নেই। খবরও রাখেন না। এখন তার মা’থায় শুধু ব্যবসা। বলেছেন, জীবনে অনেক ম্যাচে আম্পায়ারিং করেছি। আর নতুন করে কিছু দেখার নেই। ২০১৩-র পর থেকে খেলার সঙ্গে আর কোনও যোগাযোগ নেই। পুরোপুরি ক্রিকেট থেকে দূরে রয়েছি।

২০১২ সালে রউফের বি’রুদ্ধে যৌ’ন হেনস্থার অ’ভিযোগ এনেছিলেন এক মডেল। দাবি করেছিলেন, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে দিনের পর দিন তার সঙ্গে সহ’বাস করেছিলেন রউফ। পরে পিছিয়ে এসেছিলেন। সেই সময় রউফ অ’ভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন। এখনো তিনি ওই ঘটনা স্বীকার করতে চান না। বলেছেন, মে’য়েটি অ’ভিযোগ করার পরের ম’রসুমেও আইপিএলে আমি আম্পায়ারিং করেছিলাম। তবে এটা মানছেন, ওই ঘটনা কিছুটা হলেও তার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করেছিল।

রউফের জীবনে সবচেয়ে বড় ধাক্কা এসেছিল ২০১৬ সালে। তাকে পাঁচ বছর নির্বাসিত করেছিল বিসিসিআই। ২০১৩ সালে আইপিএলে ম্যাচ গড়াপে’টার সঙ্গে নাম জড়িয়ে গিয়েছিল রউফের। অ’ভিযোগ ছিল, জুয়াড়িদের থেকে দামি দামি উপহার এবং টাকা নিয়ে একটি নির্দিষ্ট দলের পক্ষে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি।

২০১৩-র পর থেকেই ক্রিকে’টের মূলস্রোত থেকে দূরে সরতে থাকেন রউফ। তাকে আন্তর্জাতিক ক্রিকে’টেও আর ম্যাচ পরিচালনা করতে দেখা যায়নি। সেই প্রসঙ্গে রউফ বলেছেন, জীবনের সেরা সময় আইপিএলে কাটিয়েছি। ওই অ’ভিযোগ নিয়ে এখন আর কিছু বলার নেই। বিসিসিআই নিজেরাই অ’ভিযোগ করেছিল, নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

রউফ জানিয়েছেন, আইসিসির অনুরোধের কারণেই আম্পায়ারিংয়ে আসা তার। দীর্ঘ দিন আগে তৎকালীন পাক বোর্ডের সিইও মজিদ খানকে আইসিসি বলেছিল সে দেশ থেকে উন্নতমানের আম্পায়ার তুলে আনার জন্য। সাবেক ক্রিকেটার হিসেবে আম্পায়ারিং শেখা শুরু করেন রউফ এবং এক সময় তিনি পুরোদস্তুর আম্পায়ার হয়ে যান।

একপর্যায়ে আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনা করা শুরু করেন রউফ। তিনি জানান, যতই ম্যাচ গড়াপে’টা কা’ণ্ডে তার নাম জড়াক, ক্রিকেটারদের সঙ্গে স’ম্পর্ক বরাবরই ভাল ছিল। বলেছেন, আমি খুব খোলামেলা ভাবে ক্রিকেটারদের সঙ্গে মিশতাম। ক্রিকেটার তো বটেই, ওদের স্ত্রী’রাও বলত যে আমা’র সঙ্গ ওরা উপভোগ করে।

লাহোরের লান্ডা বাজারে যে দোকান রউফ চালান, সেখানে পুরনো জামাকাপড়, জুতো কম দামে পাওয়া যায়। হঠাৎ করে এরকম একটা দোকান তিনি খুলতে গেলেন কেন? রউফ বলেছেন, আমা’র কর্মচারীদের জন্য এই কাজ করি। ওদের সংসার যাতে চলে, সেটার চেষ্টা করি। কোনও লো’ভ নেই।

তিনি আরো বলেন, অনেক টাকা দেখেছি জীবনে। আমা’র এক সন্তান বিশেষভাবে সক্ষম। আর এক জন সদ্য আ’মেরিকা থেকে পড়াশোনা করে ফিরেছে। ওদের নিয়েই সময় কে’টে যায়। আমি যেটাই করি, সেটার শিখরে পৌঁছানোর চেষ্টা করি। এখন দোকানদার হিসেবেও সবার উপরে পৌঁছাতে চাই।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!