সিলেট

সিলেট নগরীতে উপশহরে ফাঁকা বাসা থেকে ১৫ লাখ টাকার মালামাল চু’রি

টাইমস ডেস্কঃ নগরীর ব’ন্যাকবলিত এলাকাগুলোর অনেকে বাসাবাড়ি ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে গেছেন। আর সেই সুযোগে মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় বেড়েছে চো’রের উপদ্রব। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি চু’রির ঘটনার খবরও পাওয়া গেছে।

সর্বশেষ বুধবার দিবাগত রাতে শাহ’জালাল উপশহরের এ ব্লকের ২নং রোডের ২নং বাসায় জানালার গ্রিল কে’টে ফাঁকা পড়ে থাকা বিভিন্ন ইউনিট থেকে স্বর্ণালঙ্কারসহ অন্তত ১৫ লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়েছে চো’র। বৃহস্পতিবার দুপুরে চু’রি হওয়া বাসা পরিদর্শন করেছে পু’লিশ।

ওই বাসার মালিক ফেরদৌস আহমেদ আরবী জানান, এক সপ্তাহ আগে বাসায় পানি ঢুকে গেলে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নগরীর মজুম’দারী এক আত্মীয়ের বাসায় চলে যান তিনি। এই সুযোগে বুধবার দিবাগত রাতের কোনো এক সময় বাসার জানালার গ্রিল কে’টে নিচতলা ও দ্বিতীয় তলার কয়েকটি কক্ষে ঢুকে ১২ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোনসহ প্রায় ১৫ লাখ টাকার জিনিসপত্র নিয়ে যায় চো’র। সকালে প্রতিবেশিরা জানালার গ্রিল কা’টা দেখে খবর দিলে বাসায় এসে ঘটনাটি পু’লিশকে অবগত করি। খবর পেয়ে শাহপরাণ থা’না ও উপশহর ফাঁড়ির পু’লিশ এসে বাসাটি পরিদর্শন করে।

এ ঘটনায় মা’মলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানিয়ে গৃহক’র্তা ফেরদৌস আরবী বলেন, ২ নম্বর রোডে তার বাসার অবস্থান এবং ৫ নম্বর রোডে পু’লিশ ফাঁড়ি। তবুও চো’রেরা কিভাবে নির্বিঘ্নে চু’রি সংঘটিত করতে পারলো। একই রোডের বাসিন্দা উপশহর যুব কল্যাণ পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নিজাম উদ্দিন ইমন বলেন, আশেপাশে সিটি কর্পোরেশনের অনেকগুলো সিসি ক্যামেরা থাকলেও এগুলো দীর্ঘদিন থেকে বিকল অবস্থায় পড়ে আছে। এগুলো মেরামতের উদ্যোগ নিচ্ছে না সংশ্লিষ্টরা। ফলে অ’প’রাধীরা বিনা বাঁ’ধায় তাদের অ’প’রাধ কর্মকা’ণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। যদি সিসি ক্যামেরাগুলো সচল থাকতো তাহলে অ’প’রাধীরাদের মধ্যেও ভ’য় কাজ করতো। এজন্য দ্রæত বিকল ক্যামেরাগুলো মেরামত করা আহবান জানান তিনি।

শাহপরান (র:) থা’নার ওসি ত’দন্ত ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য বলেন, পু’লিশ ঘটনাস্থল আম’রা পরিদর্শন করেছে। বাসার আশপাশসহ পাশ্ববর্তী রোডের সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে, পাশাপাশি চো’রদের দ্রুত গ্রে’প্তারের চেষ্টা চালাবো।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!