গোয়াইনঘাটসিলেট

লাইফ স্টাইল পাল্টাতে চান চো’র কা’ম’রুল, থা’নায় আত্মসম’র্পণ, অবশেষে গ্রে’প্তার

টাইমস ডেস্কঃ সিলেটের গোয়াইনঘাটের ৪নং লেঙ্গুঁড়া ইউনিয়নের সতী গ্রামের ইস’রাইল আলী কালা মিয়ার ছে’লে কা’ম’রুল ইস’লাম (৩৫)। চু’রি-ডা’কাতিসহ নানা অ’প’রাধের সাথে জ’ড়িত থাকা কা’ম’রুল একজন দাগী আসামী। অ’প’রাধ আর অ’প’রাধীর তার সখ্যতা ছিলো র্দীঘ দিনের।

গোয়াইনঘাট উপজে’লার ১২টি ইউনিয়নের পাশাপাশি পার্শ্ববর্তী সবকটি উপজে’লা এমনকি সিলেট জে’লার বড় বড় চো’র ডা’কাত গ্যাংদের সাথে তার দহরম মহরমও ছিলো বেশ পুরনো। সামাজিক সৃষ্ট সকল অ’প’রাধ প্রবনতার সাথে মিলেমিশে একেকার হয়ে ইতোপূর্বে গোয়াইনঘাট থা’নার দাগী অ’প’রাধী হিসেবেও শীর্ষে উঠে আসে তার নাম। বিভিন্ন ঘটনায় ৫টি মা’মলার আসামী হয় কা’ম’রুল ইস’লাম।১টি ডা’কাতি, ৩টি গরু চু’রির ও ১টি নারী নি’র্যা’তন মা’মলায় পলাতক ছিল সে। তাকে ধরতে গোয়াইনঘাট থা’না পু’লিশ দীর্ঘদিন থেকে তার বাড়িসহ সম্ভাব্য স্হানে একাধিক অ’ভিযান পরিচালনা করে আসছিল। কিন্তু অ’ত্যন্ত চতুর এই পেশাদার অ’প’রাধী কা’ম’রুলকে প্রতিবারই গ্রে’প্তারে ব্যর্থ হয় পু’লিশ। প্রতিবারই সে পু’লিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

তার বি’রুদ্ধে দায়েরকৃত একাধিক ওয়ারেন্ট হওয়ায় পু’লিশের ঘন ঘন অ’ভিযান তাকে আতংকিত করে তুলে। সম্প্রতি কোম্পানীগঞ্জ থা’না থেকে গোয়াইনঘাট থা’নায় অফিসার ইনচার্জ হিসাবে যোগদান করেন কে.এম. নজরুল। থা’নায় যোগদানের পরপরই থা’নার অফিসার ফোর্সদের নিয়ে তিনি বৈঠক করে গোয়াইনঘাট থা’না এলাকাকে মা’দক, চু’রি, ডা’কাতি,ছিনতাই, ইভটিজিংসহ সব ধরনের অ’প’রাধ দমনে জিরো ট্রলারেন্সনীতি ঘোষণা করে অ’প’রাধীদের গ্রে’প্তারে থা’নার কর্ম’রত অফিসারদের তাৎক্ষনিক কঠোর নির্দেশনা দেন। সেই থেকে গোয়াইনঘাটের চিহ্নিত ও দাগী অ’প’রাধী গ্রে’প্তারের শুরু হয় সাড়াশি অ’ভিযান।

ইতোপূর্বে অফিসার ইনচার্জ কে.এম. নজরুলের নির্দেশনায় গোয়াইনঘাটের চিহ্নিত ভ’য়ংকর বেশকজন দাগী অ’প’রাধীকে গ্রে’প্তার করতে সক্ষম হয় থা’না পু’লিশ। গোয়াইনঘাট থা’নার অ’প’রাধ বিন্যাস পর্যালোচনায় লিপিবদ্ধ থাকা কুখ্যাত গরু চো’র কা’ম’রুলও ছিল সেই তালিকায়। কা’ম’রুলকে গ্রে’প্তারে বার বার পু’লিশের অ’ভিযান পরিচালনা হয়।গোয়াইনঘাটের আন্ডার ওয়ার্ল্ডে আতংক দেখা দেয়। এমতাবস্থায় ইতিমধ্যে বিভিন্ন মাধ্যমে পেশাদার অ’প’রাধী কা’ম’রুল ইস’লাম গোয়াইনঘাটের অফিসার ইনচার্জ কে.এম. নজরুল সমন্ধে অবহিত হয়। সে জানতে পারে অফিসার ইনচার্জ কে.এম.নজরুল শ্রীমঙ্গল, কোম্পানিগঞ্জ থা’না এলাকায় তার কর্ম কালীন সময়ে নিজ প্রচেষ্টায় একাধিক দাগী অ’প’রাধীকে থেকে আত্মসম’র্পণ করিয়ে অন্ধকার থেকে আলোর পথে নিয়ে এসেছেন।সেই বিষয়টি চিন্তা,চেতনায় এনে পেশাদার দাগী অ’প’রাধী কা’ম’রুল ফোনে কথা বলে অফিসার ইনচার্জ কে. এম.নজরুলের সাথে। তার সাথে আলাপ করে ভূল পথ থেকে বেরিয়ে আসার ব্যাপারে মনোস্হির করে কা’ম’রুল।
অফিসার ইনচার্জ কেএম নজরুল ইস’লামের মাধ্যমে অ’প’রাধের অন্ধকার জগৎ থেকে আলোয় ফেরার সিদ্ধান্ত নেয় সে। এই সিদ্ধান্তের আলোকে অবশেষে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় তার বাবা ইস’রাইল আলী কালা মিয়াকে সাথে করে গোয়াইনঘাট থা’নায় হাজির হয়। অফিসার ইনচার্জ কে.এম. নজরুলের সাথে আত্মসম’র্পন করে জীবনে আর কখনো কোনক্রমেই অ’প’রাধের সাথে জ’ড়িত থাকবে না ম’র্মে সে অঙ্গীকার করে। এ সময় গোয়াইনঘাট থা’নার অফিসার ইনচার্জও তাকে সব ধরনের আইনী সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভবিষ্যতে তাকে ভাল হয়ে চলার জন্য মানবিক সহযোগিতারও আশ্বা’স দেন।

গ্রে’প্তারকৃত কা’ম’রুলকে শুক্রবার আ’দালতে পাঠানো হবে বলে পু’লিশ সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে গোয়াইনঘাট থা’নায় যোগদানের পর ক্লুলেস হ’ত্যাকা’ন্ড চো’র, ডা’কাত, ছিনতাইকারী ও মা’দকের বি’রুদ্ধে ফলপ্রসূ অ’ভিযান এবং অ’প’রাধীদের গ্রে’প্তার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসায় সুশীল সমাজের প্রশংসা কুড়াচ্ছেন অফিসার ইনচার্জ কে.এম. নজরুল ইস’লাম।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!