জাতীয়

এবার গণকমিশনের অর্থের উৎস অনুসন্ধানে আলেম’দের পাল্টা স্মা’রকলিপি

নিউজ ডেস্ক-  একাত্তরের ঘা’তক দালাল নির্মূল কমিটির সমন্বয়ে মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস ত’দন্তে গঠিত ‘গণকমিশন’ সারা দেশের ১১৬ জন ধ’র্মীয় বক্তার অ’বৈধ সম্পদের উৎস ত’দন্তে গত ১১ মে দু’র্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) শ্বেতপত্র দিয়েছিল।

এবার ১৯৯২ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ঘা’তক দালাল নির্মূল কমিটির আয়-ব্যয়ের হিসাব ও তহবিলের উৎস, কমিটির নেতাদের আয়-ব্যয়ের হিসাব এবং গণকমিশনের শ্বেতপত্রসহ অ’তীতে তাদের প্রকাশিত শ্বেতপত্রের আর্থিক জোগান ও আয়-ব্যয় স’ম্পর্কে অনুসন্ধান করতে ‘দুদক’কে পাল্টা স্মা’রকলিপি দিয়েছে ‘ইস’লামিক কালচারাল ফোরাম বাংলাদেশ’ নামে একটি সংগঠন।

সোমবার (২৩ মে) ফোরামের প্রধান উপদেষ্টা গাজীপুর দেওনার পীর অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরীর নেতৃত্বে দুদক চেয়ারম্যান মঈনউদ্দিন আবদুল্লাহ বরাবর এই স্মা’রকলিপি দেওয়া হয়। তিন দফা দাবিতে দেওয়া এ স্বারকলিপি গ্রহণ করেন দুদক সচিব মো. মাহবুব হোসেন।

সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মিজানুর রহমান চৌধুরী বলেন, কওমি মাদরাসাতে সাধারণত নিম্নবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের ছে’লে-মে’য়েরা বেশি পড়াশোনা করে। সরকারি অনুদান না নিয়েই শিক্ষিত জাতি গঠনে আম’রা নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছি, অথচ আমাদের উৎসাহ না দিয়ে তারা (গণকমিশন) উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সরকারের সঙ্গে সংঘাত ঘটানোর চেষ্টা করছে।

তিনি বলেন, যারা আমাদের রাজপথে নামতে বাধ্য করছে তাদের অ’ভিযোগ প্রত্যাহার করতে এবং আয়-ব্যয় ও অর্থের উৎস খুঁজে বের করতে আম’রা দুদককে অনুরোধ জানিয়েছি।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- ইস’লামিক কালচারাল ফোরাম বাংলাদেশের সেক্রেটারি জেনারেল মা’ওলানা মো. নাজমুল হক, নির্বাহী সদস্য মা’ওলানা আবু জাফর কাসেমী, মা’ওলানা মানসূরুল হক, মা’ওলানা আবুল কাসেম আশরাফী, মা’ওলানা রিয়াদুল ইস’লাম, মুফতি আব্দুর রাজ্জাক কাসেমী, মুফতি ওয়াহিদুল আলম, মুফতি আব্দুর রহিম, আলহাজ ফজলুল হক ও মা’ওলানা মোতাহার উদ্দিন।

এর আগে গত ১১ মে প্রায় এক হাজার মাদরাসার তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেশের ১১৬ জন ধ’র্মীয় বক্তার অ’বৈধ সম্পদের উৎস ত’দন্তে দুদককে শ্বেতপত্র দেয় গণকমিশন।

গত ১১ মে গণকমিশনের চেয়ারম্যান সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক ও সদস্য সচিব ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল দুদক চেয়ারম্যানের কাছে এই শ্বেতপত্র দেয়।

এ সময় বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক সাংবাদিকদের বলেন, আম’রা প্রায় এক হাজার মাদরাসার তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে এই শ্বেতপত্র তৈরি করেছি। ‘জামায়াত’ ও ‘ধ’র্ম ব্যবসায়ী’ গোষ্ঠীকে অর্থায়ন করা হচ্ছে। ধ’র্মান্ধ গোষ্ঠীর বি’রুদ্ধে আম’রা দু’র্নীতির প্রমাণ পেয়েছি। তারা মানিলন্ডারিং করেছে। দুদকে সেই তথ্য দিয়েছি। ধ’র্মান্ধ এই গোষ্ঠীকে বাড়তে দেওয়া যাবে না। ২২শ পৃষ্ঠার এই শ্বেতপত্র স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকেও দেওয়া হয়েছে। তিনি ব্যবস্থা নেবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন।

এরপর ২০ মে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কা’মাল বলেন, গণকমিশনের কোনো ভিত্তি নেই। অ’ভিযোগের প্রমাণ না থাকলে সে অ’ভিযোগ আমলে নেওয়া হয় না।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!