কানাইঘাটসিলেট

কানাইঘাটে বৃটিশ পু’লিশের গু’লিতে নি’হত শহীদদের স্ম’রণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল

কানাইঘাট প্রতিনিধি : ১৯২২ সালের ২৩ মা’র্চ কানাইঘাট ইস’লামিয়া মাদরাসা মাঠে তৎকালীন স্থানীয় বৃটিশ প্রশাসনের নির্দেশে পু’লিশের গু’লিতে নি’হত ৬ শহীদের আত্মা’র মাগফিরাত কা’মনা করে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গতকাল বুধবার বিকেল ২টায় কানাইঘাট দারুল উলুম মাদ্রাসা মিলনায়তনে কানাইঘাট ইতিহাস ঐতিহ্য সংরক্ষণ পরিষদের আয়োজনে ১৯২২ সালের ২৩ মা’র্চ সংঘঠিত হৃদয় বিদারক ঘটনার স্মৃ’তিচারণ করে বক্তব্য রাখেন কানাইঘাট মাদ্রাসার শিক্ষকগন ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ মাদ্রাসার মুহতামিম মুহাম্ম’দ বিন ইদ্রিস লক্ষিপুরীর সভাপতিত্বে ও ইতিহাস ঐতিহ্য সংরক্ষণ পরিষদের আহবায়ক মা’ওলানা মুহতাসিম বিল্লাহ’র সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন মাদ্রাসার নায়েবে মুহতামিম আল্লামা আলিম উদ্দিন দুর্লভপুরী, মাদ্রাসার মুহাদ্দিস সামসুদ্দিন দুর্লভপুরী, শিক্ষক আব্দুল হক গোবিন্দপুরী, কারী হারুন রশীদ চতুলী, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, কানাইঘাট ইতিহাস ঐতিহ্য সংরক্ষণ পরিষদের সদস্য সচিব সাংবাদিক মাহবুবুর রশিদ, সাংবাদিক মুমিন রশীদ, মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক মা’ওলানা আসাদ উদ্দিন, জুনায়েদ শামসী সহ মাদ্রাসার ছাত্র শিক্ষকবৃন্দ।

এসময় মাদ্রাসার শিক্ষকবৃন্দ বলেন, আজকের দিনটি হচ্ছে বেদনাবিধুর শোকাবহ দিন। এই দিনে ১৯২২ সালের ২৩ মা’র্চ বর্তমান কানাইঘাট দারুল উলুম মাদ্রাসা তখন কানাইঘাট ইস’লামিয়া মাদ্রাসা নামে পরিচিত ছিলো। এইদিন মাদ্রাসার বাৎসরিক ইস’লামি জলসা বন্ধ করার উদ্দেশ্যে তৎকালীন বৃটিশের স্থানীয় প্রশাসন মাদ্রাসা মাঠে ১৪৪ ধারা জারি করলে বি’ক্ষোভে ফেটে পড়েন আলেম ওলামা সহ ধ’র্মপ্রা’ণ তৌহিদী জনতা। বৃটিশ প্রশাসনের বাধা নিষেধ উপেক্ষা করে জলসা চলাকালীন সময়ে সকাল ১১টার দিকে প্রশাসনের নির্দেশে বৃটিশ পু’লিশ জলসায় উপস্থিত ধ’র্মপ্রা’ণ মানুষের উপর নির্বিচারে গু’লি বর্ষণ করলে শহীদ হন উপজে’লার বায়মপুর গ্রামের মৌলভী আব্দুস সালাম, দুর্লভপুর গ্রামের মু’সা মিয়া, উজানিপাড়া গ্রামের আজিজুর রহমান, সরদারি পাড়া গ্রামের জহুর আলী, নিজ বাউরভাগ গ্রামের আব্দুল মাজিদ ও ছোটদেশ চটিগ্রামের মুহাম্ম’দ ইয়াসিন মিয়া এবং আ’হত হন অর্ধশতাধিক ধ’র্মপ্রা’ণ মানুষ। তারা আরো বলেন, বৃটিশ প্রশাসনের গু’লিতে ৬ জন শাহাদাৎ বরণ করার পরও অসংখ্য আলেম উলামাদের বি’রুদ্ধে মা’মলা দিয়ে তৎকালীন সময়ে নি’র্যা’তন ও নি’পীড়ন চালানো হয়েছিল। তাই আজকের এই দিনকে আমাদের সবাইকে স্ম’রণ রাখতে হবে যাতে করে আগামী প্রজন্ম’রা এ দিনটির গুরুত্ব উপলব্ধি করতে পারেন। সেই সাথে রাষ্ট্রীয়ভাবে কানাইঘাটের লড়াই নামে এ দিনকে স্বীকৃতি প্রদান ও শহীদদের যথাযথ সম্মান প্রদর্শনের জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে এগিয়ে আসার আহবান জানানো হয়। আলোচনা সভা শেষে শহীদদের আত্মা’র মাগফিরাত কা’মনা করে দোয়া পরিচালনা করেন মাদ্রাসার মুহতামিম মুহাম্ম’দ বিন ইদ্রিস লক্ষিপুরী।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!