আন্তর্জাতিক

আত্মহ’ত্যার জন্য লন্ডনের টেমস নদীতে ঝাপ দিয়েছিলো সিলেটের জাহিদ

নিউজ ডেস্ক- সাত মাস পর উদঘাটন হলো আ’লোচিত ১৩ বছর বয়সী কি’শোর জাহেদ আলীর টেমস নদীতে ডুবে মৃ’ত্যুর কারণ! বলা হচ্ছে আত্মহ’ত্যা করতেই থেমস নদীতে ঝাপ দিয়েছিলো কি’শোর জাহিদ। গত ২০ এপ্রিল সকালে স্কুলে যাওয়ার পথে টাওয়ার ব্রিজ থেকে থেমস নদীতে ঝাপ দিয়েছিলো ১৩ বছরের কি’শোর জাহিদ। থেমসে ঝাপ দেওয়ার ৮ দিন পর উ’দ্ধারকর্মীরা জাহিদের মৃ’তদেহ উ’দ্ধার করে। জাহিদ আলীর দেশের বাড়ী বাংলাদেশের সিলেটে।

২০ এপ্রিলের ঘটনা স’ম্পর্কে সেই দিনকার প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছিলেন, জাহিদ টাওয়ার ব্রিজের বাস থেকে নেমে হঠাৎ করেই পানিতে ঝাপ দেয়। তাকে বাঁ’চাতে পানিতে কয়েক জন লাফিয়ে পরলেও তারা এই কি’শোরকে পায়নি, তবে তার স্কুল ব্যাগ ও জ্যাকেট পেয়েছিলো।

স্কুল বাস থেকে নামা’র কয়েক মিনিটের মধ্যে জলে ডুবে মা’রা যাওয়ায় এ মৃ’ত্যু নিয়ে প্রচুর সমালোচনা সৃষ্টি হয়। তার মৃ’ত্যুর কারন কি তা উৎঘটনে নামে ত’দন্ত কমিটি। মঙ্গলবার, ২৩ নভেম্বর লন্ডনের আভ্যন্তরীণ আ’দালতে এ ত’দন্তের শুনানি হয়। যেখানে বলা হয়, আত্মহ’ত্যার উদ্দেশ্যেই টেমসে ঝাঁপ দিয়েছিলো কি’শোর জাহেদ।

দক্ষিণ লন্ডনের এলিফ্যান্ট অ্যান্ড ক্যাসেলের আর্ক গ্লোব একাডেমির ক্লাস ফোরের ছাত্র জাহেদ বাসে এক বন্ধুর সাথে ভ্রমণ করছিল। কিন্তু অ’তিক্রমের আগে সে একটি স্টপে তাড়াতাড়ি নেমে যায়।

ত’দন্তের প্রমাণ অনুসারে, পথচারীরা জলে লাইফবয় ছুঁড়েছিলেন যেন জাহেদ তা ধরে উঠে আসতে পারে। এটি দেখতে পেয়ে অন্যরা জাহেদকে বাঁ’চানোর চেষ্টা করতে গিয়েছিল কিন্তু ব্যর্থ হয়েছিল। এর ৮ দিন পর টেমস থেকে তার ম’রদেহ উ’দ্ধার হয়।

ত’দন্তের রিপোর্ট প্রসঙ্গে শি’শু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই বয়সী শি’শুরা অনেক কিছু ভাবেন। তাদের মানসিক স্বাস্থ্যের দিকে অনেক সময় পরিবারের মানুষরা মনযোগ দেয়না। যে কারনে তাদের মধ্যে বিষন্নতা তৈরি হতে পারে। তাই কি’শোর বয়সী সন্তানদের সাথে বাবা-মা ও স্কুলের স’ম্পর্ক উন্নয়ন করলে এই বয়সীদের মধ্যে বিষন্নতা বা মানসিক অবসাদ তৈরি হলেও তা কা’টানো সম্ভব ।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!