খেলাধুলা

বাংলাদেশ টেস্ট স্কোয়াডে ভরসা সিলেটের চার পেসার

স্পোর্টস রিপোর্টারঃ বাংলাদেশের টেস্ট দলে আগে থেকেই ছিলেন তিন পেসার সিলেটের আবু জায়েদ রাহী, এবাদত হোসেন এবং খালেদ আহম’দ। তবে পা’কিস্থানের বি’রুদ্ধে ঘোষিত টেস্ট দলে বাদ পড়েছেন খালেদ, তিনি জায়গা না পেলেও দলে ডাক পেলেন সিলেটের আরেক পেসার  রেজাউর রহমান রাজা।

বাংলাদেশের পেস এ্যাটাকে সিলেটের নের্তৃত্ব বুজিয়ে দিচ্ছে পেস বোলারদের উর্বরভূমি সিলেট।

টেস্টের লাল বল স্পেশালিষ্টদের একজন আবু জাহিদ রাহি বছরে টেস্ট খেলেন ই বা কয়টি তবুও নিজেকে জাতীয় দলের জন্য ফিট রাখতে করে চলেছেন  কঠোর অনুশীলন। মিরপুরে পা’কিস্তানের বি’রুদ্ধে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হওয়ার আগে থেকেই লাল বলে প্র‍্যাকটিস করছেন এ পেসার। খেলেছেন জাতীয় লীগের ম্যাচও।

জাতীয় দলের পক্ষে টেস্টের ১২ ম্যাচে ৩০ উইকেট নেওয়া রাহিকে নিয়ে তাই এবার বেশ আশাবাদী হওয়াই যাচ্ছে। এ পেসার নিজেও চাইবেন নিজের আন্তর্জাতিক পরিসংখ্যানটাকে পা’কিস্তানের সিরিজের বি’রুদ্ধে আরেকটু ভালো বানিয়ে নিতে।

জাতীয় দল আর সিলেট দলের রাহির সতীর্থ আরেক পেসার এবাদত হোসেন চৌধুরী। দীর্ঘগায়ি এ পেসারের জাতীয় দলে জার্সি গায়ে পরিসংখ্যান অবশ্য খুব সুখকর নয়। আট ম্যাচে মাত্র ৮টা উইকেট পেয়েছেন এবাদত। কিন্তু এরপরও এবাদতের ওপর ভরসা রাখছেন নির্বাচকরা কারন এবাদত লাল বলে সুইং করান অসাধারন।

আরেক সিলেটী পেসার রেজাউর রহমান রাজা। রাহি এবাদতের পাল্লা দিয়ে নেটে বল করেছেন রাজা। চলতি জাতীয় লীগে পেয়েছেন তিন ম্যাচে ১২ উইকেট। এই পরিসংখ্যানের কারনে তাসকিনের ইন’জুরির কারনে দলে ডাক পেয়েছেন রাজা।

দেশের প্রতিভাবান চার পেসার জাতীয় লীগে খেলেন একই দলে সিলেট বিভাগীয় দলে। যাদের তিনজন সুযোগ পেয়েছেন পা’কিস্তানের বি’রুদ্ধে টেস্ট সিরিজে। আরো মজার ব্যাপার হলো বাংলাদেশের টেস্ট স্কোয়াডের তিনজন পেসার তিনজনই সিলেট বিভাগের। দেখাঁ যাক বাংলাদেশ দলে সিলেটের এমন নের্তৃত্ব থাকে কতোদিন।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!