শিক্ষা

স্টিভ জবসের শহরে পড়াশোনার সুযোগ: বছরে দেয়া হবে ৮ লাখ

নিউজ ডেস্ক- স্টিভ জবস এখন আর কারে কাছেই অজানা নয়। তার স’ম্পর্কে বলতে গেলে তিনি উদ্যোক্তা ও প্রযু’ক্তি উদ্ভাবক জবসকে পার্সোনাল কম্পিউটার বিপ্লবের পথিকৃৎ এবং অ্যাপলের প্রতিষ্ঠাতা। যু’ক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যে এই কিংবদন্তীর জন্ম ও বেড়ে ওঠা।

শিক্ষার মানের দিক থেকেও এগিয়ে জনসংখ্যায় বৃহত্তম যু’ক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্য। তাই পড়ালেখার জন্য সারা বিশ্বের যে কারো পছন্দ ক্যালিফোর্নিয়া। স্কলারশিপ নিয়ে যদি সেখানে পড়তে চান তবে একটা ভালো সুযোগ হতে পারে হার্ভে মুড কলেজের বৃত্তি।

স্কলারশিপটি নিয়ে স্নাতক করা যাবে হার্ভে মুড কলেজে। আগামী ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত ভর্তি আবেদন করা যাবে। আর স্কলারশিপের জন্য আবেদন করতে হবে আগামী ২০ জানুয়ারির মধ্যে।

বাংলাদেশসহ যে কোনো দেশের আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। এস্টারব্রুক মেরিট অ্যাওয়ার্ডের আওতায় প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের ১০ হাজার ডলার প্রদান করা হয়। যা পরবর্তী ৪ বছর পর্যন্ত দেয়া হবে।

সুবিধাসমূহ:

* যে কোনো দেশের শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবেন।

* স্কলারশিপের জন্য নির্বাচিত শিক্ষার্থীরা প্রতিবছর ১০ হাজার ডলার পাবেন। বাংলাদেশী টাকায় যার পরিমাণ প্রায় সাড়ে ৮ লক্ষ টাকা।

* মেধার ভিত্তিতে মোট ৪ বছর পর্যন্ত এ স্কলারশিপ পাওয়া যাবে।

* হার্ভে মুডের যে কোনো বিষয়ে স্নাতক করা যাবে।

আবেদনের যোগ্যতা:

* বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকে ভর্তি হতে হবে।

* বৃত্তি রিনিউ করতে জিপিএ ন্যূনতম ২.৭৫ ধরে রাখতে হবে।

* ইংরেজী ভাষা দক্ষতা পরীক্ষার স্কোর জমা দিতে হবে।

* উচ্চ মাধ্যমিকে ভালো ফলধারী হতে হবে।

যেভাবে আবেদন করবেন:

এক নজরে স্টিভ জবস

স্টিভেন ‘পল’ জবস ছিলেন একজন আ’মেরিকান উদ্ভাবক, ডিজাইনার; এবং এ্যাপল কম্পিউটারের সহ উদ্যোক্তা, সিইও ও চেয়ারম্যান। এ্যাপল এর বিশ্বখ্যাত পন্য আইপড, আইপ্যাড, আইফোন, আইম্যাককে ধ’রা হয় বর্তমান আধুনিক প্রযু’ক্তির শুরুর ধাপ হিসেবে। এর সবগুলোর পেছনেই ছিল তার সরাসরি অবদান।

জবসের জন্ম হয় ১৯৫৫ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউনিভা’র্সিটি অব উইসকনসিন এর দুইজন গ্রাজুয়েটের সন্তান হিসেবে, যারা জন্মের পরই তাদের ছে’লেকে এ্যাডাপশন বা দত্তক এর জন্য দিয়ে দেন।

ছোটবেলা থেকেই জবস ছিলেন প্রখর বুদ্ধিমান কিন্তু লক্ষ্যহীন। কলেজ থেকে ড্রপ আউট হয়ে ১৯৭৬ সালে স্টিভ ওজনিয়াকের সাথে এ্যাপল শুরু করার আগ পর্যন্ত তিনি বিভিন্ন ধরনের প্রজেক্ট নিয়ে পরীক্ষা নীরিক্ষা চালান।

১৯৮৫ সালে তিনি এ্যাপল থেকে বের হয়ে পিক্সার এ্যানিমেশন স্টুডিও শুরু করেন এবং দশ বছর পর আবার সিইও হিসেবে এ্যপলে ফিরে আসেন। ২০১১ সালে অগ্নাশয়ের ক্যান্সারের সাথে দীর্ঘ ল’ড়াইয়ে পরাজিত হয়ে জবস মৃ’ত্যুবরণ করেন।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!