মৌলভীবাজার

‘আর একলগে সিলেট থাকি আওয়া হইতো নায় রে বইন’

নিউজ ডেস্ক- ‘আর একলগে সিলেট থাকি আওয়া হইতো নায় রে বইন। আমি তোর লগে আর লাগতাম নায়।’ এভাবেই ফেসবুকে আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন মৌলভীবাজারের মে’য়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী ঈশিতা রায়। হবিগঞ্জে দাদার বাড়িতে যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘ’টনায় না ফেরার দেশে চলে গেছেন ঈশিতার সহপাঠী নবনীতা দাশ কাঁকন, মাত্র ২১ বছর বয়সেই জীবনাবসান।

কাঁকনের মা কাবেরি রায় (৫৫) গুরুতর আ’হত অবস্থায় সিলেট এম এ জি ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে ভর্তি হয়েছেন। কাঁকনের বাবা মতিলাল দাশ (৬৫), বড়বোন মৌমিতা দাশ বৃন্দাও এ ঘটনায় আ’হত হয়েছেন। তারা হবিগঞ্জ সদর হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন।

নি’হত কাঁকন দাশ পরিবারের সাথে মৌলভীবাজার শহরের শান্তিবাগ এলাকার বসবাস করতেন। লেখাপড়া, বেড়ে ওঠা মৌলভীবাজার শহরেই। আলী আমজাদ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং মৌলভীবাজার সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। সর্বশেষ পড়াশুনা করতেন সিলেট মেট্রোপলিটন বিশ্ববিদ্যালয়ে, ছিলেন এলএলবি শিক্ষার্থী। স্বপ্ন ছিলো আইনজীবী হওয়ার।

শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজে’লার সুনারু গ্রামে দাদাবাড়িতে যাচ্ছিলেন। বেলা ১১টার দিকে বানিয়াচং সড়কের কবিরপুর নামকস্থানে তাদের

এ সময় গাড়িতে থাকা ৪ জনকে স্থানীয় লোকজন উ’দ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতা’লে নিলে কর্ম’রত চিকিৎসক কাঁকন দাশকে মৃ’ত ঘোষণা করেন। অন্যদের হবিগঞ্জ সদর হাসপাতা’লে ভর্তি করা হয়। তবে পালিয়ে গেছেন গাড়ি চালক।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হবিগঞ্জ সদর থা’নার ওসি মো. মাসুক আলী।

হবিগঞ্জ সদর হাসপাতা’লের চিকিৎসক দেবাশীষ দাশ জানান, কাঁকন দাশকে মৃ’ত অবস্থায় হাসপাতা’লে নিয়ে আসা হয়েছে। বাকিদের চিকিৎসা চলছে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!