জাতীয়

ঢাকায় আইসিইউ শয্যা আরও কমে আসছে

রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকায় করো’নার জন্য নির্ধারিত হাসপাতালগুলোতে চাপ তৈরি হচ্ছে। রাজধানীর হাসপাতালগুলোর নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) শয্যাও কমে আসছে। জে’লা হাসপাতা’লে চিকিৎসকেরা গুরুতর রোগীকে আইসিইউতে নেওয়ার জন্য বললেও শয্যা খালি পাওয়া যাচ্ছে না। সংক্রমণ পরিস্থিতির আরও অবনতি হলে রোগীর বাড়তি চাপ সামলানো নিয়ে সংশয় রয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকদের।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, রাজধানীতে করো’না রোগীদের জন্য নির্ধারিত সরকারি হাসপাতাল রয়েছে ১৬টি। এর মধ্যে ৩টি হাসপাতা’লে আইসিইউ নেই। বাকি ১৩টি হাসপাতা’লের মধ্যে ৭টি হাসপাতা’লেই গতকাল শুক্রবার কোনো আইসিইউর শয্যা ফাঁকা ছিল না। আর ৬টি হাসপাতা’লে ফাঁকা ছিল ৪২টি। এর আগে ১৭ জুলাই ৫টি হাসপাতা’লে আইসিইউ শয্যা খালি ছিল ৬৫টি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক বলেন, সাধারণ শয্যা, আইসিইউ ইতিমধ্যে রোগীতে পূর্ণ। শয্যাসংখ্যা বাড়িয়েও রোগীর চাপ সামলানো যাচ্ছে না। সকালে ৪০ জন রোগী ছাড়া পেলে দেখা যায়, বিকেল নাগাদ আরও ৮০ জন রোগী হাসপাতা’লে এসে ভর্তির অ’পেক্ষায়। আগস্টে পরিস্থিতি আরও খা’রাপ হওয়ার শ’ঙ্কা রয়েছে।

হাসপাতালগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজধানীতে করো’নার জন্য নির্ধারিত হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ শয্যা প্রয়োজন এমন ১৫-২০ জন রোগী সব সময় অ’পেক্ষমাণ থাকছে। অনেক ক্ষেত্রেই রোগীর অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ার পর হাসপাতা’লে নিয়ে আসা হচ্ছে।

গতকাল সকালে মুগদা জেনারেল হাসপাতাল পরিদর্শন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল বাসার খুরশীদ আলম। পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘পরিস্থিতি সামাল দিতে পারব কি না, তা এখন বুঝতে পারছি না। অবস্থা পর্যবেক্ষণ করতে হবে। আগের দুই সপ্তাহের বিধিনিষেধে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে তেমন ইতিবাচক প্রভাব দেখা যায়নি। তবে সীমান্তবর্তী জে’লায় সংক্রমণ কমেছে। তবে আরও কিছুদিন পরে বিধিনিষেধের প্রভাব বোঝা যাবে।’

রোগী শনাক্তের হার বেড়েছে

ঈদের ছুটির সময়ে দেশে করো’না পরীক্ষা কম হয়েছে। রোগী শনাক্তের সংখ্যা আগের দিনগুলোর চেয়ে কম হয়েছে। মৃ’ত্যুও কিছুটা কমেছে। তবে রোগী শনাক্তের হার বেড়েছে। গত মঙ্গলবার থেকে গতকাল পর্যন্ত চার দিনে করো’নায় মৃ’ত্যু হয়েছে ৭২৬ জনের। এ সময় করো’না শনাক্ত হয়েছে ২৯ হাজার ২৫৪ জনের। এই সময় পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ছিল ৩০ শতাংশের মতো। এর মধ্যে গত বৃহস্পতিবার শনাক্তের হার ছিল ৩২ দশমিক ১৯ শতাংশ, যা এক বছরের বেশি সময়ের মধ্যে সর্বোচ্চ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বি’জ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় (গত বৃহস্পতিবার সকাল আটটা থেকে গতকাল সকাল ৮টা পর্যন্ত) মোট ২০ হাজার ৪৯৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ৩১ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ।

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করো’নাভাই’রাসের সংক্রমণে ১৬৬ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে। এ সময় নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ৬ হাজার ৩৬৪ জন। করো’নায় মৃ’ত্যু আগের দিনের চেয়ে কমলেও শনাক্ত রোগী প্রায় দ্বিগুণ বেড়েছে।

সব মিলিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত করো’নায় মোট মৃ’ত্যু হয়েছে ১৮ হাজার ৮৫১ জনের। করো’না শনাক্ত হয়েছে ১১ লাখ ৪৬ হাজার ৫৬৪ জনের।

বি’জ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, করো’নায় আ’ক্রান্ত হওয়ার পর এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৯ লাখ ৭৮ হাজার ৬১৬ জন। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৯ হাজার ৬ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি ৬০ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে ঢাকা বিভাগে। খুলনা ও চট্টগ্রাম বিভাগে মা’রা গেছেন ৩৩ জন করে। বাকিরা অন্যান্য বিভাগের।

করো’নাভাই’রাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে কঠোর বিধিনিষেধ বা লকডাউনের মতো পদক্ষেপের প্রভাব কতটুকু, তা বোঝা যায় এ ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার সপ্তাহ দুয়েক পর থেকে। সংক্রমণ তীব্র আকার ধারণ করতে শুরু করলে ১ জুলাই থেকে দুই সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছিল সরকার। কিন্তু সংক্রমণচিত্রে কোনো ইতিবাচক প্রভাব দেখা যায়নি। এরই মধ্যে আ’ক্রান্ত ও মৃ’ত্যুর সংখ্যা বাড়তে থাকে। ঈদ সামনে রেখে ১৪ জুলাই মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত বিধিনিষেধ শিথিল করে সরকার। গতকাল থেকে আবার ১৪ দিনের বিধিনিষেধ শুরু হয়েছে।

করো’নাবিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরাম’র্শক কমিটির সদস্য এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক নজরুল ইস’লাম প্রথম আলোকে বলেন, এখনো সংক্রমণের হার ৩০ শতাংশ থাকছে। ঈদের অনিয়ন্ত্রিত চলাচল, হাটে লোক সমাগমের প্রভাব আরও দুই সপ্তাহ পর সংক্রমণে দেখা যাবে। বিধিনিষেধে যান চলাচল বন্ধ থাকছে, কিন্তু স্থানীয়ভাবে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে উদ্যোগ নেই। স্থানীয়ভাবে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে এই বিধিনিষেধ শেষেও পরিস্থিতির উন্নতি হবে না।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!