সারাদেশ

নিষেধাজ্ঞা শেষ, বৈরী আবহাওয়ার মধ্যেও সাগরে জে’লেরা

মহামা’রি করো’নাভাই’রাস প্রাদুর্ভাবে তোয়াক্কা না করে, সাগরে ৬৫ দিনের মৎস্য অবরোধে শেষে হতেই গভীর সাগরে মাছ শিকারে গেছেন জে’লেরা। চরফ্যাশন উপজে’লার তালিকাভূক্ত প্রায় ৪৫ হাজার জে’লের মধ্যে প্রায় ২০ হাজার জে’লে নিষেধাজ্ঞার শেষ দিনে গভীর সাগরে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নেন।

উপজে’লা মৎস্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে বৈরী আবহাওয়ায় সাগর উপকূলে থেকে গভীর সাগরে মৎস্য শিকারে না যাওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

এদিকে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে সাগরে মাছ শিকারে নেমেছে জে’লেরা। তাই গত সপ্তাহ জুরে জে’লেরা জাল ও ফিশিং বোর্টসহ মাছ ধ’রার সরঞ্জাম নিয়ে প্রস্তুতি ছিল।

চরফ্যাশন উপজে’লার সাম’রাজ এলাকার জে’লে ওসমান মাঝি বলেন, গত দুই মাস সাগরে মাছ শিকার বন্ধ ছিল, আম’রা কেউ মাছ শিকারে যাইনি। করো’নার এ লকডাউনে ধার-দেনা করে পরিবার-পরিজন নিয়ে ক’ষ্টে দিন কাটিয়েছি। এখন নিষেধাজ্ঞা শেষ তাই সাগরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছি। করো’নাকে ভ’য় করে ঘরে বসে থাকলে তো চলবে না। আমাদের ফিশিং বোটে ১৮ জন জে’লে রয়েছেন।

মানিকা ইউনিয়নের জে’লে আ. বারেক বলেন, ১৫ বছর ধরে সাগরে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। ৬৫টি দিনের অবরোধ ও লকডাউনে বেকার বসে ছিলাম। ধারদেনা করে চলেছি। যখন মাছ ধ’রা বন্ধ থাকে সেই নিয়মটি আম’রা মেনে চলি। এবারও মেনে চলেছি। এতে আমাদের অনেক ক’ষ্টে দিন কা’টাতে হয়েছে। আশা করি কাঙ্ক্ষিত পরিমাণ মাছ পেলে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবো।

একই কথা জানালেন ঢালচর ও কুকরি-মুকরিসহ সাম’রাজ মৎস্যঘাটের মাকসুদ, সালাউদ্দিন ও হানিফসহ অন্যরা। তারা জানান, বেকার সময় কা’টানোর পর এখন আম’রা সাগরে যাব। ঘাটগুলোও জমে উঠবে। অভাব-অনাটন আর অনিশ্চয়তা কাটিয়ে তারা ঘুরে দাঁড়াবেন বলে আশাবাদী।

উপজে’লা সিপিপির সহকারী পরিচালক মেজবা উর রশিদ জানান, বৈরি আবহাওয়ার জন্য গভীর সমুদ্র ও চারটি বন্দরকে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখানো হয়েছে। ফলে মাছ ধ’রার ট্রলারসহ সব নৌ-যানকে সমুদ্র উপকূলে থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

উপজে’লা সিনিয়র মৎস্য কর্মক’র্তা মা’রুফ হোসেন মিনার বলেন, নিষেধাজ্ঞার শেষ দিনে সমুদ্রগামী ১৮ হাজার ৮শ জে’লে সাগরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে। তবে বৈরী আবহাওয়ায় সাগরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত চলছে।

চরফ্যাশনে ১০ হাজার যান্ত্রিক এবং অযান্ত্রিক ট্রলার বা নৌকা রয়েছে। এর মধ্যে সমুদ্রগামী ২ হাজার ৭শ ট্রলার রয়েছে। যার মধ্যে এফভি আশা, এফভি মায়ের দোয়া, এফভি চন্দ্র দ্বীপ ও এফবি আলোখ নুরসহ বড় ছোট একাধিক মৎস্য ট্রলার সমুদ্রে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছে।

উল্লেখ্য, সাগরে মাছের প্রজনন ও উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে ইলিশসহ সকল প্রজাতির মাছ ধ’রা গত ১৯ মে মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!