বড়লেখামৌলভীবাজার

বড়লেখায় এখনো জমেনি ঈদের বাজার: আশাবাদী বিক্রেতারা

সুলতান আহম’দ খলিল, বড়লেখাঃ মৌলভীবাজারের বড়লেখায় আর মাত্র ৩ দিন শেষ হলেই ঈদ। ঈদের আনন্দের বড় একটি অংশ জুড়ে থাকে কেনাকা’টা। ধনী গরীব নির্বিশেষে ঈদ উপলক্ষে কেনা কা’টা করে থাকে। এবারের ঈদে যদিও বড় অংশ থাকে পশু কুর’বানির জন্য বাজেট এরপরও নিজ নিজ সাম’র্থের কেনা কা’টাপোশাকেও। এবারো ঈদ উপলক্ষে পোশাকের বাজার কেমন জমেছে তা দেখতে আজ দুপুরে বড়লেখা পৌর শহরের বিভিন্ন বিপনি-বিতান, শপিংমলে গিয়ে ক্রেতাদের তেমন উপস্থিতি চোখে পড়েনি।

এই সময়ে যেখানে নতুন পোশাক কিনতে শপিং সেন্টারগুলোতে ভীড় থাকার কথা সেখানে এক প্রকার ক্রেতা শূন্যই দেখা গেছে। ফলে, ঈদের আগে জমজমাট বিকিকিনির পরিবর্তে আশায় বসে আছেন ব্যবসায়ীরা।

আজ দুপুরে প্রচন্ড গরনেরর মধ্যেও দেখা গেল বিভিন্ন মা’র্কে’টের মেইন গেইট নেই কোন লোকসমাগম। বড়লেখ হাজীগঞ্জ বাজারের মেইন বাজার এবং সাথে ঈদেরও কিন্তু এরপরও অধিকাংশ দোকান ক্রেতা শূন্য। আর কিছু দোকানে ক্রেতা কম দেখা যাচ্ছে।

বিভিন্ন শপিংমল ও বিপনি-বিতান ঘুরে দেখা যায়, হাতে গোনা কয়েকজন ক্রেতা রয়েছেন। বরং বিক্রেতার সংখ্যা ক্রেতার চেয়ে কয়েকগুণ। শপিং করতে আশা ফাহিমা আক্তার বলেন, এমন ফাঁকা মা’র্কেট পাব সেটা কখনো ভাবিনি। দোকানগুলোতে ক্রেতার সংখ্যা নেই বললেই চলে। তাই, দেখে শুনে পছন্দ মতো পোশাক কিনতে পারছি।

এদিকে মা জুয়েলার্সের স্বত্বাধিকারী ও বড়লেখা জুয়েলারি সমিতির সভাপতি লুতফুর রহমান এ প্রতিবেদককে বলেন, লকডাউন শিথিল করলেও ক্রেতা শূন্য অবস্থায় আছি, যা বেচাকেনা করি তা দিয়ে শ্রমিকদের মজুরির টাকাও উঠে আসছেনা।

বিকিকিনি কেমন হচ্ছে মেলার স্বত্বাধিকারী আবিদ কবির বলেন, এই মুহূর্তে আশানুরূপ কেনাবেচা নেই। আম’রা আশা করেছিলাম শেষ মুহূর্তে বিকিকিনি ভালো হবে। তবে, এভাবে ফাঁকা শূন্য থাকবে তা ভাবিনি।

ফার্স্ট চয়েজের স্বত্বাধিকারী ইউপি সদস্য হিফজুর রহমান বলেন আম’রা এমন দৃশ্যে হতাশ হচ্ছি। তবে, শেষের দিকে থেকে বিকিকিনি বাড়বে বলে আশা করছি।

ব্রান্ড শোরুম নেক্সটের মালিক রুয়েল আহম’দ বলেন করো’নাভাই’রাস সংক্রমণে এবার ক্রেতাসাধারণ খুবই কম তবে আশায় বসে আছি আরও কিছুদিন আছে কিছুটা ভালো হবে বলে মনে করি।

এদিকে এর ব্যতিক্রম বলছেন মডেল’ এর স্বত্বাধিকারী লুতফুর রহমান জুমন, আমাদের বেচাকেনা আশানুরূপ আছে আরও বাড়বে বলে আমি মনে করি।

তবে কেনাকা’টায় আসা বিভিন্ন ক্রেতাসাধারণ বলেন ভালো জিনিস আছে ঈদ বাজারে। লকডাউনের মধ্যেও ব্যবসায়ীরা যথেষ্ট চেষ্টা করছেন ভালো কিছু নিয়ে আসতেন তবে গতবারের চেয়ে দাম একটু চওড়া।

ব্রান্ডের বেশিরভাগ দোকান ক্রেতাশূন্য হলেও জেক্স টেক্সটাইল শো-রোমে গিয়ে কিছুটা ক্রেতার দেখা মিলেছে। শাড়ি আনরেডি বাহারী পোশাক রয়েছে। তাই, আভিজাত্য ও সৌখিনদের একটু বেশিই পছন্দ জেক্স টেক্সটাইল এর শাড়ি।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!