বড়লেখা

বড়লেখায় মিন্টুর দাম আট লক্ষ টাকা

সুলতান আহম’দ খলিল,বড়লেখা: মৌলভীবাজারের বড়লেখায় কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে জমে উঠেছে পশুর হাট। প্রতিদিন হাজার হাজার দেশী-বিদেশী গরু-ছাগল নিয়ে বিক্রেতারা আসছেন উপজে’লার বিভিন্ন পাইকাররা। বিক্রেতারা বলছেন, এ বছর পশু মোটাতা’জা করায় অধিক খরচ হলেও গত বছরের চেয়ে কম দাম চাওয়া হচ্ছে পশুর। এরপরও ক্রেতারা দাম শুনে চলে যাচ্ছেন। এতে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তারা।

অন্যদিকে ক্রেতারা বলছেন, বিক্রেতারা চড়া দাম হাঁকিয়ে বসে রয়েছেন। তাই সাম’র্থ অনুযায়ী গরু-ছাগল কিনতে হিমশিম খাচ্ছেন তারা।

বড়লেখা পৌর শহরের হাজীগঞ্জ বাজারে আজকে পশুর হাটে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, প্রতিটি পশুর হাটে বিপুল পরিমাণ গরু, মহিষ, ছাগল ও ভেড়া বিক্রির জন্য হাটে নিয়ে আসছেন বিক্রেতারা। এছাড়া হাটে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বেচাকেনা করতে দেখা গেছে বেশিরভাগ ক্রেতা-বিক্রেতাদের।

এবং পু’লিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর নিরাপত্তা ও জালনোট সনাক্তকরণ মেশিন নিয়ে বসে আছেন তারা। পু’লিশ সদস্যদের কাছ থেকে জানাযায় পশুর হাটের আইনশৃঙ্খলা সন্তোষজনক রয়েছে। কোন প্রকার জামেলা ছাড়াই হাটবাজার চলছে।

এবার আজকের হাটে বিভিন্ন নামের বড় বড় ষাড় উঠেছে যেমন মিন্টু, শাহী ওয়ান, কালোমেঘ, রাজা, বলবান, তবে মিন্টুর দাম বিক্রেতা হাকিয়েছেন আট লক্ষ টাকা এবং সেটার ক্রেতার ৫লক্ষ পর্যন্ত দাম উঠেছে। এছাড়া ১ লক্ষ টাকা থেকে ৮ লক্ষ টাকা দামের অনেক গরু এবারের হাটে উঠেছে।

বিক্রেতা আব্দুল হাসিব, বাবুল মিয়া ও মো. বশির উদ্দিন জানান, গত বছরের চেয়ে এ বছর দেশীয় পদ্ধতিতে আম’রা গরু, মহিষ ও ছাগল মোটাতা’জা করতে অনেক টাকা খরচ করেছি। তাই কোরবানির হাটে পশুগুলোর দাম একটু বেশি রয়েছে। কিন্তু আম’রা যদি গরুর দাম দেড় লাখ চাই তাহলে ক্রেতারা তার দাম বলেন ৮০-৯০ হাজার, আর যদি এক লাখ টাকা চাই তাহলে ক্রেতারা বলেন ৬০-৭০ হাজার। কোনো কোনো ক্রেতা দাম বেশি দিয়ে কিনে নেন। আবার কিছু ক্রেতা দাম শুনে চলে যান।

তারা আরো জানান, বেশি দামে বিক্রি করতে না পারলে তাদের অনেক লোকসান গুনতে হবে। এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তারা।

ক্রেতা মো. রুবেল, মো. ইব্রাহীম, মো. মাহাবুব ও মো. আবুল বাশার জানান, কোরবানির পশু কেনার জন্য হাটে এসেছেন। কিন্তু বিক্রেতারা গত বছরের চেয়ে এ বছর পশুর দাম অনেক বেশি চাচ্ছেন। ফলে সাম’র্থ অনুযায়ী, পশু কিনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

তারা আরও জানান, আরও এক-দুইদিন হাটে যাবো। যদি দাম কিছুটা কমে তাহলে ভালো, নাহলে বেশি দামেই কিনতে হবে।

তবে তুলনামূলক এ পশুর হাটে খাজনা কম নেয়ায় হাটে পশুর দামও কম রয়েছে তাই এ হাটে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সমাগম বেশি।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!