আন্তর্জাতিক

লন্ডনে নদীতে পড়ে মা’রা যাওয়া কি’শোরটি ছিলো ব্রিটিশ বাংলাদেশী

গত ২০ শে এপ্রিল সকালে স্কুলে যাবার পথে টাওয়ার ব্রিজ থেকে থেমস নদীদে পড়েছিল ১৩ বছর বয়সী কি’শোর। সেই কি’শোরকে বাঁ’চাতে এক তরুনী ঝাপিয়ে পড়ে ফিরে আসে শুধু জ্যাকেট ও ব্যাগ হাতে। ৯ দিন পর ২৮ এপ্রিল ছে’লেটির মৃ’তদেহ উ’দ্ধার হয়। আজ সেই ছে’লেটির নাম পরিচয় প্রকাশ হয়েছে, সে একজন ব্রিটিশ বাংলাদেশী নাম জাহিদ আলী।

জাহিদ আলীর টেমসে পড়ার র’হস্য এখনো উদঘাটন হয়নি। ময়না ত’দন্ত রিপোর্টের অ’পেক্ষায় আছে শোকাহত জাহিদ আলীর পরিবার। বৃহস্পতিবার তার পরিবারের পক্ষ থেকে সংবাদে দুটি ছবি প্রকাশ করা হয়েছে।

গত ২৮ শে এপ্রিল রদারহাইট ট্যানেলের কাছ থেকে তার মৃ’তদেহ উ’দ্ধার করে পু’লিশ। স্কুলে যাওয়ার সময় সে টাওয়ার ব্রিজ থেকে টেমস নদীতে পড়ে গিয়েছিল। জাহিদ আলী সাউথ লন্ডনের আর্ক গ্লোব একাডেমীর ইয়ার-এইটের ছাত্র। সিটি অব লন্ডন পু’লিশ জানিয়েছে, গত ২০ শে এপ্রিল সকালে জাহিদ টেমস নদীতে পড়েছে বলে স্কুলের হেড টিচার পু’লিশকে জানান। এরপর থেকে পু’লিশ নদীতে তল্লা’শি শুরু করে।স্কুল থেকে জানানো হয়েছে, ঘটনার দিন সকালে এক বন্ধুর সঙ্গে বাসে করে স্কুলে আসছিল। জাহিদের স্কুল এলিফ্যান্ট এন্ড ক্যাসলে। কিন্তু স্কুলের নিয়মিত স্টপের এক স্টপ আগেই বাস থেকে নেমে যায় জাহিদ। এরপর সে থেমস নদীতে পড়ে যায় বলে স্কুলের পক্ষ থেকে এক চিঠিতে জাহিদের পরিবারকে অবহিত করা হয়। এরপর ২৮ শে এপ্রিল রদারহাইট ট্যানেলের কাছ থেকে তার ম’রদেহ উ’দ্ধার করে পু’লিশ।

খুব শীর্ঘই সাউথওয়ার্ক করো’নারে জাহিদ আলীর ময়না ত’দন্ত সম্পন্ন হবে। ঠিক কি কারনে জাহিদের এমন মৃ’ত্যু হলো, নাকি সে নিজেই এমন রাস্তা বেছে নিয়েছে এমন তথ্য আসতে হয়তো সময় লাগবে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!