সীমান্তে রণসজ্জায় চীন-ভা'রত

নিউজ ডেস্ক- চীন সীমান্তে সাম'রিক অ'স্ত্র বাড়াচ্ছে ভা'রত। এরই মধ্যে ট্যাংক ও ক্ষেপণাস্ত্রসহ বিভিন্ন ভা'রি অ'স্ত্র মোতায়েন করেছে দেশটি। সম্প্রতি গালওয়ান উপত্যকায় চীনের সঙ্গে সং'ঘর্ষে ভা'রতের ২০ জন সে'না নি'হত হওয়ার পর এই উত্তে'জনা দেখা দেয়। দু’দেশই এখন পর্যন্ত গালওয়ানে সে'না মোতায়েন রেখেছে। এদিকে সীমান্ত সমস্যা মেটাতে বৈঠকে বসতে চলেছে ভা'রত এবং চীনের শীর্ষস্থানীয় সাম'রিক কমান্ডাররা। কিন্তু এর আগেও একাধিকবার বৈঠক হয়েছে। সেই বৈঠক কার্যত ব্যর্থ হয়েছে। কারণ চীনের সে'নারা এখনও সীমান্তে রয়েছে। ভা'রতও পাল্টা প্রস্তুতি নিচ্ছে।

এছাড়া চীন গালওয়ান নদী উপত্যকা, হট স্ক্রিং এবং প্যাঙ্গং সো এলাকায় প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর সম'রসজ্জা বাড়িয়ে যাচ্ছে। উপগ্রহ চিত্রের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়, ভা'রতীয় ভূখণ্ডের প্রায় ৪২৩ মিটার এলাকা পর্যন্ত ঢুকে এসেছে চীনা ফৌজ। প্যাঙ্গং রেঞ্জের ফিঙ্গার পয়েন্ট ৪ ও ফিঙ্গার পয়েন্ট ৫ এলাকার মাঝামাঝি চীনের মান্দারিন ভাষায় লেখা বিশেষ প্রতীক ও ম্যাপের চিত্র ধ'রা পড়েছে স্যাটেলাইট ছবিতে। গত কয়েক মাস ধরে চীনের সঙ্গে যু'দ্ধ পরিস্থিতি বিরাজ করছে ভা'রতের। ৬ জুন উভ'য়পক্ষের প্রথম দফা বৈঠকে কোনো ফল আসেনি। ফলে ১৬ জুন চীন ও ভা'রতের সে'না সদস্যদের মধ্যে র'ক্তক্ষয়ী সং'ঘর্ষ বাধে। এতে ২০ ভা'রতীয় জওয়ান নি'হত হন। কয়েকজন চীনা সে'নাও নি'হত হন। এরপর থেকেই গালওয়ানে শক্তি বাড়াচ্ছে উভ'য় দেশ। সীমান্তে আ'মেরিকা থেকে কেনা আল্ট্রা-লাইট হাউইৎজার কামান মোতায়েন করেছে ভা'রত। রাশিয়া থেকে কেনা অ'ত্যাধুনিক টি-৯০ ভীষ্ম ট্যাঙ্ক, কুইক রি-অ্যাকশন সারফেস-টু-এয়ার মিসাইল মোতায়েনের কাজ চলছে। চীনা গতিবিধি নজরে রাখতে টহল দিচ্ছে ভা'রতের ল'ড়াকু বিমান সুখোই-৩০, মিগ-২৯ ফাইটার জেট, মিরাজ-২০০০ ফাইটার এয়ারক্রাফট। জবাবে চীনও সীমান্তে শক্তি বাড়াচ্ছে। রাশিয়া থেকে আনা আল্ট্রা-মডার্ন এস-৪০০, এস-৩০০, এলওয়াই-৮০ বিমানবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করেছে বেইজিং। এছাড়া বেইজিং জিনজিয়ান প্রদেশ থেকে চতুর্থ মোটর রাইফেল ডিভিশন এনেছে লাদাখে। এছাড়া গালওয়ানের বিতর্কিত এলাকায় মান্দারিন ভাষার প্রতীক ও ম্যাপ স্থাপনের ছবি দেখা গেছে উপগ্রহের চিত্রে।