করো'না: র'ক্ত পরীক্ষা-এক্সরে আর নাপাতে দেড় লাখ টাকা বিল

নিউজ ডেস্ক- গত ২৩ মে করো'না পজিটিভ শনাক্ত হওয়ার পর রাজধানীর আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতা'লে ভর্তি হন সাইফুর রহমান। মঙ্গলবার (২ মে) তিনি হাসপাতাল থেকে রিলিজ নেন। এই ১১ দিনে তার বিল ধ'রা হয় এক লাখ ৭০ হাজার ৮৭৫ টাকা। বিল দিতে না পারায় হাসপাতাল থেকে ডিসচার্জের কাগজ নিয়েও বের হতে পারছিলেন না তিনি। রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত হাসপাতা'লে আ'ট'কে রাখা হয় তাকে। শেষ পর্যন্ত অনেক অনুরোধ করে এক লাখ ৫০ হাজার টাকা দিয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পান সাইফুর রহমান।

সাইফুর রহমান বলেন, ‘আমা'র কোনও অ'পারেশন করা হয়নি, আইসিইউতে ছিলাম না, অক্সিজেন দেওয়া লাগেনি। কেবল নাপা আর গ্যাসের টেবলেট দিয়েছে তারা, বাকি ওষুধ বাইরে থেকে কিনে খেয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘গত ২১ মে আমা'র করো'না পজিটিভ ধ'রা পড়ে। দুই দিন পর ২৩ মে আমি এই হাসপাতা'লে ভর্তি হই। আমি জানতাম এই হাসপাতা'লে সরকারের পক্ষ থেকে চিকিৎসা করা হয়, রোগীদের বিল সরকার দেয়। এরা কেবল দুইটি এক্সরে আর দুইটি ব্লাডের টেস্ট করিয়েছে। ব্লাড টেস্ট দুইটিতে ৭০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে পড়ার কথা। সব মিলিয়ে দুই হাজার টাকার টেস্ট করানো হয়। আর দুইটি এক্সরে করেছে তারা।’

সাইফুর রহমানের বিলের কাগজে দেখা গেছে, ২ জুন পর্যন্ত সেখানে চিকিৎসকের বিল ধ'রা হয়েছে ১৮ হাজার ৭০০ টাকা, হাসপাতাল বিল এক লাখ ১৪ হাজার ৫৭০ টাকা, ইনভেস্টিগেশন বিল ১৯ হাজার ৪৭৫ টাকা, ওষুধের বিল পাঁচ হাজার ২২৬ টাকা ৮৫ পয়সা, এর সঙ্গে সার্ভিস চার্জ ১২ হাজার ৯০৩ টাকা। মোট এক লাখ ৭০ হাজার ৮৭৪ টাকা ৮৫ পয়সা। মোট বিল লেখা হয়েছে এক লাখ ৭০ হাজার ৮৭৫ টাকা।’

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতা'লের পরিচালক ( প্রশাসন) ডা. ইহতেশামুল হক বলেন, ‘সরকারের সঙ্গে কোভিড ডেডিকে'টেড হাসপাতাল হিসেবে যে চুক্তি আমাদের হয়েছিল সেটা গত ৩১ মে থেকে বাতিল করেছি। যে কারণে রোগীর চিকিৎসা ব্যয় তাদের বহন করতে হবে। এইভাবেই চলছে এখন।’

তিনি বলেন, ‘সরকারের সঙ্গে কোভিড প্রজেক্টে আম'রা এখন নেই। আমাদের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চলবে হাসপাতাল। যে কারণে বিলটা করতে আম'রা বাধ্য হচ্ছি।’

সাইফুর রহমানের প্রেসক্রিপশন কিন্তু কেবল নাপা, র'ক্তের দুইটি পরীক্ষা আর দুইটি এক্সরের বিল কী' করে দেড় লাখ টাকা হয়—এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘রোগীকে তার সব বিলের কাগজসহ বুধবার আসতে বলেন। আমি দেখবো বিষয়টি।’ (সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন)