করো'না পরিস্থিতির অবনতি হলে ছুটিতেই ফিরবে সরকার

করো'না সংক্রমণ পরিস্থিতি ক্রমেই অবনতির দিকে গেলে সরকার ফের ছুটিতে ফিরে যাবে। সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের দায়িত্বশীলদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে।

করো'না সংক্রমণের ঝুঁ'কি বাড়ার আশ'ঙ্কার মধ্যেই টানা ৬৬ দিনের ছুটি শেষে গত ৩১ মে থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত বিভিন্ন নির্দেশনা মানা সাপেক্ষে সীমিত পরিসরে সরকারি-বেসরকারি অফিস খুলে দেয়া হয়। একই সঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বন্ধ থাকা গণপরিবহনও (বাস, লঞ্চ, ট্রেন) চালু হয়। কিন্তু করো'না পরিস্থিতির উন্নতি নেই।

সংক্রমণ পরিস্থিতি ক্রমেই অবনতির দিকে যেতে থাকলে ফের ছুটি দেয়া হবে কিনা- জানতে চাইলে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বুধবার (৩ জুন) দুপুরে জাগো নিউজকে বলেন, ‘আম'রা যদি দেখি আমাদের ব্যাপক অবনতি ঘটছে তাহলে তো আমাদের (ছুটিতে যাওয়া ছাড়া) বিকল্প কিছু থাকবে না। আমাদের অর্থনৈতিক কর্মকা'ণ্ডগুলো চালিয়ে নেয়ার জন্যই এটা খুলে দেয়া হলো।’

তিনি বলেন, ‘মানুষ যাতে মাস্ক পরে নিরাপদ দূরত্বে থাকে, আম'রা সেটা বলছি। যখন মানুষ এটা করতে ব্যর্থ হবে, এবং এটা ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়বে। তখন তো ঘরে থাকা ছাড়া উপায় থাকবে না।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আম'রা জানি যে ৮৫ শতাংশ করো'না আ'ক্রান্ত রোগী ঘরে বসেই চিকিৎসা নিতে পারবে। সংক্রমণ যাতে না বাড়ে সেজন্য আম'রা ব্যাপকভাবে চেষ্টা করছি। ছোট দেশ বিশাল জনসংখ্যা, ম্যানেজ করা কঠিন হচ্ছে। আম'রা পু'লিশ থেকে শুরু করে বিভিন্ন ক্ষেত্রে কঠোরতা অবলম্বন করছি ইতোমধ্যে।’

মানুষের চলাচল বাড়লে করো'না সংক্রমণ আরও বাড়বে জানিয়ে ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘বিভিন্ন স্টেজ আছে, আস্তে আস্তে ছড়াতে ছড়াতে শেষের দিকে হয়তো বেশি ছড়াবে। এর চেয়েও সামনে বাড়বে হয়তো। বেড়ে আবার নামা শুরু করবে।’

সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ কর্মক'র্তা-কর্মচারী নিয়ে সরকারি দফতরগুলোকে অফিস করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘আম'রা ১৫টি দিন দিয়েছি। আজ চতুর্থ দিন যাচ্ছে। প্রথম দিনের চেয়ে আরও কম সংখ্যক কর্মক'র্তা-কর্মচারী নিয়ে অফিস করছি। আমাদের ম্যাসেজটা অলরেডি সব জায়গায় পৌঁছে গেছে। অফিস টাইমটাও খুবই ফ্লেক্সিবল। যার যখন কাজ শেষ হবে দ্রুত চলে যাবে। যদি কেউ ২ ঘণ্টায় কাজ শেষ করতে পারে সে চলে যাবে। যদি না এসে বাসায় বসে করতে পারে করে দেবে। কোনো কিছু আ'ট'কাবে না। কিন্তু মুভমেন্টটা কম থাকবে।’

গত সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘হুড়োহুড়ি, বাড়তি যাত্রী হওয়া, স্বাস্থ্যবিধি না মেনে দেশকে আরো সংকটে নিমজ্জিত করতে পারে। আমি পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের সংকটে মানবিকতার দৃষ্টান্ত স্থাপনের অনুরোধ জানাচ্ছি। আমাদের অসচেতনতা এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানায় পরিস্থিতির যদি আরও অবনতি হয় তাহলে জনস্বার্থে সরকার আবারও কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হবে।’

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের অ'তিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ও করো'না সংক্রান্ত মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক মো. হাবিবুর রহমান খান জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমাদের হাতে আরও কিছুটা দিন সময় আছে। আম'রা পরিস্থিতি দেখছি। পরিস্থিতির উন্নতি হলেও তো কোনো সমস্যা নেই। তবে অবনতি হতে থাকলে আম'রা বসে তখন করণীয় সিদ্ধান্ত নেব।’

মা'র্চ মাসের শুরুতে দেশে করো'নাভাই'রাসে আ'ক্রান্ত রোগী প্রথম ধ'রা পড়ে। পরিস্থিতি ক্রমে অবনতির দিকে যেতে থাকলে ২৬ মা'র্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। এরপর দফায় দফায় ছুটি বাড়তে থাকে। সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী গত ৩০ মে ছুটি শেষ হয়।

দীর্ঘ ছুটির কারণে ইতিমধ্যে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকা'ণ্ডে স্থবিরতা নেমেছে। ক'ষ্টে পড়েছে নানা শ্রেণি পেশার মানুষ। তাই এখনও করো'নাভাই'রাস সংক্রমণ পরিস্থিতির উন্নতি না থাকলেও জীবিকা ও অর্থনৈতিক কারণে ছুটির পথ থেকে সরে এসেছে সরকার।

বুধবার (৩ জুন) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করো'নাভাই'রাস বিষয়ক নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে জানানো হয়, দেশে করো'নাভাই'রাসে আ'ক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৭ জনের মৃ'ত্যু হয়েছে। টানা দ্বিতীয় দিনের মতো এতো সংখ্যক মানুষের মৃ'ত্যু হলো। এতে মোট মৃ'তের সংখ্যা দাঁড়াল ৭৪৬ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় করো'নায় আ'ক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৬৯৫ জন। এতে মোট আ'ক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৫৫ হাজার ১৪০ জনে।