বিয়ানীবাজার থেকে নি'খোঁজের ১০ দিনেও উ'দ্ধার হয়নি হিন্দু কি'শোরী প্রিয়া

বিশেষ সংবাদদাতাঃ নি'খোঁজ হওয়ার ১০ দিন অ'তিবাহিত হলেও বিয়ানীবাজার থা'না পু'লিশ উ'দ্ধার করতে পারেনি ১৪ বছরের কি'শোরী প্রিয়াংকা পাল প্রিয়াকে। তাই প্রিয়ার বাক প্রতিবন্ধি মা’সহ পরিবারের কা'ন্না থামছে না। বাবা প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও মে'য়েকে উ'দ্ধার করাতে ব্যর্থ হয়ে অসহায় অবস্থায় দিন কা'টাচ্ছেন।

জানাযায়, বিয়ানীবাজার পৌর শহরের নিমতলা এলাকার বাসা থেকে গত ২৪ মে নি'খোঁজ হন বিয়ানীবাজারের মোটর মেক্যানিক প্রদীপ পাল এর কন্যা প্রিয়াংকা পাল প্রিয়া (১৪)। নি'খোঁজ হওয়ার পর বিষয়টি বিয়ানীবাজার থা'না পু'লিশকে অবগত করে থা'নায় সাধারণ ডায়রী করেন। পরে তিনি বিয়ানীবাজার থা'নায় রুবেল নামক এক ব্যক্তির নাম উল্লেখ করে অ'জ্ঞাতানামা আসামী করে নিয়মিত মা'মলা করেন।

প্রিয়া নি'খোঁজের দিন সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, সকাল ৮.৩৭ মিনিটে প্রদীপ পালের বাসার সামনে অর্থাৎ বিয়ানীবাজার সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে একটি নোহা গাড়ী এসে থামে। আর গাড়ী থেকে নেমে এক যুবক প্রদীপ পালের বাসার দিকে যায়। কিছুক্ষন পর প্রদীপ পালের চৌদ্দ বছর বয়সী কন্যা প্রিয়াংকা পাল প্রিয়াকে সাথে করে নিয়ে এসে নোহা গাড়ীতে তুলে। অ'পর পাশ থেকে চালক পায়ে হেঁেট এসে গাড়ীতে উঠে এবং দ্রুত গাড়ী চালিয় সিলেটের দিকে রওয়ানা হয়।

প্রদীপ পাল জানিয়েছেন, তার পুর্ব পরিচিত এসিআই ইলেকট্রিকে চাকুরীরত হবিগঞ্জ এলাকার রুবেল সকালে তার মোবাইলে ফোন করে। ফোন তার মে'য়ে প্রিয়া রিসিভ করে। এরপর থেকে মে'য়েকে খুঁজে পাইনি। তিনি জানান, প্রিয়াকে না পেয়ে থা'না পু'লিশের সহায়তা চেয়ে জিডি করি। পরে এনিয়ে রুবেল গংদের বি'রুদ্ধে মা'মলা করি। তিনি জানান, তার মে'য়ের খুঁজে রুবেলের হবিগঞ্জের বাসায় পু'লিশ নিয়ে যাই। কিন্তুু রুবেলসহ পরিবারের কাউকে বাসায় পাওয়া যায়নি। প্রদীপ পাল জানান, তার অবুজ মে'য়েকে উ'দ্ধার করতে তিনি হবিগঞ্জ পৌরসভা'র কাউন্সিলরসহ প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও মে'য়ের খোঁজ পাননি। প্রদীপ পাল আশংকা করছেন, তার মে'য়েকে রুবেলসহ একটি চক্র গু'ম করে রেখেছে। তিনি তার মে'য়েকে উ'দ্ধার করতে প্রশাসনের উর্ধতন কর্মক'র্তাদের সহায়তা চেয়েছেন।

বিয়ানীবাজার থা'নার ওসি অবনী শংকর কর জানান, ১৪ বছরের কি'শোরী নি'খোঁজের পর থা'নায় মা'মলা হয়েছে। ত'দন্তকারী কর্মক'র্তা কি'শোরীকে উ'দ্ধারের জন্য তৎপরতা চালাচ্ছেন।