ছাতকে চো'র আ'ট'কের পর গনধোলাই, স্ত্রী'র জিম্মায় মুক্তি

ছাতক প্রতিনিধি::ছাতকে লিয়াকত আলী নামের এক আন্তঃজে'লা ডা'কাত সদস্যকে বসতঘরে চু'রির অ'প'রাধে হাতে নাতে আ'ট'ক করেছে স্থানীয় জনতা। তাকে গণধোলাই দিয়ে এক ইউপি সদস্যের মাধ্যমে তার স্ত্রী'র জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়েছে। পু'লিশে সোপর্দ না করে জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে চো'রকে তার স্ত্রী'র জিম্মায় ছেড়ে দেওয়ায় এলাকার সচেতন মহলের মধ্যে এনিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

আকত মিয়া ওরফে লিয়াকত আলী (৪৫) হবিগঞ্জ জে'লার বানিয়াচং উপজে'লার যাত্রাপাশা ইউনিয়নের প্রথমাদেক গ্রামের মৃ'ত কুতুব উল্লাহর পুত্র। সে দীর্ঘদিন ধরে ছাতক উপজে'লার দোলারবাজার ইউনিয়নের মুক্তারপুর গ্রামের মৃ'ত মাফিজ আলী কালা মিয়ার কন্যা মজমা বেগমকে বিয়ে করে শ্বশুড় বাড়িতে বসবাস করে আসছে। সে স্থানীয় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় এলাকায় চু'রি, ডা'কাতিসহ বিভিন্ন অ'প'রাধ কর্মকা'ন্ডে জ'ড়িত রয়েছে বলে অ'ভিযোগ রয়েছে। তার বি'রুদ্ধে একাধিক চু'রি, ডা'কাতি ও অ'স্ত্র আইনে মা'মলা রয়েছে বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রামপুর খাইরগাঁও গ্রামের আবদুল খালিক প্রতিদিনের মতো শুক্রবার রাতের খাবার খেয়ে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। রাত প্রায় ২টার দিকে লিয়াকতসহ অন্যান্য সহযোগিরা আবদুল খালিকের ঘরের পিছনের দরজার নীচে সিঁধ কে'টে বসতঘরে প্রবেশ করে মোবাইল, নগদ টাকা, কাপড় ও মুল্যবান মালামাল চু'রি করে নিয়ে যাওয়ার সময় গ্রামের দু’যুবক তাকে ধাওয়া করে অন্যান্য লোকজনের সহায়তায় গ্রামের বাবরু মিয়ার পুকুরের পানিতে ফেলে হাতে নাতে আ'ট'ক করে গণধোলাই দেয়। খবর পেয়ে লিয়াকত আলীর স্ত্রী' মজমা বেগমসহ তার ছে'লে মে'য়েরা ঘটনাস্থলে আসে এবং তাকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য গ্রামবাসীর কাছে অনুরোধ করে। পরে শনিবার সকালে স্ত্রী'র জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয় লিয়াকত আলীকে। এর আগেও তার এক সহযোগি মুক্তারপুর গ্রামের কালারাজা ডা'কাতির লুন্ঠিত মালামাল ও দেশীয় অ'স্ত্রসহ ছাতক থা'নার সাবেক ওসি শাহ'জালাল মুন্সি গ্রে'ফতার করেছিলেন। পরবর্তীতে তারা আ'দালত থেকে জামিনে বের হয়ে আসে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আবুল হাশিম বলেন, গ্রামবাসীর চাঁপে ও এলাকাবাসীর অনুরোধে স্ত্রী'র জিম্মায় লিয়াকত আলীকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে অবহিত করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।