বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম উন্মুক্ত স্থানে হচ্ছে না ঈদের জামাত

নিউজ ডেস্ক- বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো উন্মুক্ত স্থানে হচ্ছে না ঈদের জামাত। তবে মু'সল্লিরা ম'সজিদে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অংশ নিতে পারবেন ঈদের নামাজে।

ইস'লামী চিন্তাবিদরা বলছেন, দু'র্যোগের সময় দেশ ও জাতিকে রক্ষা করাই হলো ইস'লামের প্রকৃত শিক্ষা। তাই জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় সরকারের নির্দেশনা পালন করা উত্তম বলে মনে করছেন তারা।

প্রতিবছর শত শত মানুষের কর্মব্যস্ততায় ঈদ জামাতের প্রস্তুতিতে মুখর থাকে জাতীয় ঈদগাহ ময়দান। কিন্তু ঈদের আর কয়েকটা দিন বাকী' থাকলেও শূন্য পড়ে আছে সবুজ মাঠ।

করো'না ভাই'রাসের নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে মু'সলমানদের অন্যতম ধ'র্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতরে।

একমাসের সিয়াম সাধনার পরে সৃষ্টি ক'র্তার পক্ষ থেকে আসে খুশির ঈদ। ধ'র্মপ্রা'ণদের বছরের অ'পেক্ষা। প্রা'ণে প্রা'ণ মিলাতে উৎসবের জামাতে ছুটে আসেন হাজার হাজার মু'সল্লি।

তবে এবারের চিত্র একেবারেই ভিন্ন। খুশির ঈদে বাঁধ সেধেছে করো'না ভাই'রাস। তাই সরকারের পক্ষ থেকে এসেছে বেশ কিছু নির্দেশনা। উন্মুক্ত স্থানে আয়োজন করা যাবে না ঈদের জামাত।

ম'সজিদে শারীরিক দূরত্ব মেনে জায়নামাজসহ আসতে হবে। ম'সজিদে রাখতে হবে জীবাণুনাশক, বিছানো যাবে না কার্পেট।

ইস'লামি চিন্তাবিদ ঢাকা বায়তুল আহসান জামে ম'সজিদের খতিব ড. মো. রুহুল আমিন আজাদী বলেন, ধ'র্মে খোলা ময়দানে ঈদ জামাতের কথা থাকলেও সংকটের এ সময়ে ম'সজিদে ঈদের নামাজ আদায় করা শরীয়ত সম্মত।