দেশে মা'রাত্নক হারে বাড়ছে ক’রো’না আ’ক্রা’ন্তে’র সংখ্যা, মৃ'ত্যুর নয়া রেকর্ড

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করো'নাভাই'রাস সংক্রমণে নতুন করে আ'ক্রান্ত হয়েছেন ২৯ জন। এ নিয়ে দেশে মোট করো'নাক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ১১৭ জন। আর এই ২৪ ঘণ্টায় দেশে মৃ'ত্যুবরণ করেছেন আর ৪ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত দেশে মোট মৃ'ত্যুবরণ করেছেন ১৩ জন। একদিনে ২৯ জন করো'না রোগী আ'ক্রান্ত হওয়ার ঘটনা এর আগে বাংলাদেশে ঘটেনি। এছাড়া একদিনে ৪ জন মৃ'ত্যুও একদিনে সর্বোচ্চ। আজ সোমবার (৬ এপ্রিল) দুপুরে মহাখালীতে সরকারি ও বেসরকারি স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধিদের সাথে করোনা বিষয়ে আয়োজিত জরুরি সভায় এ তথ্য জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

আরও জানানো হয়, বর্তমানে সারা দেশের ১৪টি কেন্দ্রে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হচ্ছে। এসব কেন্দ্রে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৬৭টি নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হয়েছে। এদিকে গতকাল রবিবার (৫ এপ্রিল) সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বর্তমানে সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা ৪৬। এর মধ্যে ৩২ জন হাসপাতা'লে চিকিৎসা নিচ্ছেন। বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন ১৪ জন। নতুন আ'ক্রান্ত ১৮ জনের মধ্যে ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে একজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দুইজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে চারজন, রয়েছে ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৯ জন। এ ছাড়া দুইজন রয়েছেন ষাটোর্ধ। সর্বশেষ আ'ক্রান্ত ১৮ জনের মধ্যে পুরুষ ১৫ জন এবং তিনজন নারী। এদের মধ্যে ১২ জনই ঢাকার বাসিন্দা। বাকি ছয়জনের পাঁচজন নারায়ণগঞ্জে এবং মাদারীপুরে একজন। নারায়ণগঞ্জে এখন পর্যন্ত মোট করো'না রোগীর সংখ্যা ১১ জন। এ ছাড়া ঢাকার বাসাবো এলাকায় এ পর্যন্ত চিহ্নিত হয়েছে ৯ জন রোগী। আর মিরপুর এলাকায় রয়েছে মোট ১১ জন।

এছাড়াও গতকাল পর্যন্ত জানা যায়, এখন পর্যন্ত রাজধানীর ২৯টি স্থানে ৫২ জন করো'না শনাক্ত হয়েছে। এলাকাগুলো হলো: বাসাবোয় ৯ জন; মিরপুরের টোলারবাগ ৬ জন; পুরান ঢাকার শোয়ারিঘাট ৩ জন; বসুন্ধ'রা ২ জন; ধানমন্ডি ২ জন; যাত্রাবাড়ী ২ জন; মিরপুর-১০ ২ জন; মোহাম্ম'দপুর ২ জন; পুরোনো পল্টন ২ জন; শাহ আলী বাগ ২ জন; উত্তরা ২ জন। রাজধানীর বাকি ১৮টি স্থানে একজন করে করো'না রোগী পাওয়া গেছে। এসব স্থানগুলো হলো, বুয়েট এলাকা, সেন্ট্রাল রোড, ইস্কাটন, গুলশান, গ্রিনরোড, হাজারীবাগ, জিগাতলা, মিরপুর কাজীপাড়া, মিরপুর-১১, লালবাগ, মগবাজার, মহাখালী, নিকুঞ্জ, রামপুরা, শাহবাগ, উর্দু রোড ও ওয়ারি।