লন্ডনের হাসপাতা'লে অক্সিজেন সংকটের আশ'ঙ্কা, আতঙ্কে করো'না রোগীরা

লন্ডনের একটি হাসপাতা'লে অক্সিজেনের মজুত প্রায় শেষের দিকে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, চাহিদার তুলনায় রোগীর সংখ্যা অ'ত্যধিক বেশি হওয়ায় এমনটা হয়েছে। এই অবস্থায় মা'রাত্মক অক্সিজেন সংকটে রয়েছেন ওই হাসপাতা'লের করো'না রোগীরা।

করো'নায় আ'ক্রান্ত সংকটাপন্ন রোগীদের জন্য খুবই জরুরি তাদের মাঝে অক্সিজেন সরবরাহ করে শ্বা'স-প্রশ্বা'স নেয়ার ব্যবস্থা করা।

তবে লন্ডনের একটি হাসপাতা'লে অক্সিজেনের সংকট তৈরি হওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মনে করছে, তাদের কাছে এখন পর্যন্ত যে পরিমাণ অক্সিজেন মজুত আছে, খুব দ্রুতই এসব অক্সিজেন পাইপের গ্যাস শেষ হয়ে যাবে। এতে করে সংকটাপন্ন করো'না আ'ক্রান্ত রোগীদের বাঁচিয়ে রাখা ক'ষ্ট'কর হয়ে যাবে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে। তবে হাসপাতালটির নাম প্রকাশ করেনি সংবাদমাধ্যমটি।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, হাসপাতা'লে বিপুল সংখ্যক এসব ভেন্টিলেটরের গ্যাসের মজুত একবার শেষ হয়ে গেলে হাসপাতা'লের অক্সিজেনের রিজার্ভ ট্যাংকই শেষ ভরসা। এতে করে রিজার্ভ ট্যাংকের ওপর চাপ পড়বে। ফলে এই মুহূর্তে অ'তিরিক্ত ভেন্টিলেটর মেশিন সরবরাহ অ'পরিহার্য মনে করছে কর্তৃপক্ষ।

এই অবস্থায় হাসপাতা'লে মজুতকৃত অক্সিজেন যথাযথ ব্যবহারের পরামশ দিয়েছেন ইংল্যান্ডের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস)।

ডেইলি মেইলের প্রতিবেদন বলছে, বর্তমানে সমগ্র ইংল্যান্ড জুড়ে আট হাজার ভেন্টিলেটর মেশিন রোগীদের সেবায় ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে স্বাস্থ্য কর্মক'র্তারা বলছেন, আরও অন্তত ৩০ হাজার কোভিড-১৯ রোগীর জন্য দরকার ভেন্টিলেটর।

যু'ক্তরাজ্যে এ পর্যন্ত ৩৮ হাজার ১৬৮ জন করো'নাভাই'রাস আ'ক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা গেছে। আর মা'রা গেছে তিন হাজার ৬০৫ জন। এই অবস্থায় ইংল্যান্ডের সামগ্রিক পরিস্থিতি বলছে, দেশটিতে এই মুহূর্তে ৩০ হাজার করো'না রোগীর প্রয়োজন ভেন্টিলেটর মেশিন।

অন্যদিকে দেশটির স্বাস্থ্য বিষয়ক পরাম'র্শদাতা প্রতিষ্ঠান এজ হেলথ এক প্রতিবেদনে বলেছে, আগামী মে মাসে জটিল রূপ ধারণ করতে পারে কোভিড-১৯। ওই সময় দেশটিতে প্রয়োজনে হবে ৯৩ হাজার ভেন্টিলেটর।