একজন কিংবদন্তীর বিদায়

আশফাক জুনেদ: মাদ্রাসা মাটে ঝিম দুপুর। শোকস্তব্ধ পরিবেশ। চারদিকে গু'ম'রে ওঠা কা'ন্না।সমাজের প্রতিষ্ঠিত কিছু মানুষের ভিড়ে অস্থায়ী মঞ্চ। তার মধ্যিখানে নিথর ঘুমিয়ে আছেন বরেণ্য শিক্ষাবিদ ও কাজী একে এম শাকুর।যিনি মাখন মৌলভী হিসাবে সর্বত্র পরিচিত।তাকে দেখার জন্য ভিড় করছেন রাজ্যের মানুষ!

গত ১৮ মা'র্চ বুধবার ভোরে মৃ'ত্যুবরণ করেন কিংবদন্তি এই শিক্ষাবিদ।এরপর সকাল থেকে শত শত মানুষ ভিড় করেন উনার বাড়িতে।প্রিয় ছাত্র, সহকর্মী আর হাজারো শুভাকাঙ্ক্ষী ও প্রিয়জনের পাশাপাশি সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসায়, চোখের জলে, শ্রদ্ধার ফুলে ফুলে ভরিয়ে দিয়েছেন তার কফিনটি। আর সেই ভালোবাসাকে সঙ্গী করেই চিরবিদায় নিলেন সবার প্রিয় অধ্যক্ষ একে এম শাকুর।

চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৮ মা'র্চ বুধবার ভোর সাড়ে ৪টায় নিজবাড়িতে মৃ'ত্যুবরণ করেন  মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজে'লার সাবেক বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও একাধারে পাঁচ ইউনিয়নের কাজী কিংবদন্তি এই মানুষ।

ক্ষনজন্মা এই মানুষটির মৃ'ত্যুতে এলাকায় নেমে আসে শোকের ছায়া।বয়সের ভা'রে নোয়ে পড়া এই মানুষটির মৃ'ত্যুর খবরে অজস্রে কেঁদেছেন তাঁর কত প্রিয়জন।

‘গ্রামীণ জনপদ উন্নয়ন’ ও সমাজে শিক্ষার বিস্তারে হাজার হাজার মানুষের হ্রদয়ে আজীবন বেঁচে থাকবেন কিংবদন্তি একে এম শাকুর। তাঁর অসাধারণ কর্ম গুনের কারণে সমাজের সর্বস্তরের মানুষ তাকে এক নামেই চেনেন। গণমানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন, শিক্ষা, উন্নয়ন ও অভাবনীয় অবদানের জন্য তিনি ব্যাপক সম্মান অর্জন করেছেন।

তিনি তার পূর্ণ জীবনটাই মানুষের কল্যাণে, এলাকার উন্নয়নে ব্যয় করেছেন। শিক্ষার বিস্তারে ব্যয় করেছেন জীবনের সিংহভাগ সময়।এলাকার প্রায় প্রতিটি প্রতিষ্টানের সাথে ছিলো তাঁর নিবিড় স'ম্পর্ক। রাস্তা ঘাট,ব্রিজ সেতুর কাজ বাস্তবায়নে তার ভূমিকা ছিলো।এমন কোন বিচার পাঞ্চায়েত নেই যেখানে তিনি তার স্বজ্ঞানে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করেননি। তার চলার রাস্তা ছিল কর্দমাক্ত কিন্তু কোন কাঁদা তার গায়ে লাগেনি। এটাই সফল জীবন, এটাই হল তাঁর জীবনের বড় সফলতা।

কাজী একে এম আব্দুস শাকুর কর্মজীবনে বড়লেখা ও বিয়ানীবাজার উপজে'লার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতার দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি বিয়ানীবাজার উপজে'লার দাসউরা সিনিয়র মাদরাসায় ৫বৎসর, বড়লেখা উপজে'লার দক্ষিনভাগ এনসিএম উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৯ বৎসর,শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪ বৎসর শিক্ষকতা ও পরগনাহী দৌলতপুর আলিম মাদরাসায় অধ্যক্ষ হিসেবে কর্ম'রত ছিলেন। এছাড়াও তিনি এক সময়কার বড়লেখা উপজে'লার বর্ণী,দাসেরবাজার, নিজ বাহাদুরপুর,দক্ষিন শাহবাজপুর ও তালিম পুর ইউনিয়নের নিকাহ রেজিষ্টার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

উনার শেষ কর্ম জীবন কা'টান পরগনাহী দৌলতপুর সিনিয়র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ হিসাবে।তিনি সেই মাদ্রাসার প্রতিষ্টা কালীন ছাত্রও ছিলেন।মাদ্রাসার প্রতিটি ইট, সিমেন্ট আর বালু কণার সাথে মিশে আছে কাজী এম শাকুরের ঘাম আর শ্রম।জীবনের শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত মাদ্রাসার কল্যানে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন।আর কিংবদন্তী এই মানুষটি ছিলেন আমা'র প্রিয় কাজী নানা।আমাদের কাজী নানা।স্নেহ মায়া মমতার বন্ধনে আগলে রাখা এই মানুষটির প্রয়ানে বুকটা ফেটে চৌচির হয়েছিলো সেদিন।

বুধবার ভোর পাঁচটার দিকে ছোট মামানির ফোনে খবর পাই নানা আর পৃথিবীতে নেই।দুই দিন আগে নানাকে দেখে এসেছিলাম।অক্সিজেন মাস্ক লাগানো অবস্থায় নানার নিথর দেহটা দেখে স্তব্ধ হয়ে দাঁড়িয়েছিলাম কিছুক্ষণ ।উনার শ্বা'স নিতে প্রচন্ড ক'ষ্ট হচ্ছিল।উনার ক'ষ্ট দেখে বুক ধ'রাতে পারি নি।উনার রুম থেকে বের হয়ে আসি।

এর পরদিন নানাকে আমা'র পরিবারের লোকজন দেখে আসেন।আমি আর যেতে পারি নি।নানাকে আর জীবিত দেখা হলো না।দেখতে হলো তার নিথর দেহ।

নানা আজ নেই।তাঁর সাথে আমা'র হাজারো স্মৃ'তি বহমান।যে স্মৃ'তিগুলা আজ বার বার মনে পড়ছে।মনের অজান্তে চোখের নোনা জল গাল বেয়ে মাটিতে পড়েছে।নানাকে প্রচন্ড ভালোবাসতাম।নানা বাড়ি গেলে ছুটে যেতাম নানা’র ঘরে।ঘন্টার পর ঘন্টা নানার সাথে গল্প করতাম। সমসাময়িক নানা বিষয় নিয়ে গল্প করতাম।রাজনীতি থেকে শুরু করে সব বিষয় নিয়ে নানার সাথে আলাপ হতো। গত কয়েকবছর থেকে যতবারই নানা বাড়ি গেছি ততবারই নানাকে বিছানায় শুয়া অবস্থায় পেয়েছি।বয়সের ভা'রে নোয়ে পড়েছিলেন।উনার বিছানার পাশে একটি চেয়ার ছিলো।আমি গেলেই সেই চেয়ারে বসতাম।আমা'র একটি হাত ধরে নানা বসে থাকতেন।আমি যতক্ষন বসা থাকতাম ততক্ষণ আমা'র একটি হাত নানা ধরে রাখতেন।আর বলতেন তোর হাত এতো নরম কেনো?তোর চেয়ে তোর নানীর হাত অনেক শক্ত।নানা’র অনেক দুঃখ ছিলো।সেই দুঃখ গুলা নানা অবলীলায় আমা'র সাথে শেয়ার করতেন।

একবার নানা’কে প্রশ্ন করেছিলাম নানা আপনি আপনার নাতী-নাতনীর মধ্যে কাকে বেশি ভালোবাসতেন। নানা তখন কৌশলী একটা উত্তর দিয়েছিলেন।বলেছিলেন তোদের মধ্যে তোকে ভালোবাসি।

সেই নানা আর নেই। মাবুদের ডাকে সাড়া দিয়ে তিনি চলে গেছেন।

নানা আমাকে নাম ধরে ডা'কার সময় কখনও সুধু জুনেদ বলতেন না।জুনেদ সাহেব বলে ডাকতেন।নানা বাড়ি কোন অনুৃষ্টান হলে নানা আমা'র ঘরে ফোন দিয়ে বলতেন আমা'র জুনেদ সাহেবকে বলো উনি যেনো আসেন।উনি না আসলে হবে না।আমিও কখনও নানার ডাক’কে অগ্রাহ্য করিনি।একবার নানা’র সাথে বাড়ির উঠানে বসে গল্প করছিলাম।নানা তখন উনার হ'জ্জের গল্প করছিলেন।উনি যে ট্রাবেল এজেন্সির মাধ্যমে গিয়েছিলেন সেই ট্রাবেল এজেন্সির ব্যবস্থাপনা ভালো না থাকায় নানাকে বিমানে পরিচয় হওয়া এক ব্যক্তি তার রুমে নিয়ে যায়।নানা ফ্রি’তে সেখানে থাকতে আ'পত্তি জানালে লোকটি নানাকে অনুরোধ জানায় যে চাচা আপনি তো মা'ওলানা। আর আমি এক অভাগা লোক।নামে মু'সলমান হলেও আমি সুরা কালাম কিচ্ছু জানি না।আপনি আমাকে এই হ'জ্জের সময় সুরা কালাম শিখাবেন আর তার বিনিময়ে আপনি এখানে থাকবেন।তারপর সেই ব্যক্তিকে নানা দুই-তিন দিনের ব্যবধানে প্রয়োজনীয় সব সুরা-কালাম শিখান।

নানা এই গল্পটি করার সময় কেঁদেছেন।লোকটি নানাকে নিজের বাবা’র মতো করে হ'জ্জের সব কার্যাদি সম্পন্ন করেছে।

নানা’র সাথে একটি বিষয় নিয়ে প্রায়ই আমা'র খু'নসুটি হতো।সেই বিষয়টি হলো কাজী নিয়ে।উনাকে প্রায়ই খেপাতাম আমি।বলতাম আপনি এত ইউনিয়নের কাজী ছিলেন।আমাকে অন্তত আমা'র ইউনিয়নের কাজী’র দায়িত্বটা দিলে কি হতো?কত টাকা ইনকাম করতাম।আপনার বাতিজা আজ কত টাকা ইনকাম করছেন।

নানা বলতেন আমি যখন কাজী ছিলাম তখন তোর জন্মই হয় নি।আমি আমা'র ছে'লেকেই কাজী’র দায়িত্ব দিয়ে দেশে রাখতে পারিনি।

নানার কাছে গেলেই নানা আমা'র মা-বাবার কথা বলতেন আর কাঁদতেন।বলতেন,বাড়ীর সবচেয়ে বড় মে'য়ে ছিলো তোর মা।বড় আদরের মে'য়ে ছিলো।আমি বাজার থেকে আসার সময় তোর মায়ের জন্য মিটাই আনতাম।এনে বিছানার পাশে রাখতাম।আর তোর নানী লুকিয়ে লুকিয়ে খেয়ে ফেলতেন।এ নিয়ে তোর নানীর সাথে আমা'র ঝগড়া হতো।আর তোর বাবা তো বাড়িতেই এসেই আমা'র ঘরে চলে আসতেন।এসে আমা'র পায়ের কাছে বসে গল্প করতেন।আমা'র ছয়ফুলের সাথে (উনার ছে'লে) তোর বাবার খুব ভালো স'ম্পর্ক ছিলো।ওরা একসাথে চলাফেরা করতো।তোর বাবা আর তোর বেদেনা খালার জামাই বেশি আসতেন।ওদের আলাদা টান ছিলো আমা'র জন্য।এখন তোর বাবাও নেই মা'ও নেই, আমা'র বেদেনাও নেই।সবাই আমায় ছেড়ে চলে গেছে।আমি দেখতাম তখন নানার গাল বেয়ে পানি পড়ছে।আমিও আবেগাপ্লুত হয়ে পড়তাম।

নানা সবসময় উনার এক মে'য়ের কথা বলতেন আর কাঁদতেন।উনার মে'য়ের নাম মান্না।
মান্না অন্ত প্রা'ণ ছিলেন উনি।খালা আ'মেরিকা যাওয়ার পর অনেকটাই ভেঙে পড়েছিলেন নানা।এরপর যতবার নানার কাছে গেছি নানা কথা ঘুরিয়ে খালা ও উনার নাতী নাতনীর কথা আনতেন।যেনো মান্না খালার কথা বলতে উনার ভালো লাগে।

নানা সবসময় বলতেন ভালো মানু্ষ হও।কখনও মানুষের সাথে খা'রাপ ব্যবহার করো না।ব্যবহারে বংশের পরিচয়।তুমি খা'রাপ ব্যবহার করলে সেই ভা'র আসবে আমাদের উপর।মানুষ আঙুল উঠিয়ে বলবে অমুকের ভাগনা,অমুকের নাতী এ কাজ করেছে।

নানা বিভিন্ন সময় উনার কর্মজীবন নিয়ে আলোকপাত করেছেন।উনার জীবনের অনেকটা সময় তিনি দক্ষিণ ভাগ হাই স্কুলে কাটিয়েছেন।সেখানকার অনেক স্মৃ'তির কথা বলেছেন।আমাদের শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে নানা ৪ বৎসর শিক্ষকতা করেছেন।তিনি ইস'লাম শিক্ষা পড়াতেন। তাঁর সুধু এই বিষয় পড়াতে ভালো লাগতো না।তিনি প্রধান শিক্ষককে অনুরোধ করেন তাকে অন্য কোন বিষয় পড়ানোর সুযোগ করে দিতে।পরে সম্ভবত উনাকে গনিত পড়ানোর জন্য দেওয়া হয়েছিলো।

সুধু ইস'লাম শিক্ষা পড়াতে কেনো ভালো লাগতো না প্রশ্নে নানা চ'মৎকার একটা উত্তর দিয়েছিলেন। বলেছিলেন ইস'লাম শিক্ষা পড়ানোর কারণে আমি তো সুধু মু'সলিম শিক্ষার্থীদের শিক্ষক ছিলাম।আর গনিত পড়ানোর মাধ্যমে সকল ধ'র্মের সকল শিক্ষার্থীদের শিক্ষক হয়ে গেলাম।

নানা’র কর্মজীবন নিয়ে একটা বই বের করা জরুরি।আমি বহুবার নানার পুরো জীবনি জানার চেষ্টা করেছি। কিন্তু তা পুরোপুরি আর পেরে উঠিনি।অনেক কথা নানা বলেছেন সব কথা মনেও নেই।সব কথা তো আর সবসময় মনে থাকে না।গত এক দেড় বছর থেকে ভাবছি নানার কাছ থেকে উনার পুরো জীবনি শুনবো।মোবাইলে রেকর্ড করে পরে তাঁর জীবনের উপর আমাদের ম্যাগাজিনের একটা বিশেষ সংখ্যা বের করবো।কিন্তু তা আর হয়ে উঠেনি।নানাও পুরোপুরি সুস্থ হলেন না আর আমা'রও উনার গল্প শুনা হলো না।আমি নানাকে বলেছিলাম আপনার জীবনের উপর একটা বই লেখা প্রয়োজন।আপনার জীবনি পড়ে অনেকেই অনুপ্রেরনা পাবেন।আপনি লিখু'ন।আমি এর প্রকাশ ও প্রচারের দায়িত্ব নিলাম। নানা লিখবেন বলেছিলেন।কিন্তু অ'সুস্থতা উনাকে সেই শক্তি আর দেয় নি।

চলে গেলেন উনি।বহুদুর।অনেক বহুদুর। যেখান থেকে কেউ আর ফিরে আসে না।নানাও আর আসবেন না।

গত কয়েকদিন আগে মেজো মামা'র সাথে কথা হচ্ছিল।মামা বলছিলেন চাচা চলে গেলে আমাদের পুরো বাড়িটাই অন্ধকার হয়ে যাবে।তুমি ছোট ছিলে।চাচা অ'ত্র এলাকার সব বিচার করতেন।উনার আঙুলের ইশারায় মানুষ উঠতো বসতো।ন্যায় বিচারক হিসাবে এলাকায় বিশেষ সম্মান ছিলো উনার।জে'লে, কামা'র,কুমা'র,তালুকদার,ধনী,গরিব সবাইকে সমান চোখে দেখতন। ন্যায় বিচার করতেন।উনার রায়ের বি'রুদ্ধে কথা বলার সাহস কারো ছিলো না।উনি আজ অ'সুস্থ। কত মানুষ উনাকে দেখতে আসছেন।

মামা'র সেই কথাটাই সত্যি হলো।কয়েকদিনের ব্যবধানে নানা চলে গেলেন। পুরো বাড়ি নয় উনি চলে গেলেন অ'ত্র এলাকা অন্ধকার করে।যে মানুষটি জ্ঞানের আলোয় আলোকিত করেছিলেন পুড় খাওয়া এ অঞ্চলকে সেই মানুষটি চলে গেলেন।আর ফিরে আসবেন না তিনি।চিরবিদায় নিলেন উনি।উনার মৃৃত্যুতে এলাকা হারালো এক খাঁটি মানুষকে।অ'তপর বিদায় হলো একজন কিংবদন্তীর।