যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্য ও ইতালিতে করো'নায় মোট ১৫ প্রবাসী বাংলাদেশির মৃ'ত্যু

প্রা'ণঘাতী করো'নাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ইতালিতে মোট ১৫ জন বাংলাদেশি নারী-পুরুষ ই'ন্তেকাল করেছেন। এদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের নয়জন এবং যুক্তরাজ্যের পাঁচজন। বাকি একজন ইতালির।

সবচেয়ে ম'র্মা'ন্তিক হচ্ছে, মঙ্গলবার নিউইয়র্কে একদিনেই মা'রা গেছেন পাঁচ প্রবাসী বাংলাদেশি।

যুক্তরাষ্ট্রে ৯ বাংলাদেশির মৃ'ত্যু

মঙ্গলবার নিউইয়র্কের এলমাস্ট হাসপাতাল ও প্লেইনভিউ হসপিটাল নর্থওয়েলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করো'নায় আক্রান্ত পাঁচ বাংলাদেশি মা'রা যান। এদের তিনজন নারী এবং দুজন পুরুষ। এদের মধ্যে মাত্র তিনজনের পরিচয় পাওয়া গেছে।

এলমাস্ট হাসপাতালে যারা মা'রা গেছেন তারা হলেন আব্দুল বাতেন (৬০), নূরজাহান বেগম (৭০) এবং ৪২ বছরের আরও এক নারী।

আর প্লেইনভিউ হসপিটাল নর্থওয়েলে মা'রা গেছেন এ টি এম সালাম (৫৯)। দুই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের হিউম্যান রিসোর্স এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এছাড়া অ'পর একটি সূত্রে জানা যায়, নিউইয়র্ক ওজন পার্কের জসিম উদ্দিন আহমেদের স্ত্রী' মা'রা গেছেন করো'নাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে।

আব্দুল বাতেনের বাড়ি নোয়াখালী জে'লার সুনাইমুড়ি। তিনি ব্রুকলিনে বসবাস করতেন।

অন্যদিতে মৃ'ত ৪২ বছরের নারীর বাড়ি মৌলভীবাজার জে'লায়। তিনি এস্টোরিয়ায় বসবাস করতেন। রংপুরের এ টি এম সালাম ছিলেন ওয়েস্টর বে লং ল্যান্ড এলাকায় থাকতেন। নূরজাহান বেগমের বাড়ি ঢাকার মোহাম্ম'দপুরে। তিনি থাকতেন নিউ ইয়র্কের এলমাস্ট এলাকায়।

এ নিয়ে করো'নায় নিউইয়র্কে এ পর্যন্ত ৯ বাংলাদেশি প্রা'ণ হারালেন।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৩ মা'র্চ মা'রা গেছেন ৩৮ বছরের আমিনা ইন্দ্রালিব তৃষা এবং ৬৯ বছরের মোহাম্ম'দ ইসমত। তার আগের আগের সপ্তাহে মা'রা গেছেন মোতাহের হোসেন ও মোহাম্ম'দ আলী নামের দুজন বাংলাদেশি।

যুক্তরাজ্যে করো'নায় ৫ বাংলাদেশির মৃ'ত্যু

লন্ডনে করো'নাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মঙ্গলবার সকালে খসরু মিয়া নামের এক প্রবসী বাংলাদেশি মা'রা গেছেন বলে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার হচ্ছে । তবে মৃ'তের পরিবার থেকে এখনো নিশ্চিত হওয়াযায়নি। শুনাগেছে তিনি দীর্ঘদিন যাবত কিডনি সমস্যায় ভুগছিলেন । তিনি সম্প্রতি অ'সুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। তার বয়স হয়েছিল ৪৯ বছর। তিনি পেশায় ব্যবসায়ী ছিলেন। তিনি সুনামগঞ্জ জে'লার জগন্নাথপুর উপজে'লার শাহারপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন।

এ নিয়ে যুক্তরাজ্যে কোভিড-১৯ ভাইরাসে সর্বমোট পাঁচ বাংলাদেশি মা'রা গেলেন।

মঙ্গলবার একই হাসপাতালে হাজি জমসেদ আলী (৮০) নামের আরেকজন বাংলাদেশি মৃ'ত্যুবরণ করেন। হাজি জমসেদ আলীও পূর্ব লন্ডনের বাঙালি অধ্যুষিত হোয়াইট চ্যাপেলের সেটেলস স্ট্রিট এলাকায় বসবাস করতেন। তার গ্রামের বাড়ী সিলেটের বিয়ানীবাজারে।

যুক্তরাজ্যে করো'নাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃ'ত্যুবরণকারী প্রথম ব্যক্তি ছিলেন ম্যানচেস্টারে বসবাসরত ৬০ বছর বয়সী এক বাংলাদেশি। তিনি পাঁচ থেকে ছয় বছর আগে ইতালি থেকে এসে স্থায়ীভাবে বসবাস করছিলেন ব্রিটেনে।

দ্বিতীয় বাংলাদেশি মৃ'ত্যুবরণ করেছেন লন্ডনের বাঙালি অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটসে। করো'নাভাইরাসের সঙ্গে হাসপাতালে আটদিন যু'দ্ধ করার পর পূর্ব লন্ডনের রয়েল লন্ডন হাসপাতালে মৃ'ত্যুবরণ করেন ৬৬ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি।

তৃতীয় বাংলাদেশি মৃ'ত্যুবরণ করেছেন যুক্তরাজ্যে সফররত এক বাংলাদেশি। লন্ডনের গ্রেট অরমন্ড হাসপাতালে তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন।

এছাড়া ইতালির মিলানে গত ২০ মা'র্চ করো'নাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মা'রা যান এক বাংলাদেশি। পাসপোর্টের তথ্য অনুযায়ী, তার বয়স ৫০ হলেও ঘনিষ্ঠজনেরা জানান, প্রায় ৬০ বছর বয়সী ছিলেন ওই ব্যক্তি।