বিয়ানীবাজারের দুখু মিয়া, যিনি এখনো ৩৫ টাকায় বিক্রি করেন পেয়াজ

টাইমস ডেস্কঃ করো’না ভাই’রাসের অজুহাত দেখিয়ে গত কয়েকদিন থেকে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট চালু করে পেয়াজসহ নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। প্রতিকেজি পেয়াজ এখন বিক্রি হচ্ছে সর্বনিম্ন ৬০ টাকায়। তবে সেক্ষেত্রে ভিন্ন সিলেটের বিয়ানীবাজার পৌরশহরের মুফসসিল মা’র্কে’টের লাকি স্টোরের স্বত্ত্বাধিকারি দুখু মিয়া। বাজার সিন্ডিকেট তৈরি না করেই এখনো ৩৫ টাকা দরে প্রতি কেজি পেয়াজ করছেন তিনি। আর তার এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

যেখানে অন্য ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে বেশি দামে পেয়াজ বিক্রি করছে সেখানে কেন এত কম দামে পেয়াজ বিক্রি করছেন, জানতে চাইলে ব্যবসায়ী দুখু মিয়া বলেন, মানবিক কারণে এই উদ্যোগ নিয়েছি। সারা বিশ্বে এখন করো’না ভাই’রাস ছড়িয়ে পড়েছে। আমাদের দেশেও এই রোগ হানা দিয়েছি। এই পরিস্থিতিতে কিছু কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী মানুষকে জি’ম্মি করে বাজারে সিন্ডিকেট চালু করে বেশি দামে জিনিসপত্র বিক্রি করছে। এসব দেখে আমা’র অনেক খা’রাপ লেগেছে। করো’না ভাই’রাসে যদি সারাদেশ আক্রান্ত হয়, তাহলে আমি কি বাদ পড়বো? এমন ভাবনা থেকেই আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে কেনা দাম থেকে কম দামে পেয়াজ বিক্রি করার।

জানা গেছে, রোববার (২২ মা’র্চ) সকাল থেকেই কম দামে পেয়াজ বিক্রি শুরু করেন দুখু মিয়া। প্রতিকেজি পেয়াজ ৩৫ টাকাগ এমন খবরে ক্রেতারা সকাল থেকে তার দোকানের সামনে ভিড় করেছেন। তবে সকল ক্রেতাকেই ২ কেজি করে পেয়াজ দিচ্ছেন এই ব্যবসায়ী। প্রথম দফায় তিনি ৬০-৮০ বস্তা পেয়াজ বিক্রি করেছেন। বাজারদরের চেয়েও কম দামে পেয়াজ বিক্রির এ কার্যকম চলমান রাখবেন বলে জানিয়েছেন দুখু মিয়া।ব্যবসায়ী দুখু মিয়ার এমন উদ্যোগ এবারই নতুন নয়। প্রাকৃতিক দু’র্যোগ ব’ন্যাসহ বিভিন্ন দুঃসময়ে অসহায় ও ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের পাশে দাড়িয়েছেন তিনি। বিনামূল্যে চাল, ডালসহ খাদ্য তুলে দিয়েছেন তাদের হাতে।