বড়লেখায় করো'না ভাইরাস আতংকে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত

বড়লেখা প্রতিনিধি:মৌলভীবাজারের বড়লেখায় করো'না ভাইরাস আতংকে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় চরম বিপর্যয় নেমে এসেছে।

কি করলে নিজের এবং পরিবারের লোকজনদের নিরাপদ রাখা যাবে এমন ভাবনাই ঘুরপাক খাচ্ছে এখানের মানুষের মধ্যে। করো'না ভাইরাস সংক্রামক থেকে দূরে থাকার পরাম'র্শমুলক সরকারী-বেসরকারী প্রচার-প্রচারনা, টেলিভিশনের সংবাদ, ট'কশো এবং সামামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে দেয়া ষ্ট্যাটাস সাধারণ মানুষকে বিচলিত করে তুলেছে।

বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে করো'না ভাইরাস প্রতিরোধে বিভিন্ন ধরনের আদেশ উপদেশ এখন সাধারণ মানুষকে কিংকর্তব্যবিমুঢ় করে তুলেছে। কতদিন এ অবস্থা চলতে থাকবে এবং কখনোই বা এ অবস্থা থেকে মানুষ মুক্তি পাবে এ প্রশ্নই এখন ঘুরপাক খাচ্ছে সর্বত্র। ইতিমধ্যেই দেশের অন্যান্য এলাকার ন্যায় এ উপজে'লায় সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। পাশাপাশি সবর ধরনের সভা-সমাবেশ, গণ সংযোগ, জমায়েত, বৃহৎ পরিসরে ধ'র্মীয় ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, কমিউনিটি সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে সরকারীভাবে।

সর্বক্ষেত্রে এখন সাধারণ মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় প্রধান অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে করো'না ভাইরাস আতংক। আর এ বিষয়টিকে পুঁজি করে একশ্রেনীর মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে কিছু মনগড়া মন্তব্য পোষ্ট করে মানুষের মধ্যে আতংক ছড়াতে ব্যস্ত হয়ে উঠেছে। করো'না ভাইরাসের চেয়ে মানুষের কাছে বেশী ভ'য়াবহ হয়ে উঠেছে আতংক ছড়াতে ব্যস্ত থাকা এসব ফেইসবুক ব্যবহারকারীরা। করো'না ভাইরাস নিয়ে মনগড়া অ'পব্যখ্যাকারীদের এসব রসালো মন্তব্য আমলে না নেয়াই শ্রেয় বলে মনে করছেন অ'ভিজ্ঞমহল।

অ'পরদিকে, এসব ফেইক আইডি ব্যবহারকারীদের অ'পপ্রচারে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমুল্যের লাগাম ছিড়তে বসেছে। কয়েকদিনের ব্যবধানেই চাল-ডাল, চিনি, পেঁয়াজ-রসুণসহ বেশ কিছু দ্রব্যমুল্যের দাম বাড়তে শুরু করেছে। বিষয়টি মহামা'রি আকার ধারন করার আগেই লাগাম টেনে ধরেছে এখানের প্রশাসন।

বাজার মনিটরিং করে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে শহরের বেশ কটি দোকান মালিকের বি'রুদ্ধে জরিমানা করা হলে মুল্যবৃদ্ধি অনেকটাই থেমে যায়।

এরপরও শহরের চিহ্নিত কতিপয় ব্যবসায়ী দাম বাড়ানোর জন্য ওঁৎ পেতে আছে। এদিকে, করো'না ভাইরাসের ভ'য়ে ঘর ও বাড়ির আঙ্গিনাতেই আ'ট'কে গেছে প্রায় সিংহভাগ মানুষের জীবন। খুব বেশী প্রয়োজন ছাড়া মানুষ বাইরমূখী হচ্ছেন না। শহর ও গ্রাম্য হাট-বাজার যেখানে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মানুষের সমাগম ছিল বর্তমানে এসব স্থানের চিত্র আমুল পাল্টে গেছে। রবিবার এমন চিত্রই ফুটে উঠেছে বড়লেখা পৌর শহরে। অফিস-আ'দালতেও জন সমাগম ছিল অ'ত্যন্ত কম। এ যেন এক অন্য জগতে প্রবেশ করতে চলছে এখানকার মানুষ।

এ বিষয়ে বড়লেখা উপজে'লা নির্বাহী কর্মক'র্তা শামীম আল ইম'রান বলেন,বড়লেখায় প্রবাস থেকে যারাই দেশে ফিরছেন তাদের আম'রা হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠাচ্ছি। পাশাপাশি বড়লেখার সর্বস্তরের জনসাধারণকে করো'না ভাইরাস নিয়ে সচেতন করছি।কেউ যাতে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হন সেই বিষয়ে অনুরোধ জানাচ্ছি।ব্যবসায়ীরা যাতে এই সুযোগে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম না বাড়াতে পারে সেজন্য আম'রা নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছি।