নবীগঞ্জের ইভার আকুতি ‘আম্মা গো আমা'রে দেশে নেও, সৌদির অবস্থা একেবারে খা'রাপ’

“আম্মা গো আমা'রে দেশে নেও, সৌদির অবস্থা একেবারে খা'রাপ। বেটিনতে কালি কান্দে, (নারীরা শুধু কাঁদে)। দেশে থাকতে ইন্টারনেটে যে দেখতাম সৌদিতে মানুষরে মা'রে, বেইজ্জত করে (নারীদের যৌ'ন নি'র্যাতন করে), বাংলাদেশে থাকতে ইন্টারনেটের দেখা সকল দৃশ্যই বাস্তব, কিছুই ভূল নায়।

অফিসে দিনের পর দিন যায়, রাইতের পর রাইত যায়, কেউ খানি (খাবার) দেয় না। দালালরা কয় (বলে) তোম'রারে ২ লাখ টেকা (টাকা) দি তোম'রারে কিইন্না (কিনে) আনছি। বাংলাদেশের অফিস থাকি কল দিয়া কয় আম'রারে মা'রার লাগি, মাগনা আনছি নি, টেকা দি কিইন্না আনছি। একটা পুয়া যে মাইর মা'রছে গো আম্মা, পরে কইছি আমা'রে যা কইবে তা করমু। পরে আমা'রে দিয়া ভিডিও করাইয়া দেশে দিছে। আম্মাগো আমা'রে বাচাঁও, সালামের লগে যোগাযোগ করো। আমা'রে দেশে নেও।”

নবীগঞ্জের ইভা বেগমের টেলিফোনে কথোপকথন এটি। এভাবেই সৌদি থেকে বাংলাদেশী নারী শ্রমিক ইভা বেগম দেশে ফেরার জন্য স্বজনদের সাথে মোবাইল ফোনে আলাপকালে আকুতি জানাচ্ছেন।

ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় স্থানীয় দালালের মাধ্যমে প্রায় ৩ মাস পূর্বে ম'রুর দেশ সৌদি আরবে পাড়ি জমান নবীগঞ্জের এই নারী। কিন্তু সেখানে যাওয়ার পর তাকে বিক্রি করে দেয় দালালরা। এরপর থেকেই শুরু হয় তার উপর শারীরিক ও মানসিক নি'র্যাতন। সুযোগ পেলেই কল দিয়ে দেশে থাকা স্বজনদের কাছে আকুতি জানায় দেশে ফেরানোর জন্য।

নি'র্যাতনের শিকার ইভা বেগম নবীগঞ্জ উপজে'লার বড় ভাকৈর গ্রামের নূর হোসেনের স্ত্রী'। বার বার মানবপাচারকারীর বাড়ী গিয়েও স্ত্রী'কে ফেরত আনতে না পেরে হতাশ স্বামী নূর হোসেন হবিগঞ্জ মানব পাচার ট্রাইব্যুনালের মা'মলা দায়ের করেছেন তিনি।

মা'মলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, নূর হোসেনের বাড়ীতে প্রায়ই যাতায়েত করতো তাদের পূর্ব পরিচিত নবীগঞ্জ উপজে'লার বাউসা টুনাকান্দি গ্রামের সালাম মিয়া। আসা যাওয়ার সুবাধে ইভা বেগমকে প্রায়ই মোটা অংকের টাকার লো'ভ দেখাত। বিদেশ গেলে পরিবারের আর কোন অভাব অনটন থাকবে না বলেও প্রলো'ভন দেখাত সালাম। দালাল চক্রের পাল্লায় পড়ে গেল বছরের ২৮ ডিসেম্বর ম'রুর দেশ সৌদি আরবে পাড়ি জমায় ইভা বেগম। কে জানতো সেখানে গিয়ে তার হাসি পরিণত হবে কা'ন্নায়। ইভার বেলায় সেটাই ঘটেছে।

সূত্রে জানা গেছে – সালাম মিয়া ভ্যালি ইন্টারন্যাশনাল নামের রাজধানীর এক ট্যাভেল্স এজন্সির মাধ্যমে দুই শি'শু সন্তানের জননী ইভা বেগম কে নারী কর্মি হিসেবে সৌদি আরব পাঠায়। কিন্তু তার স্বপ্ন চুরমা'র করে দিয়েছে দালাল চক্র। চাকরির পরিবর্তে তাকে বিক্রি করা হয়েছে অন্য এক দালাল চক্রের কাছে। সেখানে দালাল চক্রের সদ্যসদের কথা মতো অ'নৈতিক কাজ না করলে তার উপর চালানো হয় শারীরিক ও মানসিক নি'র্যাতন। মোবাইল ফোনে ইভা বেগম দেশে থাকা স্বজনদের কাছে নি'র্যাতনের বর্ণনা দেন এবং থাকে দ্রুত দেশে ফেরাতে আকুতি জানান। নির্যাতিত ইভা বেগমের স্বামী নূর হোসেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ গ্রাম্য শালিস বিচারদের কাছে বিষয়টি জানালেও কারো ডাকে সাড়া দেয়নি সালাম।

নূর হোসেন জানান- তিনি পেশায় একজন গাড়ী চালক। তাকে না জানিয়েই দালালদের পাল্লায় পড়ে হঠাৎ শশুর বাড়ী গিয়ে সেখান থেকে সৌদি পাড়ি জমায় তার স্ত্রী' ইভা। নূর হোসেনের অ'ভিযোগ- স্ত্রী'কে দেশে ফেরাতে বললে নারী পাচারকারী সালাম ও জাহাঙ্গীর উল্টো ২ লক্ষ টাকা দাবি করছে। এ ঘটনায় তিনি ৩ জনকে আসামী করে হবিগঞ্জ মানব পাচার ট্রাইব্যুনালের মা'মলা দায়ের করেছেন। মা'মলার অন্য আসামীরা হলো- উপজে'লার লতিবপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর মিয়া, প্রজাতপুর গ্রামের মামুন মিয়া।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজে'লা নির্বাহী কর্মক'র্তা বিশ্বজিত কুমা'র পালের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান- নি'র্যাতনের শিকার ইভা বেগমের পরিবারের পক্ষ থেকে যদি কেউ তথ্যসহ অ'ভিযোগ দেয় প্রশাসন তাকে দেশে ফেরাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে এবং দালালদের ব্যবস্থা নেয়ারও আইন রয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে গ্রামে গ্রামে গিয়ে কিছু স্থানীয় দালালরা সহ'জ সরল নারীদের প্রলো'ভন দিয়ে সৌদিসহ মধ্যপাচ্যের বিভিন্ন দেশে পাঠায়। সেখানে গিয়ে তাদের উপর শুরু হয় নানা নি'র্যাতন। এসব দালালদের তালিকা করে তাদেরকে আইনের আওতায় আনার দাবী সচেতন মহলের।