পাপিয়ার পর আলোচনায় খুলনার সাদিয়া মুক্তা

খুলনায় মহিলা শ্রমিক লীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক সাদিয়া আক্তার মুক্তাকে চার দিনের রি'মান্ডে নিয়েছে পু'লিশ। বৃহস্পতিবার (১২ মা'র্চ) মহানগর হাকিম আমিরুল ইস'লাম এই রি'মান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে গত ৯ মা'র্চ রাতে নগরীর হরিণটানা এলাকার নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রে'ফতার করা হয়। এসময় পু'লিশ ওই বাড়ি থেকে ১২ ভরি সোনা ও নগদ দুই লাখ ৮২ হাজার টাকা উ'দ্ধার করে।

জানা যায়, স্থানীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে কেন্দ্র থেকে খুলনা মহানগর মহিলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ বাগিয়ে এনেছিলেন সাদিয়া মুক্তা। রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হওয়ার পর তিনি আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলেন। পরে দলীয় পদ-পদবি ব্যবহার করে অ'প'রাধী চক্রের সাথে জড়িয়ে রাতারাতি কোটিপতি হয়ে যান।

তার বাবা আলতাফ সরদার একসময় নগরীর সোনাডাঙ্গা এলাকায় মুদি দোকানের ব্যবসা করতেন। স্বামী শুকুর আলী প্লট ও জমির ব্যবসা করতেন। সেই অবস্থা থেকে সাদিয়া খুলনায় বহুতল ভবন, বিলা'শ বহুল ফ্লাট ও রেস্টুরেন্টের মালিক হয়েছেন। পু'লিশের প্রাথমিক ত'দন্তে এসব তথ্য জানা গেছে। তবে নানা অ'ভিযোগের পর ২০১৯ সালের ৩১ জুলাই তাকে দলীয় পদ থেকে বহিস্কার করা হয়।

খুলনা মেট্রোপলিটন পু'লিশের অ'তিরিক্ত উপ-কমিশনার শেখ মনিরুজ্জামান মিঠু জানান, গত ২৪ জানুয়ারি নগরীর বাবু খান সড়কের কাজী মঞ্জুরুল ইস'লামের বাড়ি থেকে প্রায় ৫০ ভরি স্বর্ণালংকার, নগদ অর্থসহ প্রায় ২৯ লাখ টাকার মালামাল চু'রি হয়। এ ঘটনায় পু'লিশ চো'র সিন্ডিকে'টের কয়েকজনকে গ্রে'ফতার করলে তারাই চো'রাচালানের হোতা হিসেবে সাদিয়ার নাম বলে। পরে তার বাড়ি থেকে চু'রি যাওয়া স্বর্ণালংকার উ'দ্ধার করা হয়।

কেএমপির অ'তিরিক্ত উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) মোহাম্ম'দ এহসান শাহ বলেন, সাদিয়া গ্রে'ফতারের পর থেকেই তার স্বামী পলাতক রয়েছে। তবে পু'লিশ চক্রটির সব সদস্যকে গ্রে'ফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে। সৌজন্যঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন