একসঙ্গে ‘দুই স্বামী’ যুব মহিলা লীগ নেত্রীর, ফেনসিডিল খাওয়ার দৃশ্য ভাই'রাল

এক যুবকের বি'রুদ্ধে প্রে'মের স'ম্পর্ক ও বিবাহের প্রলো'ভন দেখি ধ'র্ষণ মা'মলা করেছেন স্থানীয় যুব মহিলা লীগ নেত্রী নাসিমা আক্তার ওরফে নাসরিন। বুধবার (০৪ মা'র্চ) ওই মা'মলা করার পর সামাজিকমাধ্যমে নাসরিনের বি'রুদ্ধে নানা তথ্য প্রকাশ হচ্ছে। শুক্রবার (০৬ মা'র্চ) তার একত্রে দুই স্বামীর সংসার করার তথ্য প্রমাণ ও ফেনসিডিল খাওয়ার ছবি ভাই'রাল হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে টঙ্গির স্থানীয় সংবাদমাধ্যমসহ জাতীয় পর্যায়ের একাধিক সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশ করা হয়েছে। দেশের প্রথম সারির অন্তত দুটি সংবাদপত্রের অনলাইনেও খবর প্রকাশ করা হয়েছে।

ওইসব খবরে বলা হয়েছে, টঙ্গীর ব্যাপক আ'লোচিত-সমালোচিত যুব মহিলা লীগ নেত্রী একই সাথে দুই স্বামীর সংসার করতেন। গত বুধবার রাতে দ্বিতীয় স্বামীর বি'রুদ্ধে ধ'র্ষণের মা'মলা দিলেও এখনো কারোর সাথে তার ছাড়াছাড়ি হয়নি।

খবরে বলা হয়েছে, মা'মলার আর্জিতে তিনি দ্বিতীয় স্বামীকে তার প্রে'মিক বলে দাবি করেছেন। একটানা দীর্ঘ দশ বছর তাদের মধ্যে প্রে'মের স'ম্পর্ক ছিল এবং তাকে বিবাহ করার আশ্বা'স দিয়ে ধ'র্ষণ করা হতো বলে তিনি মা'মলার আর্জিতে দাবি করেন।

কিন্তু স্থানীয় এক সাংবাদিক নাসরিনের ঘটনা নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ফাঁ'স করে দেয় বলে খবরে উল্লেখ করে বলা হেয়ছে, ওই সাংবাদিক নিজের ফেসবুক পেজে ওই নেত্রীর দ্বিতীয় স্বামীর সাথে বিবাহের হলফনামা প্রকাশ করে। এতে এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়।

বুধবার পর'কী'য়া প্রে'মিকসহ ৫ জনের বি'রুদ্ধে ধ'র্ষণের অ'ভিনব অ'ভিযোগে থা'নায় মা'মলা দিয়ে আলোচনায় আসেন ওই নেত্রী। টঙ্গী পূর্ব থা'নায় দায়েরকৃত আ'লোচিত ধ'র্ষণ মা'মলার (নং-১১) প্রধান আ'সামি স্থানীয় ৪৬ নম্বর ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি পদের প্রার্থী আলী আসগর। মা'মলার বাদী আ'লোচিত নাসিমা আক্তার ওরফে নাসরিন স্থানীয় একজন যুবলীগ নেতার স্ত্রী'র সাথে ওয়ার্ড যুব মহিলা লীগের সভাপতি পদে ল'ড়ছেন।

এদিকে ফাঁ'স হওয়া একটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে, নাসরিন একটি রাজকী'য় খাটে বসে ফেনসিডিল খাচ্ছেন। আরেকটি ছবিতে তাকে একজন কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগ নেত্রীর সাথে সেলফি তুলতে দেখা গেছে।

ফাঁ'স হওয়া হলফনামায় দেখা গেছে, নাসিমা ও তার পর'কী'য়া প্রে'মিক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আলী আসগর বিগত ২০১৬ সালের ২৪ জুন নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে তাদের বিবাহের হলফনামা সম্পাদন করেন।

এ বিষয়ে নাসিমা আক্তার নাসরিনের বক্তব্য নেয়ার জন্য সময় নিউজের পক্ষ থেকে শুক্রবার (০৬ মা'র্চ) রাত ৯টার দিকে তার মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দেয়া হলে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।