ক্যান্সার নয়, এইডস নয়, বাঙালির দুরারোগ্য অ'সুখের নাম ‘হিং'সা’

বর্তমানে আম'রা যে সমাজে বসবাস করছি যেখানে টাকা হলো ন্যায্যতা, সাম্যতা ও মানবিক মূল্যবোধের পরিমাপক। আর এই অকার্যকর ও ভুল ধারণাকে মনে ধারণ করে আম'রা সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। ফলাফল ব্যক্তিগত এবং সামাজিক সমস্যা সৃষ্টি।

যে ধন-সম্পত্তি, সোনা-দানা, বাড়ি-গাড়ি অর্জনের জন্য এতো লো'ভ ও হিং'সা করছি, এই লো'ভ আর হিং'সার একমাত্র উদেশ্য হলো সুখ অর্থাৎ সুখে থাকা। কিন্তু আসল কথা হলো-যেটা আম'রা বেশিরভাগ মানুষ বুঝি না যে- টাকা-পয়সা, ধন-সম্পত্তি আমাদেরকে সুখ দিতে পারে না। সুখ জিনিসটা আসলে মনের ব্যাপার। এটা অন্য কিছু দিয়ে পাওয়া যায় না। কিন্তু হিং'সার কারণে এসব থেকে আমা'র দিনে দিনে দূরে সরে যাচ্ছি। তাহলে চলুন আজকে যেনে নেই হিং'সা কি?

হিং'সা একটি মা'রাত্মক আবেগ। আসলে, প্রত্যেকেই তাদের জীবনের কোনো না কোনো সময় হিং'সার অ'ভিজ্ঞতা লাভ করে। তবে, সমস্যাগুলো দেখা দেয় যখন হিং'সা স্বাস্থ্যকর আবেগ থেকে অস্বাস্থ্যকর এবং অযৌক্তিক কিছুতে চলে আসে। হিং'সা একটি বিপজ্জনক আবেগ এটি আপনার মন হাইজ্যাক করতে পারে, অন্যের সঙ্গে আপনার স'ম্পর্ক নষ্ট করতে পারে, আপনার পরিবারকে ধ্বংস করতে এমনকি কাউকে প্রা'ণে মে'রে ফেলতেও দ্বিধাবোধ করে না হিংসুক মানুষ। এমনকি আপনার মনের মানুষের সঙ্গে অন্য ছে'লে বা মে'য়ের প্রে'মের স'ম্পর্কও খা'রাপ করে ফেলতে পারে এই হিং'সা। তবুও হিং'সা একটি খুব পুরনো এবং প্রাকৃতিক আবেগ। যেটি যুগ যুগ ধরে চলে আসছে মানুষের মধ্যে। আর এটি বেশি দেখা যায় বাঙালিদের মধ্যেই। কেননা অন্য দেশের মানুষ নিজেকে কিভাবে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে সেটা চিন্তা করে আর বাঙালিরা খুঁজে কিভাবে তার মতো করে হয়ে উঠবে সেটা। আর এ কারণেই তৈরি হচ্ছে হিং'সার মতো আবেগ।

অন্যের অনেক টাকা, দামি বাড়ি-গাড়ি দেখে হিং'সা করছি। তার ক্ষতি কামনা করছি। নিজে অর্জনের চেষ্টা করছি না। পরিশ্রম করছি না। আবার অর্থও যে জীবনের সবকিছু নয় সেই জ্ঞানচর্চাও নিজের ভিতরে নাই। এক নারী অন্য নারীর শাড়ী-গহনা দেখে হিং'সা করছে। আসলে বিভিন্ন টিভি চ্যানেল ও সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রচারিত সিরিয়াল, নাট'ক, সিনেমা দেখে দেখে লাভ কতটুকু হয় সেটা না জানলেও নিজেরাই যে নিজেদের মা'রাত্মক ক্ষতি করছি সেটা হয়তো হওয়ার পরে বুঝতে পারি।

হিং'সার কারণেই অনেক সময়ই নষ্ট হচ্ছে স'ম্পর্কগুলো। যেটি আম'রা কখনো কল্পাও করতে পারি না, কিংবা কখনো আমাদের চিন্তার মধ্যেই আসে না। যেভাবেই হোক হিং'সা আপনার স'ম্পর্কের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। আপনি হিংসুকের অংশীদার হন বা আপনার স্ত্রী' যদি খুব হিংসুটে হয় তাহলে অযৌক্তিক এবং অ'তিরিক্ত হিং'সা অবশেষে আপনার দাম্পত্য স'ম্পর্ককে ধ্বংস করতে পারে।

একে অন্যের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করার বিষয়টি বদভ্যাসের অন্তর্ভুক্ত। লো'ভ মানুষের অধপতনের অন্যতম কারণ হিসেবে পরিনত হয়। যেহেতু লো'ভ একটি নৈতিক ক্রুটি, তাই এই বিষয়টি সর্ম্পকে জানা প্রয়োজন। লো'ভ মানুষের জীবন থেকে সুখ কেড়ে নেয়।

কেউ কি তাদের বন্ধুত্বের স'ম্পর্ক হারাতে চায়? উত্তরে আসবে ‘না’। কারণ বন্ধুত্ব হলো পৃথিবীর সবথেকে মধুর স'ম্পর্কের মধ্যে একটি। কিন্তু এই হিং'সার কারণে অনেকেই দূরে সরে যায় এই মধুর স'ম্পর্ক থেকে। এক বন্ধু আরেক বন্ধুর থেকে একটু ভাল হলেই জীবনে কোন না কোন সময় কথা উঠে সেটি নিয়ে। হয়তো কথার বক্তা নিজেই বুঝে না ভাল হওয়ার কারণেই তার হিং'সা হচ্ছে। আর সঙ্গে নিরাপত্তাহীনতা তো আছেই।

এক ডাক্তার অন্য ডাক্তারকে হিং'সা, এক ব্যবসায়ী অন্য ব্যবসায়ীকে হিং'সা, এক লেখক অন্য লেখককে হিং'সা, বিরোধী দল সরকারকে হিং'সা, এক নায়ক অন্য নায়ককে হিং'সা, ভাইয়ে ভাইয়ে হিং'সা, সমাজে সমাজে হিং'সা, এক মন্ত্রী অন্য মন্ত্রীকে হিং'সা, হিং'সার শেষ নাই। হিং'সা সেই আদিকাল থেকেই আমাদের গ্রাস করে আছে। হিংসুক লোক জীবনে কখনো শান্তি পায় না।

যেকোন কিছুতে প্রতিযোগীতা থাকা ভাল, কিন্তু হিং'সা নয়। কারণ প্রতিযোগীতা নিজেকে আরো ভালোর দিকে ঠেলে দেয় আর হিং'সা ঠেলে দেয় নোংরামি আর মৃ'ত্যুর দিকে।