বিএনপির মিছিলে পু'লিশের লা'ঠিপে'টা, রিজভী আ'হত

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বি'রুদ্ধে দায়ের করা মা'মলাকে মিথ্যা মা'মলা আখ্যায়িত করে তা প্রত্যাহার দাবিতে আয়োজিত মিছিলে লা'ঠিপে'টা করেছে পু'লিশ। এতে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আ'হত হয়েছে।

গণমাধ্যমে পাঠানো প্রেস বি'জ্ঞপ্তিতে এই দাবি করা হয়েছে দলের পক্ষ থেকে।

বি'জ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিএনপি ও এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে আজ শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টায় মিরপুর কাঁচাবাজারে বি'ক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করা হয়। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভীর বক্তব্যের পরপরই মিছিল শুরু হলে পু'লিশ অ'তর্কিতে ব্যাপক লা'ঠিচার্জ শুরু করে।

এতে মিছিলে নেতৃত্বে থাকা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী, ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আমিনুল হক, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহ-সভাপতি কাজী রওনকুল ইস'লাম শ্রাবণ, সহ-সভাপতি ওম'র ফারুক কাউসার এবং ছাত্রদল ঢাকা কলেজ শাখার সহ-সভাপতি সাইফুল ইস'লাম তুহিনসহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী গুরুতর আ'হত হন।

লা'ঠিপে'টার আগে রিজভীর নেতৃত্বে বিএনপির মিছিল।

মিছিলে পু'লিশের হা'মলার তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ধিক্কার জানিয়ে রিজভী বলেন, পু'লিশের এই হা'মলা রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের এক ন'গ্ন উদাহ'রণ। পু'লিশের এ ধরনের ন্যাক্কারজনক কর্মকা'ণ্ডে এটি পরিষ্কার, বাংলাদেশ নামক স্বাধীন দেশের পু'লিশ এখন দলীয় কর্মীতে পরিণত হয়েছে। দেশকে বানানো হয়েছে পু'লিশি রাষ্ট্র। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর নির্ভর করেই বর্তমান অ'বৈধ শাসকগোষ্ঠী গায়ের জো'রে জনগণের শোষকে পরিণত হয়েছে। তিনি পু'লিশি হা'মলায় আ'হতদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করেন এবং এ ধরনের হা'মলায় মনোবল না হারিয়ে আরো শক্তি নিয়ে বর্তমান সরকারের বি'রুদ্ধে প্রতিবাদী হওয়ার আহ্বান জানান।

এর আগে মিছিলপূর্ব পথসভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে রিজভী বলেন, ‘দেশনেত্রী খালেদা জিয়া বর্তমানে ভ'য়ানক অ'সুস্থ। তাঁর ডায়াবেটিস সম্পূর্ণ অনিয়ন্ত্রিত। খালি পেটেই ১৫ থেকে ২০ এর মধ্যে ডায়াবেটিস উঠানামা করছে। তিনি কিছুই খেতে পারছেন না, দাঁড়াতে পারছেন না। এই অবস্থায় তাঁকে জরুরি ভিত্তিতে মুক্তি দিয়ে তাঁর সুচিকিৎসা করা না গেলে যেকোন সময় অনাকাঙ্খিত কিছু ঘটে যাওয়ার আশ'ঙ্কা করা হচ্ছে। কিন্তু দুর্ভাগ্য, দেশনেত্রীর মুক্তি ও সুচিকিৎসা নিয়ে দল এবং তাঁর পরিবার-পরিজনদের দাবিকে কোনো পাত্তা দিচ্ছে না সরকার। দেশবাসী মনে করে যে, খালেদা জিয়াকে তিল তিল করে নিঃশেষ করতেই বর্তমান সরকার ও সরকারপ্রধান উঠেপড়ে লেগেছে। দেশবাসী আরো মনে করে যে, দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসবে না। তাঁর মুক্তি ব্যতিরেকে মানুষের ভোটের অধিকারসহ সকল গণতান্ত্রিক অধিকার কবরস্থ হয়েই থাকবে।

রিজভী আরো বলেন, খালেদা জিয়াকে কারাব'ন্দি করা হয়েছে অন্যায়ভাবে সাজানো মা'মলায়। বেআইনী শাসকগোষ্ঠী ‘গণতন্ত্রের প্রতীক’ দেশনেত্রীকে কারাগারে আ'ট'কে রেখেছে কেবল তাদের ব্যর্থতা, অনাচার ও দুঃশাসনের বি'রুদ্ধে যাতে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস না পায়। জনগণের দরকার নেই বরং জনগণকে ভ'য় দেখিয়ে চিরকাল রাষ্ট্রক্ষমতা দখলে রাখার জন্যই গু'ম, খু'ন, বিচার বহির্ভূত হ'ত্যা বা র'ক্তপাতের মাধ্যমেই শাসন করা হচ্ছে।

বর্তমান সরকারের দু'র্নীতির বিবরণ দিয়ে রিজভী বলেন, মহাদু'র্নীতি ও অবাধে লুটপাট কার্যকর রাখার জন্যই একদলীয় নব্য বাকশালী শাসন কায়েম করা হয়েছে। প্রতিনিয়ত দেশব্যাপী কেবল হাহাকার ও দীর্ঘশ্বা'সের শোনা যাচ্ছে। জাতিকে ব'ন্দিদশা থেকে মুক্ত করতে এবং হা'রানো গণতন্ত্র ফিরে পেতে ‘গণতন্ত্রের মা’ গণমানুষের প্রিয় নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিকল্প নেই।

এ সময় অবিলম্বে খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান রিজভী।