হবিগঞ্জ

হবিগঞ্জে মামীর ইজ্জত রক্ষা করতে গিয়ে কি’শোর সোহাগ খু’ন হয়

নিউজ ডেস্ক: মামিকে ঘুমের ওষুধ খাওয়াতে রাজি না হওয়ায় হবিগঞ্জের চুনারুঘাট লালচান্দ চা বাগানের সোহাগকে (১৩) হ’ত্যা করা হয়। এ হ’ত্যা মা’মলার প্রধান আ’সামি ফজলু মিয়াকে (২৫) দীর্ঘ আড়াই মাস পর চুনারুঘাট থা’না পু’লিশ গ্রে’প্তার করেছে। তাকে গ্রে’প্তারের পর নানা চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসছে।

শনিবার গভীর রাতে গো’পন সংবাদের ভিত্তিতে উপজে’লার রগুনন্দন রাবার বাগানের গো’পন আস্তানা থেকে ফজলু মিয়াকে গ্রে’প্তার করে পু’লিশ। রোববার বিকালে তাকে আ’দালতের মাধ্যমে জে’লহাজতে পাঠানো হয়।

ফজলু মিয়া উপজে’লার লালচান্দ গ্রামের নবীর হোসেনের ছে’লে।

চুনারুঘাট থা’নার ওসি মো. আলী আশরাফ জানান, গত বছরের ৪ ডিসেম্বর সোহাগকে শ্বা’সরোধ করে হ’ত্যা করে বাঁশবাগানের ধোপাছড়া খালের মধ্যে ফেলে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পু’লিশ তাৎক্ষণিক ঘটনার সঙ্গে জ’ড়িত রঙ্গু মিয়ার ছে’লে রাজু নামের একজনকে আ’ট’ক করে। পরে ৬ ডিসেম্বর সোহাগের মা বাদী হয়ে চুনারুঘাট থা’নায় তিনজনের নাম উল্লেখ করে একটি হ’ত্যা মা’মলা দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা এসআই আবু বকর খান জানান, সোহাগের বাবা হিরণ মিয়া মা’রা যাওয়ার পর থেকে সোহাগের মা আছমা তার সন্তানদের নিয়ে দুবাই প্রবাসী ভাই আল-আমিনের বাড়িতে বসবাস করতেন। মামা প্রবাসে থাকায় সোহাগের মামির প্রতি কুদৃষ্টি পড়ে পাশের বাড়ির তিন যুবকের। যুবকরা কৌশলে সোহাগকে ডেকে নিয়ে বলে তার মামিকে জুসের সঙ্গে ঘুমের ট্যাবলেট খাওয়াতে।

তিনি জানান, সোহাগ তাদের কথায় রাজি না হয়ে তার মা ও মামিকে জানায়। এরপর থেকে আ’সামিরা সোহাগের প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। গত ৪ ডিসেম্বর রাত ১২টায় বিশেষ প্রয়োজনের কথা বলে ঘর থেকে সোহাগকে ডেকে নিয়ে যায় তারা।

এসআই আবু বকর খান জানান, পর দিন ৫ ডিসেম্বর নানাবাড়ির বসতঘরের পশ্চিম দিকে ধোপাছড়া খালের পানিতে গামছা বাঁ’ধা র’ক্তাক্ত অবস্থায় সোহাগের ভাসমান লা’শ পাওয়া যায়। খবর পেয়ে চুনারুঘাট থা’না পু’লিশ লা’শ উ’দ্ধার করে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!