হবিগঞ্জ

হবিগঞ্জে পর'কী'য়া প্রে'মিকাকে ধ'র্ষণের পর হ'ত্যার লোমহর্ষক বর্ণনা

নিউজ ডেস্ক- স্ত্রী'র সামনে পর'কী'য়া প্রে'মিকাকে ধ'র্ষণের পর হ'ত্যা করে ম'রদেহ টিলায় ফেলে দেন আফসার মিয়া ও তার স্ত্রী' রিপা। হবিগঞ্জ আ'দালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানব'ন্দিতে বুধবার ঘটনার লোমহর্ষক বর্ণনা দেন তারা।
সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আ'দালতে তাদের জবানব'ন্দি রেকর্ড করা হয়। সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন হবিগঞ্জের এসপি মোহাম্ম'দ উল্ল্যা।

এসপি মোহাম্ম'দ উল্ল্যা জানান, চলতি বছরের শুরুর দিকে একদিন ঘটনাক্রমে চুনারুঘাট উপজে'লার পাচারগাঁও গ্রামের আব্দুল খালেকের ছে'লে আফসার মিয়া ওরফে কাওছারের স্ত্রী' রিপা বেগমের সঙ্গে শুকলা এবং মিষ্টির পরিচয় হয়। থাকার জন্য মৌলভীবাজার শহরে ভাড়া বাসা খুঁজছিলেন তারা। পরে মিষ্টি ও শুকলাকে নিজের বাসায় সাবলেট থাকার প্রস্তাব দেন রিপা। প্রস্তাবে রাজি হয়ে শুকলা ও মিষ্টি মৌলভীবাজার শহরের চাঁদ মিয়ার ভাড়া বাসায় রিপার ফ্ল্যাটে উঠেন।

কিছুদিন পর শুকলা সেই বাসা ছেড়ে চলে যান। এরই মধ্যে রিপার স্বামী আফসার মিয়ার সঙ্গে মিষ্টির পর'কী'য়ার স'ম্পর্ক গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে অ'নৈতিক স'ম্পর্ক হয়। এ নিয়ে স্বামী আফসার মিয়ার সঙ্গে রিপার স'ম্পর্কের অবনতি ঘটে। পরে রিপা বাবার বাড়িতে চলে যান। ৬ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় রিপাকে ফোন করেন আফসার। তখন মিষ্টিকে মে'রে ফেললে স্বামীর কাছে আসবেন বলে শর্ত দেন রিপা।

মোবাইলে হ'ত্যার পরিকল্পনা করেন তারা। সে অনুযায়ী পর'কী'য়া প্রে'মিকা মিষ্টিকে মৌলভীবাজার থেকে সঙ্গে নিয়ে শায়েস্তাগঞ্জ নতুন ব্রিজে আসেন আফসার। সেখানে স্বামীকে মোবাইলে রিপা বলেন, যদি তুমি মিষ্টিকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দিতে পারো তাহলে আমি তোমা'র সংসার করবো। নয়তো কোনোদিন তোমা'র সংসারে ফিরে যাব না।

এ অবস্থায় মিষ্টিকে হ'ত্যা করতে রাজি হন আফসার। পরিকল্পনা অনুযায়ী নতুন ব্রিজের ফুটপাত থেকে কাঁচি সংগ্রহ করেন আফসার। কাঁচি প্যান্টের পকে'টে লুকিয়ে গাড়িতে করে আফসার, রিপা ও মিষ্টি নিজ বাড়িতে যান। খাওয়া-দাওয়া শেষে পুনরায় মৌলভীবাজার শহরের বাসায় যাওয়ার কথা বলে মিষ্টিকে চুনারুঘাট উপজে'লার রানীগাঁও হাওরের টিলায় নিয়ে যান তারা। টিলায় স্ত্রী' রিপার সহায়তায় মিষ্টিকে ধ'র্ষণ করেন আফসার। পরে স্বামী-স্ত্রী' মিলে মিষ্টির গলায় ওড়না পেঁচিয়ে হ'ত্যা করেন। মৃ'ত্যু নিশ্চিত করার জন্য কাঁচি দিয়ে মিষ্টির গলা কে'টে দেন আফসার। মৃ'ত্যু নিশ্চিত করে মিষ্টির মোবাইল ও ব্যাগ নিয়ে যান তারা। পরে তার ম'রদেহ উ'দ্ধার করে ৮ ফেব্রুয়ারি পু'লিশ বাদী হয়ে মা'মলা করে।

২০ দিন আগে মিষ্টির মা'মলার ঘটনাস্থলের পাশে ফারুক নামে এক ব্যক্তিকে ঢাকা থেকে এনে হ'ত্যাচেষ্টা করা হয়। এই ঘটনার ত'দন্তকালে পু'লিশ জানতে পারে পরিচয় গো'পন করে কাওছার নামে এক ব্যক্তি হবিগঞ্জ সদর হাসপাতা'লে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

পরে পু'লিশ কাওছারের প্রকৃত পরিচয় জানতে পারে। পু'লিশ তথ্য পায় কাওছারের প্রকৃত নাম আফসার। তিনি ঘটনার দিন রাতে স্ত্রী' রিপা বেগমসহ একটি অ'পরিচিত মে'য়েকে নিয়ে পাচারগাঁওয়ে বেড়াতে গিয়েছিলেন। পরে কাওছারের মাকে পু'লিশ জিজ্ঞাসাবাদ করলে জানান, ঘটনার দিন রাতে তার ছে'লে আফসার, পুত্রবধূ ও এক মে'য়েসহ বেড়াতে এসেছিল। পু'লিশ ওই হ'ত্যাকা'ণ্ডে আফসারের জ'ড়িত থাকার বিষয়ে নিশ্চিত হওয়ার পর তাকে গ্রে'ফতার করতে তৎপর হয়।

একপর্যায়ে এক মহিলা পু'লিশ আফসারের সঙ্গে প্রে'মের অ'ভিনয় শুরু করেন। প্রে'মিক আফসার তার প্রে'মিকার সঙ্গে দেখা করতে এলে পু'লিশের জালে ধ'রা পড়েন। পু'লিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি হ'ত্যাকা'ণ্ডের দায় স্বীকার করেন। ভিকটিমের নাম মিষ্টি বলে জানালেও তার প্রকৃত পরিচয় জানেন না বলে জানান। মে'য়েটি মৌলভীবাজার শহরে একটি কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতেন বলে জানান আফসার।

Back to top button