সুনামগঞ্জ

সুনামগঞ্জে দশ মা’মলায় ১৪ শি’শুর ব্যতিক্রমী রায়

নিজস্ব প্রতিনিধি, সুনামগঞ্জ– সুনামগঞ্জে মা’দক, জুয়া, মা’রধরসহ ১০ মা’মলায় ১৪ শি’শুকে ব্যতিক্রমী রায় দিয়েছে জে’লা শি’শু আ’দালত। এসব শি’শুদের সংশোধনাগারে অন্যান্য অ’প’রাধীদের রাখা হবে না।

তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে সাত প্রবেশন শর্তে পারিবারিক বন্ধনে রাখার আদেশ দেওয়া হয়েছে। বুধবার সকালে শি’শু আ’দালতের বিচারক জাকির হোসেন এ রায় দেন।

প্রবেশন অ’পেন্ডারস অরডিন্যান্স ১৯৬০’র ৫ ধারা ও শি’শু আইন ২০১৩’র ৩৪(৬) ধারায় এ রায় দেওয়া হয়। ১৪ শি’শুর প্রত্যেককে এক বছর করে প্রবেশন কর্মক’র্তা ও পরিবারের অধীনে রাখার নির্দেশ দেন বিচারক জাকির হোসেন।

এসব শি’শুদের দেওয়া প্রবেশন শর্তগুলো হলো- মা-বাবার সেবা করা ও নির্দেশ মেনে চলা, নিয়মিত ধ’র্মীয় অনুশাসন, নিয়মিত ধ’র্মগ্রন্থ পাঠ, ২০টি গাছ লাগানো ও পরিচর্যা, অসৎ সঙ্গ ত্যাগ এবং মা’দক সেবন না করা।

শি’শুদের সুস্থ-স্বাভাবিক জীবনের ফেরানোর নজির হয়ে থাকবে এ রায় বলে মন্তব্য করেছেন জে’লার সচেতন মহল।

আ’দালত সূত্রে জানা যায়, মা’দক, জুয়া, মা’রধর, দলবদ্ধ সং’ঘর্ষ, পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁ’স, ধ’’ র্ষ’ ণের অ’প’রাধসহ দশটি পৃথক মা’মলায় এসব শি’শুদের সংশোধনের এ রায় দেওয়া হয়।

দীর্ঘদিন বিচারকার্য শেষে আ’দালতের এ রায়ে শি’শুদের প্রবেশন দেওয়ার উদ্দেশ্য হিসেবে উল্লেখ করা হয়, পারিবারিক বন্ধনে রেখে শি’শুদের সুস্থ স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনা, প্রবেশন কর্মক’র্তা ও অ’ভিভাবকদের তত্ত্বাবধানে রেখে শি’শুরা যেন ভবিষ্যতে অ’প’রাধে না জড়ায় এবং জীবনের শুরুতেই যাতে তাদের অ’প’রাধের কালিমা স্প’র্শ না করে সে জন্য এ রায় দেয়া। এছাড়া সংশোধনাগারে অন্যান্য অ’প’রাধীদের সংস্প’র্শ না থেকে পরিবারের তত্ত্বাবধানে তাদের যাতে মানসিক বিকাশ ঘটে এবং তাদের সার্বিক কল্যাণ সাধন হয় এ উদ্দেশে ব্যতিক্রমী রায়টি দেওয়া হয়েছে।

এই রায়ের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন নারী ও শি’শু নি’র্যা’তন দমন ট্রাইব্যুনালের পিপি নান্টু রায়।

তিনি জানান, প্রতি তিন মাস পর পর আ’দালতে প্রতিবেদন দাখিল করার শর্তে এ রায় দেওয়া হয়েছে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!