সিলেট

সিলেটে ভাই'রাস জ্বরের প্রকোপ,ছড়িয়ে পড়েছে করো'নার আতঙ্ক

ওয়েছ খছরু: করো'নাকালে সিলেটে ঘরে ঘরে ভাই'রাস জ্বরের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। করো'নার সব উপসর্গই রয়েছে এ জ্বরে। সর্দি, মা'থা, শ্বা'সক'ষ্টেও ভুগছেন অনেকেই। এ কারণে সিলেটে শীতের আগে করো'নার ঢেউ নিয়ে নতুন করে শ'ঙ্কা দেখা দিয়েছে। তবে- স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মক'র্তারা বলছেন- মৌসুমী এ জ্বরে আতঙ্কের কিছুই নেই। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চিকিৎসকের পরাম'র্শ মতো ওষুধ সেবন করলেই এ জ্বর থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। এই মুহূর্তে সিলেটের আবহাওয়া বিচিত্র। কখনো প্রখর রোদ, আবার কখনো অঝোর ধারায় বৃষ্টি।

এতে করে ঠাণ্ডা-গরমে ঘুরপাক খাচ্ছে প্রকৃতি। এই অবস্থা গত দুই সপ্তাহ আগে থেকে। এ কারণে সিলেটে জ্বরে আ'ক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে- গত দুই সপ্তাহ ধরে সিলেটে ভাই'রাস জ্বরে আ'ক্রান্ত হয়ে রোগীরা ভর্তি হচ্ছেন। প্রতিদিনই রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। যারা ভর্তি হচ্ছেন তাদের শরীরে অ'তিরিক্ত তাপমাত্রা পরিলক্ষিত হচ্ছে। মা'থা ও শরীর ব্যথা রয়েছে। অনেকেই আবার সর্দি-কাশিতেও আ'ক্রান্ত। চিকিৎসকরা বলছেন, তাপমাত্রা ওঠা-নামা, হঠাৎ গরম ও হঠাৎ ঠাণ্ডা লাগা এবং এবং আবহাওয়া পরিবর্তনজনিত কারণে এ রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এই জ্বর হলে শীত শীত ভাব, মা'থা ব্যথা, শরীরেও ব্যথা, খাওয়ায় অরুচি, ক্লান্তি, দুর্বলতা, নাক দিয়ে পানি পড়া, চোখ দিয়ে পানি পড়া, চোখ লাল হওয়া, চুলকানি, কাশি, অস্থিরতা ও ঘুম কম হতে পারে।

নগরীর তালতলা এলাকার বাসিন্দা আব্দুল কুদ্দুস জানান- তার পরিবারের সব সদস্যই পর্যায়ক্রমে জ্বরে আ'ক্রান্ত হচ্ছেন। এরমধ্যে রয়েছে সর্দি, কাশিও। ফলে করো'না নিয়ে তার পরিবারে ভ'য় বেশি। তবে- জ্বরে আ'ক্রান্তরা ডাক্তারের পরাম'র্শে রয়েছেন। পার্শ্ববর্তী পার্কভিউ মেডিকেল কলেজ হাসপাতা'লে তারা ডাক্তার দেখিয়েছেন। একই অবস্থা মীরাবাজার এলাকার সুমন আহম'দের পরিবারের। একে একে পরিবারের সব সদস্য জ্বরে আ'ক্রান্ত হয়েছেন। ডাক্তারের পরাম'র্শে ওষুধ সেবন করছেন।

সিলেটের ইবনে সিনা, রিকাবীবাজার, মেডিকেল রোড এলাকায় মেডিসিন বিশেষ্ণদের চেম্বারে জ্বরে আ'ক্রান্ত হওয়া রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এসব এলাকার ডাক্তাররা জানিয়েছেন- তাপমাত্রার ওঠা-নামা এবং সিজোনাল কারণে এটা হচ্ছে। সাধারণ রোগীদের প্যারাসিটামল, সর্দি থাকলে এন্টি হিস্টামিন খাওয়াতে হবে। তবে বেশি কাশি এবং শ্বা'সক'ষ্টসহ অন্য কোনো ধরনের জটিলতা থাকলে রোগীকে হাসপাতা'লে ভর্তির পরাম'র্শ দিচ্ছেন। এদিকে- সিলেট শহর এবং গ্রাম সবখানেই রয়েছেন জ্বরে আ'ক্রান্ত রোগী। এ কারণে বিভিন্ন উপজে'লার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করো'নার জন্য যেসব হটলাইন চালু করা হয়েছে সেখানেই রোগীদের যোগাযোগ করার পরাম'র্শ দেয়া হচ্ছে। হটলাইনের মাধ্যমে ডাক্তাররা জ্বরে আ'ক্রান্ত রোগীদের তাৎক্ষণিক পরাম'র্শ দিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি হাসপাতা'লে যেসব ডাক্তাররা আসছে তাদের দেখে চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। স্বাস্থ্য বিভাগের।

কর্মক'র্তারা জানিয়েছেন- এই জ্বরের বিষয়টি তারা মনিটরিং করছেন। জ্বরের প্রকোপ দুই সপ্তাহ ধরে চললেও করো'না রোগী বাড়েনি। গতকালও সিলেটে করো'না আ'ক্রান্তের হার ছিল শনাক্তের বিবেচনায় ১৬ ভাগ। গত এক মাস ধরে একইভাবে রোগীরা শনাক্ত হচ্ছেন। স্বাস্থ্য বিভাগ সিলেটের পরিচালক সুলতানা রাজিয়া জানিয়েছেন- লক্ষণ সুবিধার নয়। ঘরে ঘরে যেহেতু জ্বর, সে কারণে সবাইকে সতর্ক থাকা উচিত। বিশেষ করে ডাক্তারের পরাম'র্শে ওষুধ সেবন করা উচিত। ভাই'রাস জ্বরের প্রকোপের বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ডা. আনিসুর রহমান জানিয়েছেন- এজন্য আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। ডেঙ্গু, জন্ডিসসহ যেকোনো ভাই'রাসজনিত জ্বরকেই ভাই'রাস জ্বর বলা হয়।

ভাই'রাস জ্বর হলে দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই। এ জ্বরের জন্য এন্টিবায়োটিকও জরুরি নয়। এ ব্যাপারে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতা'লের উপ-পরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায় জানিয়েছেন- ‘এটি সিজোনাল ফ্লু। খুবই সতর্ক থাকা প্রয়োজন। প্রয়োজনে করো'না পরীক্ষা উচিত।’

সূত্রঃ মানবজমিন

Back to top button