সিলেট

সিলেটে তরুণীকে ধ র্ষণের পর ভিডিও ফেসবুকে, গ্রে প্তার ১

সিলেটে এক তরুণীকে ধ র্ষণ এবং ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার অ ভিযোগে দুই জনের বি রুদ্ধে মা মলা দায়ের হয়েছে।

মা মলায় আসামী করা হয়েছে নয়াবস্তি এলাকার ইনছান আলীর ছে লে জাফলং পাথর কোয়ারির চিহ্নিত চাঁদাবাজ আলিমুদ্দিন (৩৫) ও একই উপজে লার টেকনাগুল এলাকায় ফয়জুল হকের ছে লে তাহের মিয়ার (২৮) বি রুদ্ধে।

রোববার রাতে মা মলা টি দায়ের করেন ভিকটিম নিজেই। রাতেই ভিকটিমকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতা লের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠায় পু লিশ। মা মলার পর রাতেই তাহের মিয়াকে গ্রে প্তার করলেও পলাতক রয়েছেন আলিমুদ্দিন।

তাকে ধরতে বিভিন্ন স্থানে অ ভিযান অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছেন গোয়াইনঘাট থা নার ওসি আব্দুল আহাদ। আ সামিকে আ দালতে পাঠিয়ে ৪ দিনের রি মান্ড আবেদন জানানো হয়েছে। মঙ্গলবার রি মান্ডের শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

নির্যাতিত নারী অ ভিযোগ করেন, কয়েকদিন আগে তাহের মিয়া তাকে জো রপূর্বক ধ র্ষণ করে ভিডিও ধারণ করে। পরে সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার হু মকি দিয়ে আরও একাধিকবার তাকে ধ র্ষণ করে।

সম্প্রতি তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ফেসবুকে সেই ভিডিও ছড়িয়ে দেয়। এ ঘটনার পর তাহের মিয়ার বোন জামাই জাফলং নয়াবস্তির আলিমুদ্দিনের কাছে বিচার দিতে গেলে আলিমুদ্দিনও তার শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে এবং গ্রাম ছেড়ে চলে যেতে বলে। না হলে প্রা ণে মে রে ফেলার হু মকি দেয়।

গোয়াইনঘাট থা নার ওসি আব্দুল আহাদ যুগান্তরকে জানান, ভিকটিম অ ভিযোগ দেয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তা রেকর্ড করে, পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য ভিকটিমকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতা লে পাঠানো হয়। রাতেই অ ভিযান চালিয়ে প্রধান আ সামি তাহের মিয়াকে গ্রে প্তার করেছে পু লিশ। দ্বিতীয় আ সামি আলিমুদ্দিনকে ধরতে বিভিন্ন স্থানে অ ভিযান চলছে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!