হবিগঞ্জ

শায়েস্তাগঞ্জ উপজে'লার সাবেক ইউএনও’র বি'রুদ্ধে মা'মলা

চ্চ আ'দালতের ঘোষিত ও সংবিধান অনুযায়ী আইন পালন না করায় শায়েস্তাগঞ্জ উপজে'লার সাবেক উপজে'লা নির্বাহী কর্মক'র্তা সুমি আক্তার ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজে'লা স্বাস্থ্য কর্মক'র্তা ডা. মো. সাদ্দাম হোসেনের বি'রুদ্ধে অ'বৈধভাবে ভ্রাম্যমাণ আ'দালত পরিচালনা করে জ'রিমানা আদায় করার কারণে চুনারুঘাট উপজে'লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপ-সহকারি কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার বনজ কুমা'র হালদার মা'মলা দায়ের করেছেন।

গত ১ অক্টোবর হবিগঞ্জের অ'তিরিক্ত জে'লা ম্যাজিস্ট্রেট আ'দালতে এ মা'মলা'টি দায়ের করেন তিনি।

মা'মলার বিবরণ সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের ৩১ মা'র্চ শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা'র পুরান বাজারে একটি ভ্রাম্যমাণ আ'দালত পরিচালনা করেন তৎকালীন নির্বাহী কর্মক'র্তা সুমি আক্তার।

এ সময় তিনি চুনারুঘাট উপজে'লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপসহকারি কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার বনজ কুমা'র হালদারকে প্রেসক্রিপশনে ‘ডাক্তার’ লেখার অ'ভিযোগে ২০ হাজার টাকা জ'রিমানা করেন।

মা'মলার অ'ভিযোগে প্রকাশ, কর্মস্থল চুনারুঘাট উপজে'লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হলেও বনজ কুমা'র হালদার স্ব-পরিবারে বসবাস করেন শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা'র পুরান বাজারে। ওই দিন শায়েস্তাগঞ্জ উপজে'লা স্বাস্থ্য কর্মক'র্তা সাদ্দাম হোসেনের প্র'রোচনায় তার বাসায় ভ্রাম্যমাণ আ'দালত পরিচালনা করেন তৎকালীন উপজে'লা নির্বাহী কর্মক'র্তা সুমি আক্তার। এ সময় তিনি বনজ কুমা'র হালদারকে প্রেসক্রিপশনে ‘ডাক্তার’ লেখার অ'ভিযোগে ২০ হাজার টাকা জ'রিমানা করেন। যা ন্যায় সঙ্গত নয় বরং আইন বহির্ভূত।

মা'মলার বাদী উপসহকারি কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার বনজ কুমা'র হালদার বলেন, ‘করো'নার কারণে কোর্ট বন্ধ ছিলো। যে কারণে মা'মলা'টি দায়ের করতে বিলম্ব হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিডিএম) এর তৎকালীন সভাপতি শামছুল হুদা (বর) ২০১৩ সালে হাই'কোর্টে একটি রীট পিটিশন দায়ের করেন। যার নং- ২৭৩০। ওই রীটের প্রেক্ষিতে বিচারপতি নাঈ'মা খন্দকার ও বিচারপতি জাফর আহম'দ স্বাক্ষরিত আদেশে বলা হয়, ‘রীট নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত বি. এম. এন. ডি. সি কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন প্রাপ্ত ডি. এম. এফ ডিগ্রীধারীদের গ্রে'প্তার করা বা ভ'য় দেখানো যাবে না। এমনকি তাদের বি'রুদ্ধে ফৌজদারি মা'মলাও করা যাবে না।’

তিনি অ'ভিযোগ করে আরো বলেন, ‘রীটটি এখনো নিষ্পত্তি হয়নি। সুতরাং হাই'কোর্টের দেয়া আদেশ অমান্য করে শায়েস্তাগঞ্জ উপজে'লা স্বাস্থ্য কর্মক'র্তা সাদ্দাম হোসেনের প্র'রোচনায় আমাকে অন্যায়ভাবে জ'রিমানা করা হয়েছে। এ নিয়ে উপসহকারি কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসারদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানতে চাইলে শায়েস্তাগঞ্জ উপজে'লা স্বাস্থ্য কর্মক'র্তা ডা. মো. সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘বনজ কুমা'র হালদারকে আমি ছিনি না। আমি ভ্রাম্যমাণ আ'দালতকে সহযোগিতা করেছি মাত্র।’

শায়েস্তাগঞ্জ উপজে'লার তৎকালীন নির্বাহী কর্মক'র্তা সুমি আক্তার বর্তমানে সিলেটের জকিগঞ্জ উপজে'লায় কর্ম'রত আছেন। তিনি বলেন, ‘আমি এখন পর্যন্ত এ ধরনের কোনো কিছুই জানি না এবং কোনো ধরনের আইনি নোটিশ ও পাই নি।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!