আন্তর্জাতিক

লন্ডন থেকেে দলে দলে পালাচ্ছেন অ’ভিবাসীরা

অ’ভিবাসীদের ব্রিটেন ত্যাগের হিড়িক পড়েছে। দলে দলে ব্রিটেন ছেড়ে যাচ্ছেন অ’ভিবাসী শ্রমিকরা। ২০১৯ সালের জুলাই থেকে ২০২০ সালে সেপ্টেম্বর- ১৪ মাস সময়ের মধ্যে বিদেশে জন্ম নেওয়া ১৩ লাখের বেশি অ’ভিবাসী শ্রমিক ব্রিটেন ছেড়ে গেছেন। ব্রিটেন ছাড়ার এই প্রবণতা অব্যাহত আছে। ব্রিটেনের ইকোনমিক স্ট্যাটিসটিকস সেন্টার অব এক্সিলেন্সের (ইএসসিওই) এক গবেষণায় উঠে এসেছে এ তথ্য। আলজাজিরা।

ইএসসিওই বলছে, করো’নাভাই’রাসের কারণে সৃষ্ট আর্থিক মন্দার কারণে ব্রিটেন ছেড়ে যাওয়ার প্রবণতা বেড়েছে। তবে ব্রিটেন ছেড়ে যাওয়া অ’ভিবাসীদের কাছে আলজাজিরার পক্ষ থেকে ব্রিটেন ছাড়ার কারণ জানতে চাইলে তারা ব্রেক্সিটের কথা উল্লেখ করেন। অ’ভিবাসীদের ব্রিটেন ছাড়ার বিষয়টিকে ‘নজিরবিহীন’ উল্লেখ করে ইএসসিওই জানিয়েছে, অ’ভিবাসীদের ব্রিটেন ছাড়ার মধ্য দিয়ে ঘটতে যাচ্ছে দ্বিতীয় বিশ্বযু’দ্ধের পর ব্রিটেনের সবচেয়ে বড় জনসংখ্যা হ্রাসের ঘটনা।

অ’ভিবাসীদের ব্রিটেন ছাড়ার তোড়জোড় সবচেয়ে বেশি লন্ডনে। উল্লেখিত এক বছরের কিছুটা বেশি সময়কালে অন্তত সাত লাখ মানুষ লন্ডন ছেড়ে চলে গেছেন। পরিসংখ্যান সঠিক হলে, স্বল্প এ সময়ের মধ্যে লন্ডনের জনসংখ্যার ৮ শতাংশই চলে গেছে। গবেষণাটির লেখকরা বলছেন, বিদেশি শ্রমিকের ওপর নির্ভরশীল সেক্টরগুলোতে (যেমন-হোটেল-রেস্টুরেন্ট) চাকরি চলে যাওয়ার প্রভাব পড়েছে সবচেয়ে বেশি। করো’নাকালে চাকরি হা’রানোর চাপ বেশি বইতে হয়েছে ব্রিটেনের বাইরের মানুষদেরকে। এ কারণেই ব্রিটেন ছাড়ার হিড়িক পড়েছে। বেকারত্বের কারণে নয়। করো’না ব্রিটেনের অনেক ক্ষতি করেছে। ৮৬ হাজারের বেশি মানুষ মা’রা গেছেন। লাখো মানুষের জীবিকা হু’মকির মুখে পড়েছে। এমনকি ৩শ’ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বাজে মন্দার মুখে ব্রিটেনের অর্থনীতি। তবে এটিই অ’ভিবাসীদের ব্রিটেন ত্যাগের মূল কারণ নয়। বরং ব্রিটেনের জটিলভাবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ত্যাগই বেশিরভাগ শ্রমিকের ব্রিটেন ছেড়ে অন্য জায়গা চলে যাওয়ার মূল কারণ।

৫০ বছর বয়সি ফ্রেইজা গ্র্যাফ কেরুথারস বলেন, ‘২০২০ সালের জুনে ইংল্যান্ডের উত্তর-পূর্ব অংশ ছেড়ে নিজের দেশ জার্মানিতে চলে যাওয়ার ক্ষেত্রে করো’নাভাই’রাসের হু’মকি সিদ্ধান্ত গ্রহণে চূড়ান্ত সহায়তা করেছে। কিন্তু ২০১৬ সালে ব্রিটেনের ইইউ ছাড়ার (ব্রেক্সিট) গণভোটের পর থেকেই অ’ভিবাসীবিরোধী বাগাড়ম্বর ও রাজনৈতিক সংকটই ব্রিটেন ছাড়ার কারণ। ব্রেক্সিট ভোটের পর থেকেই ব্রিটেন ছাড়ার পরিকল্পনা করছি আমি।’ ৩২ বছর বয়সি প্রজেক্ট ম্যানেজার ফাবিয়ান ভেল্লাও ব্রিটেন ছাড়ার পেছনে ব্রেক্সিটের কথাই বলেন- ‘আমি মনে করি, ইউরোপ হচ্ছে ভালো। যে দেশটি ইউরোপে থাকতে ইচ্ছুক নয় তাতে থাকার কোনো অনুভূতি নেই আমা’র। করো’না আমা’র ফ্রান্সে ফিরে আসাকে ত্বরান্বিত করেছে মাত্র।’

ইএসসিওই এর গবেষকরা বলছেন, ব্রিটেন ছাড়া যাওয়া অ’ভিবাসী শ্রমিকদের দেশটিতে আবার ফিরে আসার কোনো পরিকল্পনাও নেই। কিছু হয়তো ফিরে আসতে পারেন, তবে বেশিরভাগেরই আর ফিরে আসার ইচ্ছা নেই। ব্রিটিশ-আ’মেরিকান দ্বৈত নাগরিক টড ফোরম্যান অক্টোবর মাসে প্যারিসে চলে যান। ব্রেক্সিট’কে ব্রিটেনের ‘আরও খা’রাপের জন্য পরিবর্তন’ বলে ফোরম্যানের মতো হচ্ছে ‘বিদেশভীতি থেকে হওয়া ব্রেক্সিট একটি কৌশলগত ভুল। আমা’র আর ইংল্যান্ডের ফিরে আসা ও বসবাস করার কোনো ইচ্ছা-পরিকল্পনা নেই।’

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!